Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন হয়রানির অভিযোগ

ময়মনসিংহ ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ১৯ জুলাই, ২০১৮, ১২:০১ এএম

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ^বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে তিন শিক্ষিকার যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতরে-বাইরে তোলপাড় শুরু হলে এ ঘটনায় নাট্যকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুহুল আমিনকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। একই সাথে এসব ঘটনায় দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে প্রক্টর জাহেদুল কবীরকে অব্যাহতি দিয়ে সহকারী প্রক্টর ড. উজ্জল কুমার প্রধানকে ভারপ্রাপ্ত প্রক্টরের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্টার কৃষিবিদ ড. হুমায়ন কবীর এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি আরো জানান, যৌন হয়রানীর অভিযোগ বিষয়ে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সৈয়দ আজিজুল ইসলামকে প্রধান করে এ তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সিন্ডিকেট সদস্য এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন নারী শিক্ষিকাকে সদস্য করা হয়েছে। আগামী ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে এ তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করবেন।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে গত ১৭ জুলাই বিকেলে ভিসি বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন তিন নারী শিক্ষিকা। তারা হলেন- একই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহকারী অধ্যাপক ইসমত আরা ভূঁইয়া ইলা, সহকারী অধ্যাপক নীলা সাহা এবং নুসরাত শারমীন। এ লিখিত অভিযোগে ইসমত আরা ভূঁইয়া ইলা দাবি করেন, গত ১৭ জুলাই বিভাগীয় একাডেমিক কমিটির সভা শেষে শিক্ষক রুহুল আমিন আমার দিকে যৌন ইঙ্গিতপূর্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে এবং চোঁখ টিপ দিয়ে খারাপ ইঙ্গিত করেন। এছাড়াও রুহুল আমিন বিভিন্ন সময় নোংরা ইঙ্গিতপূর্ণ কথা-বার্তা সম্পন্ন লেখা আমাকে টেক্স করেন। একই অভিযোগ পত্রে নীলা সাহা বলেন, একদিন রুহুল আমীন আমার চুলে ও গালে হাত দিয়েছিল। এ ঘটনায় আমি প্রতিবাদ করলেও তিনি বিভিন্ন সময় কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য এবং অশালীন দৃষ্টি নিক্ষেপ করে চলছেন। অপর অভিযোগকারী নুসরাত শারমিন বলেন, শাড়ি পড়ে আসলে রুহুল আমিন আমার দিকে বাজেভাবে তাকিয়ে থাকেন এবং নোংরা মন্তব্য করেন। এ ঘটনায় আমি সাবেক সাবেক ভিসির কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ করলেও তিনি কোন প্রতিকার করেননি।
তবে এসব অভিযোগ মিথ্যা বানোয়াট দাবি করে রুহুল আমিন বলেন, নাট্যকলা বিভাগের প্রথম ব্যাচের এমএ ক্লাসের ২৪ জন পরীক্ষার্থী মধ্যে মৌখিক পরীক্ষায় ৯ জন ফেল করে। এ ঘটনায় পুনরায় পরীক্ষা নেয়ার বিষয়ে একাডেমিক সভায় আমি’সহ চার জনের প্রস্তাব ছিল, বিধি মোতাবেক পরীক্ষা নেয়া হোক। কিন্তু অভিযোগরীরা’সহ ৫ জন চাইছিল বিনা শর্তে পরীক্ষা নিতে। এনিয়ে বাক-বিতÐের কারণে উদ্দেশ্যমূলকভাবে আমাকে হয়রানি করার জন্যই এসব বানোয়াট অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে।এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মোস্তফিজুর রহমান বলেন, আমি ব্যস্ত আছি। এ বিষয়ে রেজিস্ট্রার কথা বলবেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিশ্ববিদ্যাল


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ