Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৪ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

বাংলাদেশে হিন্দুদের সংখ্যা বেড়েছে -সুষমা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০১৮, ১১:৩০ এএম

বাংলাদেশে হিন্দুদের সংখ্যা বেড়েছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত কয়েক বছরে ২ শতাংশ বেড়েছে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এ তথ্য জানিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার রাজ্যসভায় প্রশ্নোত্তরপর্ব চলার সময় লিখিতভাবে তিনি এ তথ্য জানান।
সুষমার দাবি, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে সংখ্যালঘু সমস্যা সম্পর্কে ভারত সরকার অবগত। তবে ভারতের উদ্যোগ শুধু দ্বিপাক্ষিক স্তরে বিষয়টি উত্থাপন করেই আটকে নেই, সমস্যা সমাধানে ওইসব দেশের সরকারগুলোর সঙ্গেও হাত মিলিয়েছে কেন্দ্র।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার নিশ্চিত করেছে, সংখ্যালঘুদের ওপর আক্রমণের ঘটনা কড়া হাতে দমন করা হবে। একই প্রতিশ্রুতি দিয়েছে আফগানিস্তানও। পাকিস্তানে সংখ্যালঘু নিগ্রহ নিয়ে রাষ্ট্রপুঞ্জেও সরব হয়েছে ভারত।

রাজ্যসভার প্রতিনিধিদের এদিন নাগরিকত্ব আইন সংশোধন বিলে সম্মতি জানানোর অনুরোধও জানিয়েছেন সুষমা স্বরাজ।

বাংলাদেশ ব্যুরোর তথ্যের ভিত্তিতে দেওয়া পররাষ্ট্রমন্ত্রীর জবাব অনুসারে, বাংলাদেশে ২০১১ সালে ৮.৪ শতাংশ হিন্দুর বাস ছিল। ‌২০১৭ সালে তা বেড়ে হয়েছে ১০.‌৭ শতাংশ।

সুষমা স্বীকার করে নেন, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান, পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে ঠিকই, তবে বাংলাদেশ সরকার এ ধরনের ঘটনা আটকাতে কড়া ব্যবস্থা নিচ্ছে। এ সব বরদাস্ত করা হবে না বলে সাফ জানিয়েছে শেখ হাসিনার সরকার।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও রংপুরে দুটি হামলার কথা উল্লেখ করে সুষমা বলেন, প্রথম ক্ষেত্রে ৬৭ জনকে জেল হেফাজতে রাখা হয়েছে। রংপুরেও উসকানিদাতারা জেলেই রয়েছে। দুটি মামলাই আপাতত বিচারাধীন।

অন্যদিকে, আফগানিস্তান সরকারও দেশীয় নাগরিকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বলে জানিয়েছেন সুষমা স্বরাজ।

পাকিস্তান থেকে অত্যাচারিত সংখ্যালঘুরা শরণার্থী হিসেবে ভারতে প্রবেশ করছেন, এ দাবি মেনে নিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবেচনাধীন হলেও পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় দায়িত্ব এড়াচ্ছে না। শরণার্থী সংখ্যালঘুদের যাতে দ্রুত নাগরিকত্ব দেওয়া যায়, সেজন্যই রাজ্যসভার সাংসদদের নাগরিকত্ব আইন সংশোধন বিলে সম্মতি জানানোর অনুরোধ জানান সুষমা।

লোকসভায় ইতিমধ্যেই সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটে বিলটি পাশ হয়েছে। রাজ্যসভার সম্মতি পেলেই বিলটি আইনে পরিণত হতে পারে।

সুষমা বলেন, যারা ভারতে শরণার্থী হিসেবে আসছেন, তাদের প্রথমে ২ বছরের ভিসা দেওয়া হবে। এরপর আরও ৫ বছর। তারপরও যদি তারা এদেশে থেকে যেতে চান, তাহলে নতুন আইন অনুসারে ৭ বছরের মাথায় স্থায়ী নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। সূত্র : আজকাল



 

Show all comments
  • মোঃনুরুল ইসলাম ২০ জুলাই, ২০১৮, ১:২৮ পিএম says : 0
    বাংলাদেশে হিন্দুদের সংখ্যা বেড়েছে তাতে কি তারা কি ভারতের খাচ্ছে,তারা বাংলাদেশী নাগরিক তারা আবার সংখ্যালঘু হইল কিভাবে ও সে সব হিন্দুদের উপর হামলা কারা করছে?ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এতো শেখ হাছিনা প্রীতিতে কেন ও সংখ্যা লঘুদের উপর হামলা যারা করেছে তাদের খুঁজে বের করার দায়িত্ব বাংলাদেশী আইন শৃঙ্খলা বাহিনীদের উপর????
    Total Reply(0) Reply
  • Nannu chowhan ২০ জুলাই, ২০১৮, ৩:৩৮ পিএম says : 0
    Bangladesher hinduder kiso berese ,jaliatir maddhome eai deshe varotio hindura nagrikotto nia onnaivabe eaideshe chakuri o bebosha koritese.Ar ar amadesr hindu jono shongkha barse tate tader ki?
    Total Reply(0) Reply
  • ওবাইদুল ২০ জুলাই, ২০১৮, ৫:১৯ পিএম says : 0
    বাংলাদেশেরও উচিৎ ভারতের মুসলমানদের জন্য খোঁজখবর রাখা এবং মাথা ঘামান । মুসলিম নির্যাতনের বিরুদ্ধে সরব হতে হবে । ভারতের কোন স্থানে কোন মুসলিম নির্যাতনের শিকার হোলে ভারতে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমশনের কর্তা ব্যাক্তিরা নির্যাতনের শিকার ব্যাক্তির সাথে দেখা করে ঘটনা জানা ও সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করা ।
    Total Reply(0) Reply
  • bodiur rahman ২০ জুলাই, ২০১৮, ৬:১৭ পিএম says : 0
    Hi Susoma, Are you Bangladeshi citizen? if not can you stop your paling with us. Bangladesh better than India, napal, and srelangka , so you can not sleep.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর