Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১১ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

মিয়ানমারে মুক্তি পাচ্ছে আরো ৮৩ জন বন্দি

প্রকাশের সময় : ১৮ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট থিন কিয়াউ রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দেয়ার ব্যাপারে তার সরকারের সদিচ্ছার কথা আবারো ঘোষণা করেছেন। এই রাজবন্দিরা বিগত সামরিক সরকারের সময় বাকস্বাধীনতার দাবিতে আন্দোলন করে দফায় দফায় কারাবরণ করেছেন এবং তাদের অনেকে এখনো কারাগারে অন্তরীণ রয়েছেন। দেশটির নববর্ষ উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট কিয়াউ সাধারণ ক্ষমার আওতায় ৮৩ জন বন্দিকে মুক্তি দেয়ার নির্দেশে স্বাক্ষর করেছেন। মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট কার্যালয় থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এই তথ্য প্রকাশ করা হলেও তাতে যেসব বন্দিদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে তার মধ্যে রাজবন্দিরা রয়েছেন কিনা তা নিশ্চিত নয়। কয়েক দশকের সামরিক শাসনের পর গত মাসে থিন কিয়াউ মিয়ানমারের প্রথম বেসামরিক প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। সাংবিধানিক বাধার কারণে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও দেশটির গণতান্ত্রিক নেত্রী অং সান সু চি এই শীর্ষ পদে আসীন হতে পারেননি। কার্যত তার সমর্থন ও উদ্যোগেই থিন কিয়াউ প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। সু চির দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্র্যাসি, সংক্ষেপে এনএলডির প্রায় সকল নেতাই বিগত সামরিক সরকারের সময় বিভিন্ন মেয়াদে কারাবরণ করেছেন। স্বয়ং সু চিও দীর্ঘদিন নিজ বাড়িতে গৃহবন্দি জীবনযাপন করেছেন।

সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়, মিয়ানমারের নববর্ষের প্রথম দিনেই ৮৩ জন বন্দিকে সাধারণ ক্ষমার আওতায় মুক্তি দেয়া হবে। উল্লেখ্য, সরকারের এই বিবৃতি গতকাল রোববার সকালে ফেইসবুকে পোস্ট করা হয়। ফেইসবুকে পোস্ট করা বিবৃতিতে বলা হয়, নববর্ষের দিনে মিয়ানমারের জনগণকে সুখ ও শান্তির বার্তা দেয়া এবং একই সঙ্গে জাতীয় সংহতির জন্য এই বন্দিমুক্তির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে গৃহবন্দি থাকা নেত্রী অং সান সু চি চলতি মাসের প্রথম দিকে অপর এক বিবৃতিতে বন্দিদের মুক্ত করে দেয়ার অঙ্গীকার করেন এবং বলেন, তার সরকারের অগ্রাধিকার হচ্ছে বন্দিদের মুক্তি দেয়া। সরকারের বর্তমান সিদ্ধান্ত সেই অঙ্গীকারের প্রকাশ বলে মনে করা হচ্ছে। এর আগে সরকার ২শ’ জন বন্দির উপর থেকে সামরিক সরকারের আমলের সমস্ত অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেয়। এই বন্দিদের মধ্যে কয়েকজন রয়েছে ছাত্র, যারা শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে আন্দোলন করতে গিয়ে এক বছরের বেশি সময় জেল খেটেছে। এএফপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মিয়ানমারে মুক্তি পাচ্ছে আরো ৮৩ জন বন্দি
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ