Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ০১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

ফ্যাট হ্রাসে পাঁচ পরীক্ষিত পানীয়

ওজন কমান...

ইয়ংগিস্তান ইন : | প্রকাশের সময় : ২৬ জুলাই, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

আপনি যখন নিবন্ধটি পড়ছেন, তখন মনে হচ্ছে আপনি আপনার দেহের স্থ’লতা ও মেদবহুল অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চান। অবশ্য এই নিবন্ধ থেকে ওজন কমানোর সুষ্ঠু ও সহজ উপায়গুলোর অন্যতমটি জানা যাবে। হ্যাঁ, স্বাভাবিক কার্যকর ও স্বাস্থ্যকর খাদ্য গ্রহণ থেকে বিরত থাকা ছাড়াও ওজন কমানো আরও অনেক উপায় রয়েছে। সেসব পদ্ধতির একটি হচ্ছে ফ্যাট কমানোর শরবত বা পানীয়। এই শরবত দেহের বিপাক প্রক্রিয়াকে বাড়িয়ে দেয় এবং দেহ ও মনকে স্বতস্ফূর্ত রাখে।
এখানে মেদ কমানোর কয়েকটি শরবত তৈরির বিষয় তুলে ধরা হলো যা কার্যকরভাবে ওজন কমানোর লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক হতেপারে ঃ-
১. শশা-লেবুর শরবত বা পানীয়
ওজন কমানোর জন্য প্রতিদিন সকালে ফ্যাট হ্রাসের শরবত পান করে দেহের অস্বাস্থ্যকর চর্বি ঝরিয়ে ফেলূন। লেবুতে প্রচুর পরিমানে দ্রবণীয় পেক্টিন ফাইবার রয়েছে, যা ওজন কমাতে সহায়ক। শশা হলো ভিটামিন-সি’র উৎকৃষ্ট খনি। ভিটামিন-সি দেহর অভ্যন্তরীণভাগকে চমৎকারভাবে পরিচ্ছন্ন রাখে। আদা রক্ত চলাচল প্রক্রিয়াকে জোরদার করে। অপরদিকে পুদিনার পাতা ক্ষুধাকে দমন করে রাখার পথ্য হিসেবে সুবিদিত। এটি টক্সিন অপসারণে সাহায্য করে।
শশা ও লেবুর শরবতের উপাদান ঃ এক চা চমচ বাটা আদা, এক ফালি লেবু, এক ফালি শশা, আট গ্লাস পানি এবং কয়েকটা পুদিনা পাতা।
তৈরির পদ্ধতি ঃ সন্ধ্যার সময় সব উপাদান একটি পাত্রে নিয়ে মিশান। সারারাত মিশ্রণটিকে থিতানোর সুযোগ দিন এবং পরের দিন কয়েকভাগে পুরো শরবতটুকু পান করুন।
২.আপেল সিডার ভিনেগার শরবত
এ হচ্ছে এক জাদুকরী শরবত যা ওজন কমাতে সহায়ক। এ শরবতের প্রধান উপাদান এসিভি (আপেল সিডার ভিনিগার) এক বিরাট প্রোবায়োটিক উপাদান যা বিপাক বা হজমের জন্য খুবই সহায়ক। শরীরে আয়রনের ব্যবহারও তা বৃদ্ধি করে। সে সাথে আমাদের গ্রহণ করা সোডিয়ামের ভারসাম্য রক্ষায় সাহায্য করে।
আপেল-সিডার-ভিনেগার শরবতের উপাদান ঃ গরম পানি, লেবু, মধু, দারুচিনি ও আপেল সিডার ভিনেগার।
পদ্ধতি ঃ প্রতিদিন সকালে খালিপেটে উপাদানগুলো মিাশত শরবতটি পান করুন।
৩. ধনের শরবত (কোরিয়ান্ডার ড্রিংক)
গবেষণায় বলে, যারা মেদ ও ডায়াবেটিসে ভুগছেন তাদের জন্য ধনে আশ্চর্য উপকারী। ধনে আঁশ সমৃদ্ধ , লেবুতে সমৃদ্ধ ভিটামিন সি। এগুলো রক্ত পরিষ্কার ও হজমে সাহায্য করে। দারুচিনি ব্লাড সুগার কমায় এবং তা অ্যান্টি-অক্সিডান্টের বিরাট উৎস।
ধনের শরবতের উপাদানঃ ধনে চ‚র্ণ আধ কাপ, লেবু একটা, গরম পানি এক গ্লাস ও দারুচিনি ১/৪ চামচ।
তৈরির পদ্ধতি ঃ উপাদানগুলো একটি পাত্রে রেখে সামান্য পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। তা গ্লাসে রেখে তার সাথে লেবুর রস, দারুচিনি গুঁড়ো ও গরম পানি মিশিয়ে মিশ্রণ করুন । ব্যস, আপনার ফ্যাট বার্নার শরবত তৈরি।
৪.চিয়া বীজ ও হিমালয়ান সল্টের শরবত
চিয়া বীজ আমাদের শরীরের মেটাবলিক হার বাড়িয়ে ধেয়। এটা খাদ্যের শোষণ ক্রিয়া ধীর ও সুগার চাহিদা হ্রাস করে। চিয়া বীজ জিংকে পূর্ণ, যা ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণ করে। অন্যদিকে হিমালয়ান সল্টে রয়েছে বহু খনিজ ও পুষ্টি, যা অতিরিক্ত পানি ও সেলুলাইট থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।
চিয়া বীজ ও হিমালয়ান সল্টের শরবতের উপাদান ঃ আধ টেবিল চামচ চিয়া বীজ, আধ চা চামচ হিমালয়ান গোলাপি লবণ, এক গ্লাস পানি ও অর্ধেকটা লেবু।
তৈরির পদ্ধতি ঃ একটি গ্লাসে সব উপাদান রাখুন। আধ ঘন্টা থেকে ২ঘন্টা সময় রাখুন যতক্ষণ না চিয়া বীজ সুন্দর ভাবে ফুলে ওঠে। এখন এর সাথে লেবুর রস যোগ করুন। ভালো করে গুলিয়ে নিয়ে খালি পেটে পান করুন।
৫. হলুদ-জায়ফল শরবত (টার্মারিক-নাটমেগ ড্রিংক)
হলুদের আছে থার্মোজেনিক প্রভাব, যা আমাদের মেটাবলিজম বৃদ্ধি করে ও স্থ’লকায় হ্রাসে সহায়ক। অন্যদিকে জায়ফল এই শরবতের এক গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন যা আপনাকে দীর্ঘ সময় উৎফুল্ল রাখে। এটা শরীরের চর্বি ধ্বংসকালরী ম্যাঙ্গানিজের উত্তম উৎস।
হলুদ-জায়ফল শরবতের উপাদান ঃ পরিমাণমত পানি, আধা ইঞ্চি পরিমাণ আদা, এক টেবিল চামচ হলুদ, জায়ফল ও কালো মরিচের গুঁড়া।
তৈরির পদ্ধতি ঃ এক গ্লাস পানিতে আদাটুকু সেদ্ধ করুন। একটি খালি গ্লাসে এক চা চামচ হলুদ গুঁড়ো , একটু জায়ফল ও মরিচগুঁড়ো দিন। তাতে ফোটানো পানি ঢেলে গ্লাসের মুখ পাঁচ মিনিট ঢেকে রাখুন। তারপর পান করুন।
ওজন হ্রাসের জন্য মেদ কমানোর অন্তত একটি পানীয় খান ও ফলাফল দেখুন। তবে আপনার যদি এগুলোর কোনোটায় এলার্জি থাকে বা স্বাস্থ্য সমস্যা থাকে তাহলে তা গ্রহণ থেকে আপনাকে বিরত থাকতে হবে। এগুলো পান করা নিয়ে সমস্যা হলে ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।



 

Show all comments
  • Fahad Hasan ২৬ জুলাই, ২০১৮, ৪:২১ এএম says : 0
    thanks a lot for this news
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর