Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

রাসূলুল্লাহ (সাঃ)’র যুগে সরকারী পদ

মুহাম্মদ মনজুর হোসেন খান | প্রকাশের সময় : ২৭ জুলাই, ২০১৮, ১২:০২ এএম

শেষ
সাধারণভাবে এটা প্রসিদ্ধ যে , বিচার বিভাগ উমার (রাঃ) এর যুগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু সীরাতে নববী অধ্যয়নকারীগণ খুব ভালো ভাবেই অবগত আছেন যে, এই পদও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর যুগে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। তবে পার্থক্য এই যে, উমার (রাঃ) বিচারবিভাগকে শাসন বিভাগ থেকে পরিপূর্ণ পৃথক করে স্বতন্ত্র একটি বিভাগে পরিণত করেন; পক্ষান্তরে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর যুগে এ দুটি মিলে একটি বিভাগ ছিল। যেমন রাসূলুল্লাহ (সাঃ) মুআয (রাঃ) কে ইয়ামানের বিচারক ও শাসক উভয় পদের দায়িত্ব দিয়ে পাঠিয়েছেন। সীরাত থেকে আরও জানা যায়, রাসূলুল্লাহ (সাঃ) নিজেই বিচারক পদে কাউকে নির্বাচন করার র্শত ও বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করে দিয়েছেন। তথাপি এটা স্বীকৃত বিষয় যে, তার মাধ্যমে কোন এলাকায় যিনি নির্বাহী হিসেবে নিয়োগ পেতেন, তিনি একাধারে নির্বাহী কর্মকর্তা, বিচারক ও গভর্ণর হিসেবে কর্তব্য সমাধা করতেন।
প্রতিটি রাষ্ট্রের জন্য সীমান্ত সংরক্ষণ, ব্যবস্থাপনা, নির্বাহ এবং রাষ্ট্রের সার্বিক উন্নয়নের জন্য নিজস্ব অর্থবিভাগ থাকা আবশ্যক। রাসূলূল্লাহ (সাঃ) এর যুগে সম্পদের একত্রকরণ, সংরক্ষণ, বন্টন ও এতদসংক্রান্ত কার্যক্রমের জন্যে বায়তুল মাল নামে পৃথক বিভাগ ছিল। তার মক্কী জীবনে স্বতন্ত্র ইসলামী রাষ্ট্রের অস্তিত্ব ছিল না। এ কারণে সে সময় উক্ত বিভাগের উপকরণ ছিল সীমিত।
মদীনা রাষ্ট্রে সম্পদ আয়ের সবচেয়ে বড় খাত ছিল যাকাত ও সাদাকা। সাদাকা উসূল করা ইসলামী রাষ্ট্রের অন্যতম দায়িত্ব। সাদাকার অধীনে স্বর্ণ, রুপা, নগদ অর্থ. ব্যবসার পণ্য, উশর, গবাদিপশুর যাকাত, গুপ্তধন ইত্যাদি সম্পদের যাকাত একত্রিত করা হত। বিভিন্ন কর্মকর্তা সাদাকা উসূল করতেন। যাকাত তো একটি ফরয বিধান। সে সময়কালে ব্যক্তি উদ্যোগে যাকাত পাওয়ার হকদারদের মধ্যে যাকাত বন্টন করা হত না, বরং সরকারি উদ্যোগে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মাধ্যমে যাকাত আদায় করে রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনায় ব্যয় করা হত। এ থেকে প্রমাণিত হয়, সরকারি সম্পদের সংরক্ষণ, ব্যবস্থাপনা, নির্বাহ করা ও বন্টন করার কাজও ইসলামী রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব।
আল্লামা শিবলী নোমানী জিয্য়া ও খারাজ সম্পর্কে লিখেছেন, অমুসলিম প্রজাদের কাছ থেকে তাদের নিরাপত্তা প্রদান ও দায়গ্রহণের বিনিময় জিয্য়া গ্রহণ করা হয়।এর কোন পরিমাণ নির্ধারিত ছিল না। রাসূলুল্লাহ(সাঃ) তার সময় প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক সক্ষম ব্যক্তির ওপর বছরে এক দীনার করে জিয্য়া ধার্য করেছিলেন। শিশু ও নারী এর অন্তর্ভুক্ত ছিল। ‘ইলীয়া’ থেকে প্রাপ্ত জিয্য়ার পরিমাণ ছিল ৩০০ দীনার। সে সময় জিয্য়ার সবচেয়ে বড় পরিমাণ উসূল হত বাহরাইন থেকে। অমুসলিম কৃষকদের মালিকানা অধিকারের বিপরীতে তাদের সাথে আপোসে সন্ধির ভিত্তিতে উৎপন্ন ফসলের যে পরিমাণ ধার্য হত, তার নাম হলো খারাজ। খায়বার,ফাদাক, ওয়াদিল কুরা, তায়মা ইত্যাদি জায়গা থেকে খারাজ উসূল করা হত। জিয্য়া ও খারাজকে ‘ ফাই’ বলেও অভিহিত করা হত, যেহেতু ‘ফাই’ অর্থ বিনাযুদ্ধে লব্ধ সম্পদ, আর এ সম্পদগুলো তো বিনাযুদ্ধে লব্ধ হচ্ছে।
রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর যুগে সম্পদেও অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎস ছিল প্রোথিত সম্পদ ও গনীমত। আল্লামা কাসানী বলেন, ভূগর্ত থেকে যত সম্পদ বের হয় এগুলো দু‘প্রকার। একপ্রকার হলো যা মানুষ নিজে যমীন প্রোথিত করে। একে কান্য বলে। দ্বিতীয় প্রকার হলো খনি, যা সৃষ্টিগতভাবে যমীনের অভ্যন্তরে রাখা আছে। রিকায শব্দটি উভয় প্রকার সম্পদ বোঝানোর জন্যে ব্যবহৃত হয়। গনীমত হলো সে সম্পদ,যা যোদ্ধারা শত্রæপক্ষের ওপর কর্তৃত্ব ও প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে অর্জন করে।
ইসলামী শিক্ষার আলোকে সরকারি পদ ও সম্পদের উদ্দেশ্যই হলো জনগণের সেবা করা। সরকারি পদমর্যাদায় অধিষ্ঠিত হতে হলে তার মধ্যে আবশ্যক কিছু গুণাবলি বিদ্যমান থাকতে হবে। যেমন জ্ঞান, শারীরিক ও মানসিক সক্ষমতা ইত্যাদি। ইসলাম সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকে ঘুষ ও উপঢৌকন গ্রহণ, স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি ও অপকর্ম থেকে নিষেধ করেছে। ইসলাম এ শিক্ষাও দিয়েছে যে, সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের সবসময় দেশের ও রাষ্ট্রের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করতে হবে এবং সরকারি সম্পদকে নিজ মালিকানাধীন সম্পদের ন্যায় মনে করা ও নিজ প্রয়োজনে ব্যবহারের কোন সুযোগ নেই।অতএব রাষ্ট্রীয় পদ ও জাতীয় সম্পদের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের কর্তব্য হলো,তারা সুন্নাহ থেকে সরকারি চাকুরির নীতি মালা অনুধাবন করবেন এবং সে অনুসারে আমল করবেন, বিদ্যমান রাষ্ট্র ব্যবস্থায়কে ইসলামী আদর্শের আলোকে গড়ে তুলবেন, তবেই রাষ্ট্রব্যবস্থায় যে অনিয়ম, সুপারিশ, ঘুষ গ্রহণ ও অবৈধ পন্থায় সম্পদের পাহাড় গড়ার প্রবণতা পরিলক্ষিত হচ্ছে তার লাগাম টেনে ধরা সম্ভব হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর