Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৯ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

আলোচনার প্রস্তাব অবশ্যই ভালো লক্ষণ -নজরুল ইসলাম খান

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জুলাই, ২০১৮, ৫:৩৯ পিএম | আপডেট : ৭:২৪ পিএম, ২৭ জুলাই, ২০১৮

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলোচনার কথা বলেছেন আমরা তাকে স্বাগত জানাই। তবে তিনি তার এই বক্তব্যে কতক্ষণ অটল থাকবেন বা থাকতে পারবেন কি না সেটাই দেখার বিষয়। তারপরও বলবো তারা যদি আলোচনায় বসতে চায় তাহলে এটা অবশ্যই ভালো লক্ষণ। যুদ্ধের মধ্যেও আলোচনা হয়, যুদ্ধের আবসান হয়। আমরাতো যুদ্ধ করছি না, আন্দোলন করছি। আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হতেই পারে। তবে আলোচনার আগে অবশ্যই বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ(জেটব) কর্তৃক আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবীতে এ জেটব এ কর্মসূচীর আয়োজন করে।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমাদের কিছু ন্যায্য দাবি রয়েছে। আমরা আমাদের দাবি নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনায় বসতে চাই। আমরা বলছি না খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফ করে দিন। বরং আপনারা সরকারি উকিল দিয়ে বেগম জিয়ার কারাবাস দীর্ঘায়িত করছেন। সেটা বন্ধ করুন, আমরা চাই তিনি জামিনে বের হয়ে আসুক। তিনি যেনো তার চিকিৎসা নিতে পারেন এবং আমরা যেন তার নেতৃত্বে নির্বাচন করতে পারি।

তিনি আরও বলেন, যুদ্ধ যখন চলে, তখন আলোচনার মাধ্যমে যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। কাজেই আন্দোলন-সংগ্রাম ও আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হতে পারে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যদি আলোচনায় বসতে চায়, আমার মনে হয় এটা ভালো লক্ষণ। বিএনপি চাইলে আওয়ামী লীগ আলোচনায় বসতে রাজি আছে ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যেকে আমরা স্বাগত জানাই। তবে এই কথা কতক্ষণ স্থির থাকে এ নিয়ে আমরা দুশ্চিন্তায় রয়েছি।

মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, এই সরকার একটা মামলাবাজ, একটা হামলাবাজ সরকার। তারা মিথ্যা মামলা দেন, আপনি যদি সেই মামলায় হাজির না হন। গ্রেফতারি পরোয়ানা দিয়ে আপনাকে কারারদ্ধ করা হবে। আর যদি আপনি হাজিরা দিতে যান তাহলে তাদের দলীয় লোক দিয়ে আপনার উপর হামলা করা হবে। মাহমুদুর রহমানকে তাই করা হয়েছে।

ভিডিও ফুটেজ রয়েছে এ হামলায় কারা রয়েছে, কারা তাকে মারছেন এবং তিনি আত্মরক্ষার চেষ্টা করছেন সব কিছু দেখা যায়। কিন্তু আজ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হলো না। আমি অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি।

নজরুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের প্রকৃত গণতন্ত্র, জনগণের শাসন, জনগণের দ্বারা নির্বাচিত, জনগণের কাছে দায়বদ্ধ একটা সরকার প্রতিষ্ঠার জন্য আমরা লড়াই করছি। সে নির্বাচন সকলের অংশগ্রহণে হতে হবে অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ। হামলা-মামলা আর সিট ভাগাভাগি ২০১৪ সালের নির্বাচন আমরা হতে দেব না।

বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, জাতীয়তাবাদী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার, বিএনপি নেতা মিজানুর রহমান প্রমুখ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নজরুল ইসলাম খান

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ