Inqilab Logo

শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১৫ মাঘ ১৪২৮, ২৫ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

বগুড়া বিআরটিসির যাত্রীসেবার মান ও অনিয়ম বন্ধে পদক্ষেপ

বগুড়া ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৩১ জুলাই, ২০১৮, ১২:০২ এএম

ট্রিপ চুরি, অর্থ আত্মসাৎ, কেনাকাটায় অনিয়ম, কর্মচারীেেদর নামে বহিরাগতদের বাস ইজারা, সিবিএর কতিপয় নেতার সিন্ডিকেট গড়ে অর্থ আয়সহ ব্যবস্থাপকদের নানা অনিয়ম নিয়ে যখন দেশজুড়ে বিআরটিসির কর্মকান্ড প্রশ্নের মুখে ঠিক সেই সময় বিআরটিসি বগুড়া ডিপোয় দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। কার্যকর ও তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে বগুড়া বিআরটিসিকে ভিন্ন রূপ দেয়ার চেষ্টা নজর কেড়েছে যাত্রীদের।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বর্তমানে বিআরটিসি বগুড়া ডিপোর নিজস্ব ব্যবস্থপনায় ৩২-৩৩টি গাড়ি উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটে সচল রয়েছে। বাকি ১৪টি রয়েছে লং টার্ম লিজে। শুধু তাই নয়, যাত্রীসেবার মান-উন্নয়নে সড়কে চলাচলরত যেকোন গাড়ি কোনো ত্রুটি দেখা দিলে তাৎক্ষণিক তা নিজস্ব ওয়ার্কসপে এনে মেরামত করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, ডিপোর যাবতীয় গাড়ির যন্ত্রাংশ ক্রয়ে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি ক্রয় কমিটি করে দেয়া হয়েছে। ফলে বিগত সময়ে যন্ত্রাংশ ক্রয়ে নানা অনিয়ম হলেও বর্তমানে এসব অনিয়ম জিরো পর্যায়ে এসেছে বলে যান্ত্রিক বিভাগের প্রধান জাহাঙ্গীর হোসেন ইনকিলাবকে বলেন। ফলে ডিপোর মোট গাড়িবহরের মধ্যে মাত্র তিনটি বর্তমানে ডিপোতে মেরামতাধীন অবস্থায় রয়েছে। ডিপোর বর্তমান লোকবল ১৪৯ জন। তার মধ্যে ২০ জন রয়েছে মজুরিভিত্তিক।
জানা যায়, বর্তমান ডিপো ম্যানেজার মফিজ উদ্দিন যোগদানের পর থেকেই ভঙ্গুর দশা থেকে উত্তরণের পথ দেখছে বগুড়া ডিপো সংশ্লিষ্টরা। বিআরটিসি বগুড়া ডিপোর একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিগত ১০ বছর আগে যেখানে বগুড়া ডিপোর অধীন প্রায় ৩৬টি রুটে ৪৬-৪৭টি গাড়ি চলাচল করত, বর্তমানে তা কমতে কমতে ২১টি রুটে এসে দাঁড়িয়েছে। অপর দিকে বর্তমানে বিভিন্ন রুটে চলাচল রত গাড়ি রয়েছে ৩৩টি। অন্য গাড়িগুলো আলাদা ডিপো খোলায় (দিনাজপুর ডিপো) সেখানে দেয়া হয়েছে। গাড়ির মতো যাত্রী ভাড়া বৃদ্ধি পায়নি।
সারাদেশে বিআরটিসির ২২টি ডিপো আছে। এর মধ্যে ঢাকায় ছয়টি। নানা কারণে বগুড়া ডিপোর আয় কমলেও কর্মচারীদের তিন মাসের বকেয়া বেতন দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হওয়ায় কর্মচারীদের মধ্যে কর্মচঞ্চলতা দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে বিআরটিসির বগুড়া ডিপোর ম্যানেজার মফিজ উদ্দিন বলেন, আমি দায়িত্ব নেয়ার পর ডিপোর অভ্যন্তরে নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা লক্ষ্য করি। যেগুলো দূরীকরণে আমাকে নানা বাধাবিপত্তির সম্মুখীন হতে হয়। এ ক্ষেত্রে বিআরটিসির চেয়ারম্যান স্যারের নির্দেশনায় সকল ভয়ভীতি, চাপ উপেক্ষা করে আমি অনিয়ম বন্ধসহ ডিপোর আয় বৃদ্ধিতে মনোযোগী হই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ