Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌
শিরোনাম

কাপ্তাইয়ে মাছ আহরণ শুরু

স্টাফ রিপোর্টার, রাঙামাটি থেকে : | প্রকাশের সময় : ১ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০২ এএম

দীর্ঘ তিনমাস বন্ধ থাকার পর গতকাল মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে দেশের মিঠা পানির মাছের অন্যতম উৎস কাপ্তাই হ্রদে মাছ আহরণ শুরু হয়েছে। এর ফলে হ্রদের মাছ আহরণ, বাজারজাতকরণ ও পরিবহনের উপর নির্ভরশীল লক্ষাধিক লোকজনসহ জেলে পল্লীগুলোতে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে।
দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে কার্প প্রজাতির মাছসহ অন্যান্য মা মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিতকরণসহ হ্রদে অবমুক্তকৃত পোনার স্বাভাবিকবৃদ্ধির লক্ষ্যে গত ১লা মে থেকে কাপ্তাই হ্রদের মাছ আহরণ নিষিদ্ধ করা হয়।
কাপ্তাই হ্রদ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন, রাঙামাটি কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক কমান্ডার মো. আসাদুজ্জামান চলতি মাছ ধরা বন্ধ মৌসুমে সবার সর্বাতœক সহায়তার জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বলেন মাছ ধরা বন্ধ মৌসুমে কাপ্তাই হ্রদ নিরাপদ থাকায় এ বছর মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। কাপ্তাই হ্রদের মাছের সেই ঐতিহ্য আবারো ফিরে আসবে। তিনি জানান ২০১৭ সালের ১৩ জুন রাঙামাটিতে সংগঠিত ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ফলে কাপ্তাই হ্রদের মৎস্য সম্পদ ও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যোগাযোগ ব্যবস্থার কারনে মাছ পরিবহনও বন্ধ থাকে। তবে এতো কিছুর পরেও গত মাছ ধরা মৌসুমে মাছ আহরণ এবং রাজস্ব আদায়ের উভয় ক্ষেত্রে রেকর্ড স্থাপন করেছে। তিনি জানান মাছ ধরা বন্ধ মৌসুমে হ্রদে ২৭ মেট্রিক টন কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে। আগামীতে কর্পোরেশনের নিজস্ব নার্সারীতে উৎপাদিত পোনা অবমুক্ত করা হবে।
এদিকে, নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের পরও এবছর কাপ্তাই হ্রদে মাছের উৎপাদান অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে কাপ্তাই হ্রদ থেকে ১০ হাজার ১৪১ মেট্রিক টন মাছ আহরণ করা হয়েছে। সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ১৩ কোটি ২৩ লক্ষ ৯৭ হাজার টাকা। যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ৪০ লাখ টাকা বেশি। বিগত পাঁচ বছরের ইতিহাসে কাপ্তাই হ্রদে মাছ উৎপাদনের ক্ষেত্রে এই রেকর্ড দ্বিগুণেরও বেশি। বিএফডিসি’র বিগত পাঁচ বছরের পরিসংখ্যানে দেখা যায় কাপ্তাই হ্রদে ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে ৭ হাজার ৭২৬ মেট্টিক টন মাছ উৎপাদন হয়েছে। সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ৬ কোটি ৬৮ লাখ ৯৯ হাজার টাকা। ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে ৮ হাজার ৬৪৫ মেট্টিক টন মাছ উৎপাদন হয়েছে। সরকারের রাজস্ব আয় হয়েছে ৮ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে মাছ উৎপাদন হয়েছে ৯ হাজার ৫৯০ মেট্রিক টন। এতে রাজস্ব আয় হয়েছে ১০ কোটি ৬০ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে মাছ উৎপাদন হয়েছে ৯ হাজার ৯০৫ মেট্টিক টন। রাজস্ব আয় হয়েছে ১২ কোটি ৭৫ লাখ ১৭ হাজার টাকা। বর্তমানে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে এ পর্যন্ত কাপ্তাই লেকে মাছ উৎপাদন হয়েছে ১০ হাজার ১৪১ মেট্টিক টন এবং রাজস্ব আয় হয়েছে ১৩ কোটি ২৩ লাখ ৯৭ হাজার টাকা।
সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়, গত বছর ২০১৭ সালের ১৩ জুন রাঙামাটির বিভিন্ন স্থানে ভয়াবহ পাহাড় ধসের ফলে কাপ্তাই হ্রদের মারাত্মক ক্ষতি হয়। রাঙ্গামাটির পুরো জেলার বৃষ্টির পানি কাপ্তাই হ্রদে পড়ে এবং পানি ঘোলা হয়ে যাওয়ার ফলে হ্রদের কয়েক প্রজাতির মাছ মরে যায়। তার পরও সীমিত জনবল নিয়ে বিশাল কাপ্তাই হ্রদের মাছের উৎপাদন এবং রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পেয়েছে।
এদিকে, মাছ ধরা বন্ধকালীন সময়ে হ্রদের মাছ আহরণের উপর নির্ভরশীল ২০ হাজার জেলে পরিবারকে ২০ কেজি হরে খাদ্য শস্য প্রদান করে সরকারের ত্রাণ ও পুর্নবাসন মন্ত্রণালয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ