Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

সউদী থেকে কানাডা রাষ্ট্রদূত বহিষ্কার, নয়া বাণিজ্য বন্ধ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০১ এএম

পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ‘হস্তক্ষেপের’ অভিযোগে কানাডার সঙ্গে নতুন বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বন্ধ করে দিয়েছে সউদি আরব। ধারাবাহিক কয়েকটি টুইটে সউদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কানাডার রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করা হয়েছে এবং কানাডা থেকে সউদি রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। বিবিসির খবরে বলা হয়, সউদি আরবে বেশ কয়েকজন মানবাধিকার আন্দোলনকারীকে গ্রেপ্তারের পর এ বিষয়ে ‘গভীর উদ্বেগ’ জানিয়েছিল কানাডা, প্রতিক্রিয়ায় এসব পদক্ষেপ নেয় সউদি কর্তৃপক্ষ। যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মধ্যে সউদি-আমেরিকান নারী অধিকার আন্দোলন কর্মী সমর বাদাউয়ি রয়েছেন। তিনি সউদি আরবের ‘পুরুষ অবিভাবক’ পদ্ধতির অবসান ঘটানোর আহŸান জানিয়ে আসছিলেন। স¤প্রতি নারী অধিকার আন্দোলন কর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যাপক ধরপাকড় শুরু করেছে সউদি কর্তৃপক্ষ। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা অভ্যন্তরীণ বিষয়ে ‘কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ মেনে নিবে না’। এ প্রসঙ্গে তারা গত শুক্রবার কানাডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেয়া বিবৃতির উল্লেখ করেছে। ওই বিবৃতিতে সুশীল সমাজ ও নারী অধিকার আন্দোলনকারীদের ‘অবিলম্বে মুক্তি দেয়ার’ আহŸান জানানো হয়েছিল। কানাডার এ অবস্থানকে সউদি আরবের ওপর ‘একটি হামলা’ বলে অভিহিত করেছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এক ঘোষণায় মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এখন থেকে তারা দুই দেশের মধ্যে সব ধরনের নতুন বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বন্ধ রাখবে। কানাডার রাষ্ট্রদূতকে একজন অগ্রহণযোগ্য ব্যক্তি (পারসোনা নন গ্রাতা) হিসেবে বিবেচনা করে ওই রাষ্ট্রদূতকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। কানাডা থেকে সৌদি রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করছে। সউদি আরবের এসব কূটনৈতিক পদক্ষেপের বিষয়ে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কানাডা সরকার প্রকাশ্য কোনো বিবৃতি দেয়নি।
চলতি বছর ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের তত্ত¡াবধানে সউদি সরকার তার যে প্রগতিশীল চরিত্র দেখিয়েছিল, নারী অধিকার আন্দোলনকারীদের গ্রেপ্তার তার সঙ্গে ঠিক মানানসই নয় বলে মত পর্যবেক্ষকদের। চলতি বছরের ২৪ জুন সউদি নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। গত বছর শতাব্দি পুরনো এ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ঘোষণা দিয়ে মোহাম্মদ ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছিলেন। সউদি নারী অধিকার আন্দোলনকারীরা এ সিদ্ধান্তে উল্লাস প্রকাশ করেছিলেন। তাদের মধ্যে এই নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করে কারাবরণকারী আন্দোলনকারীরাও ছিলেন। তবে তারা বৈষম্যমূলক বলে বিবেচনা করেন এমন অন্যান্য আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলেও জানিয়েছিলেন। -রয়টার্স

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর