Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫, ০৭ সফর ১৪৪০ হিজরী

দোয়া ও মোনাজাতের সময় মহানবী সা. এর উছিলা দেওয়া কি নিষিদ্ধ। আমরা এভাবে দোয়া করে অভ্যস্থ। এখন টিভিতে কিছু আলেম নবীর উছিলা দেওয়াকে হারাম বলছেন। আমাদের মনে শান্তি আসছেনা। শরীয়ত কি বলে?

ইমরান বেগ
খান এ সবুর রোড, খুলনা।

প্রকাশের সময় : ১০ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০৯ এএম
উত্তর : যারা দোয়া মোনাজাতে মহানবী সা. এর উছিলা দেওয়া হারাম বলেন, সম্ভবত তারা একটি ভুল আকীদাকে প্রতিহত করার জন্য বলে থাকেন। যা আমাদের সমাজে নেই বললেই চলে। আমাদের মাঝে নবী করিম সা. এর ওপর দুরুদ ও সালাম পাঠ করা দোয়ার প্রাণ। এক হাদীসে আছে, জনৈক সাহাবী প্রশ্ন করেন, হে নবী আমি কি আমার দোয়ার চারভাগের একভাগ আপনার দুরুদ পড়বো? নবীজি সা. বললেন, পড়তে পারো। সাহাবী বললেন, তিনভাগের একভাগ করবো? নবীজি বললেন, পারো। সাহাবী বললেন, অর্ধেক দুরুদ পড়তে পারবো? নবীজি বললেন, সেটাও পারো। সবশেষে সাহাবী বললেন, আমি কি আমার দোয়ার সবটুকুই শুধু দুরুদ পাঠ করেই সারবো? নবী করিম সা. বললেন, এমন করলেও তোমার দোয়া হয়ে যাবে। আমার দুরুদ পড়ার অর্থ আল্লাহর কাছে তোমাদের সব চাওয়া পাওয়া পৌঁছে যাওয়া। অন্য হাদীসে আছে, সকল ইবাদত প্রথম আকাশে আটকে থাকে। যখন দুরুদ পড়া হয় তখন তা আল্লাহর নিকট পৌঁছে। নবী করিম সা. এর দোহাই দিয়ে দোয়া করার ঘটনা সাহাবীদের জীবনে প্রচুর পাওয়া যায়। তার চেহারা মোবারকের উছিলা দিয়ে সাহাবীরা বৃষ্টি কামনা করেছিলেন। এক অন্ধ সাহাবী নবী করিম সা. এর পবিত্র চেহারা মোবারকে উছিলা দিয়ে দোয়া করে নিজের দৃষ্টি শক্তি ফিরে পান। একবার মদীনায় দুর্ভিক্ষ দেখা দিলে লোকজন হযরত আয়েশা রা. এর কাছে গিয়ে উপায় খুঁজতে থাকে। একসময় খলিফা ওমরও (রা.) সেখানে যান। হযরত আয়েশা তখন বলেন, হে ওমর, আপনি রাসূল সা. এর রওজা পাকের জানালাটি খুলে দিন। আকাশ দেখা যাক। এরপর তার উছিলা দিয়ে আল্লাহর নিকট বৃষ্টি কামনা করুন। হযরত ওমর রা. তাই করলেন এবং মুষলধারে বৃষ্টি বর্ষিত হলো। এটাকে আমরা বলবো, দুরুদের বরকত। যারা ‘হারাম’ বলেন, তারা কোন কাজটিকে হারাম বলেন, কোন উছিলাটিকে হারাম বলেন, কিসের ভিত্তিতে বলেন, তা ভালোভাবে না জেনে আমরা বুঝতে পারবো না। তাদের দাবীর পক্ষেও কোনো যুক্তি থাকতে পারে। তবে আপনারা যেভাবে দুরুদসহ, নবী করিম সা. এর উছিলাসহ দোয়া করতেন, এখনও সেভাবে করতে পারবেন। 
 
সূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতাওয়া বিশ্বকোষ।
উত্তর দিয়েছেন: আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভী

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
inqilabqna@gmail.com



 

Show all comments
  • অাব্দুল জব্বার ১১ আগস্ট, ২০১৮, ১:৪৭ পিএম says : 0
    চন্দ্র-সূর্য গ্রহণের সময় ইসলামের দৃষ্টিতে কি করণীয় বর্জনীয়?
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ