Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ০৭ কার্তিক ১৪২৬, ২৩ সফর ১৪৪১ হিজরী

প্রভাবশালীদের দখলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঠ

পাবনা থেকে, স্টাফ রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ১৩ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০১ এএম

আসন্ন পবিত্র কোরবানী ঈদকে সামনে রেখে প্রভাবশবলীরা পাবনার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠকে ব্যবহার করছে পশুর হাট হিসেবে। এগুলোর মধ্যে কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠ আগে থেকেই গরুর হাট হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। আবার কিছু হাট নতুন করে বসানো হয়েছে। কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে প্রভাবশালীরা রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় পশুর হাট বসিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠকে গরু-ছাগলের হাট হিসেবে ব্যবহার করায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ছাড়া ঈদের আগে কয়েকটি হাটকে নির্দিষ্ট হাটের এলাকার বাইরে সড়কে স¤প্রসারিত করা হয়েছে। ফলে সড়কে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে ।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, পাবনা জেলার আতাইকুলা হাট, কাশীনাথপুর হাট, মিয়াপুর রসুলপুর হাট, চতুরহাট, পৌরসভা হাট, নাকালিয়ারহাট, দাপুনিয়া, পুস্পপাড়া, টেবুনিয়া, আওতাপাড়া, মুলাডুলি, অরণকোলা, রেলবাজার, শরৎনগর হাট, বনওয়ারীনগর হাট সহ জেলার ছোট বড় ২৫টি হাট রয়েছে।
এ সব হাটের অর্ধেক হাট স্থাপন করা হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠে। কাশীনাথপুর হাট স¤প্রসারণ করা হয়েছে শহীদ নুরুল হোসেন ডিগ্রি কলেজ মাঠে, পুস্পপাড়া মাদ্রাসা মাঠে বসানো হয়েছে পুস্পপাড়া গরুর হাট, শরৎনগর সিনিয়র মাদ্রাসা এবং বড়াল কিন্ডার গার্টেন মাঠে বসানো হয়েছে পৌরসভা গরুর হাট। রেল বাজার গরুর হাট বসানো হয়েছে অমৃতকুন্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে।
ভাঙ্গুড়ার প্রাচীণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বড়াল কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ মো: আব্দুল কুদ্দুস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পশুর হাট বসানো ঠিক নয় দাবী করে বলেন, প্রতি বছর ভাঙ্গুড়া পৌরসভা এখানে হাট বসায়। এতে আমাদের করার কিছু থাকেনা। এ ছাড়া হাট কর্তৃপক্ষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোকে কোন অর্থ সহায়তাও করে না। প্রভাবশালী , প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও কতিপয় ইজারাদারের যোগসাজশে এই কাজ করা হয়েছে। এখান থেকে পশু ক্রয়-বিক্রয়ের উত্তোলিত (খাজনার) অর্থ ভাগ বাটোয়ারা করে নেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এতে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে পাঠদানসহ চলাচলের বিঘœ ঘটেছে। এ নিয়ে ইজারাদারের সাথে গতকাল রবিবার শিক্ষার্থীদের কথা কাটাকাটি হয় । উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ