Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক

এ. কে. এম. ফজলুর রহমান মুন্শী | প্রকাশের সময় : ১৩ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০১ এএম

হজ্জ ইসলামী ইবাদতের চতুর্থ স্তম্ভ
কুরআনুল কারীমে মহান রাব্বুল আলামীন হজ্জ ফরজ হওয়ার ঘোষণা এভাবে প্রদান করেছেন। ইরশাদ হয়েছে : আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য মানুষের কর্তব্য হচ্ছে আল্লাহর ঘরের হজ্জ করা সেই লোকের, যার সে পর্যন্ত যাতায়াতের সামর্থ্য আছে। (আল ইমরান : আয়াত ৯৭)। এই আয়াতের মর্মের আলোকে বোঝা যায় যে, আল্লাহর ঘর পর্যন্ত যাতায়াতের যাবতীয় ব্যয়, সুযোগ-সুবিধা ও শক্তি সামর্থ্যরে অধিকারী প্রত্যেক ব্যক্তির ওপর হজ্জ করা ফরজ। তারপর আল্লাহপাক হিজরি ষষ্ঠসালে হজ্জ ফরজ হওয়ার চূড়ান্ত নির্দেশ প্রদান করেন। ইরশাদ হয়েছে : তোমরা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য হজ্জ ও উমরা সম্পূর্ণরূপে আদায় করো। (সূরা বাকারাহ : আয়াত ১৯৬)।
হজ্জের ফজিলত সম্পর্কে হযরত আবু হুরায়রা (রা:) হতে বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেছেন : আমি রাসূলুল্লাহ (সা:) কে বলতে শুনেছি : যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য হজ্জ করল এবং এ সময়ের মধ্যে স্ত্রী সম্ভোগ ও কোনোরূপ ফাসেকি কাজ করল না, সে তার মাতা কর্তৃক ভ‚মিষ্ঠ হওয়ার দিনের মতোই হয়ে গেল।” (সহিহ বুখারী)। এ পর্যায়ে অবশ্যই অনুধাবন করা দরকার যে, হজ্জ শব্দের আভিধানিক ও ব্যবহারিক অর্থ কি? এ প্রসঙ্গে অভিধানবিদ খলিল বলেছেন : “হজ্জ শব্দের অর্থ কোনো বিষয়ের বা কাজের ইচ্ছা বা দৃঢ় সংকল্প গ্রহণ করা এবং কোনো মহৎ বিরাট কাজের বারবার সংকল্প ও ইচ্ছা গ্রহণ করা।” আর আল্লামা আজহারী বলেছেন : “হজ্জ অর্থ কোনো স্থানে একবারের পর দ্বিতীয়বার আসা। এ কারণেই মক্কা গমনকে আল্লাহর ঘরের হজ্জ বলা হয়। কেননা, জনগণ প্রত্যেক বছর আল্লাহর ঘর জিয়ারতের জন্য আসে।”
বস্তুত : ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায় : আল্লাহর ঘরের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে কতকগুলো বিশেষ ও নির্দিষ্ট কাজ সহকারে মর্যাদাপূর্ণ ঘরের জিয়ারতের সংকল্প করাই হলো হজ্জ। এ প্রসঙ্গে আল্লামা বদরুদ্দীন আইনী (রহ:) বলেছেন : আল্লাহর ঘরের সম্মান ও মহানত্ব প্রকাশের উদ্দেশ্যে উহার জিয়ারতের সংকল্প করাই হলো হজ্জ। এ প্রসঙ্গে আল্লামা কিরমানীর বক্তব্য খুবই উপযোগী। তিনি বলেছেন : কাবাঘরের অনুষ্ঠানাদি পালন ও আরাফাতের ময়দানে অবস্থানের উদ্দেশ্যে তথায় গমন করাই হলো হজ্জ।
মহান রাব্বুল আলামীন কুরআনুল কারীমে সুষ্পষ্টভাবে ঘোষণা করেছেন যে, “হজ্জ আদায়কালে স্ত্রী সম্ভোগ, ফাসেকি ও গোনাহের কাজ এবং ঝগড়া বিবাদের কোনোই অবকাশ নেই। (সূরা বাক্বারাহ : আয়াত ১৯৭)। এ সকল আবিলতা হতে বিমুক্ত হয়ে যে ব্যক্তি হজ্জ ক্রিয়া সম্পন্ন করতে সক্ষম হবে, সে সদ্যজাত শিশুর মতোই নিষ্পাপ হয়ে যাবে। এর কোনো ব্যতিক্রম হবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর