Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

গজনির লড়াই থামেনি, কাবুলে গোয়েন্দা দফতরে হামলা

গুরুত্বপূর্ণ সেনাঘাঁটি ও মহাসড়ক তালেবানদের দখলে

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০৭ এএম

আফগানিস্তানের ফারিয়াব প্রদেশের ঘোরমাচ জেলায় একটি গুরুত্বপূর্ণ সেনাঘাঁটি দখল করে নিয়েছে তালেবান বাহিনী। তারা ১৭ সরকারি সৈন্যকে হত্যা ও ৪০ জনকে আটক করে বলেও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন। অপরদিকে গজনিতে লড়াই চলছে বলে সংবাদ মাধ্যম খবর দিয়েছে। প্রাদেশিক পরিষদের প্রধান তাহির রেহমানি জানান যে ঘাঁটির সেনারা কাবুলের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছিলো। কিন্তু কর্তৃপক্ষ গজনিকে নিয়েই ব্যস্ত। তিন দিন ধরে গজনিতে তালেবান হামলায় শতাধিক সরকারি সেনা ও ২০ জনের মতো বেসামরিক লোক নিহত হয়। আফগান বাহিনী প্রাদেশিক রাজধানীর কেন্দ্রস্থল পুনরুদ্ধারের দাবি করলেও লড়াই এখনো চলছে। কাবুল ও দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর কান্দাহারের মধ্যে সংযোগ স্থাপনকারী মহাসড়ক গজনির মধ্য দিয়ে গিয়েছে। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে এই শহর কাবুল ও বিদ্রোহীদের মজবুত ঘাঁটি দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যে সংযোগ রক্ষা করে। তালেবানরা শহরের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে বলা সরকারের তরফে দাবি করা হচ্ছে। তবে বিভিন্নস্থানে তালেবান যোদ্ধাদের সঙ্গে যুদ্ধ চলছে এবং নগরীর চারপাশে গ্রামগুলো বিদ্রোহী যোদ্ধায় ভরে গেছে। ২০১৬ সালে কন্দুজ শহরের পর তালেবান বাহিনী বড় কোন জেলা শহর দখল করতে পারেনি। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় দর কষাকষির জন্য সুবিধাজনক অবস্থানে থাকতে তালেবানরা সর্বশেষ এই অভিযান চালিয়েছে। অপর এক খবরে বলা হয়, আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে একটি গোয়েন্দা সংস্থার দফতরে কয়েকজন বন্দুকধারী হামলা চালিয়েছে। তবে এখনও হতাহতের ব্যাপারে কিছু নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়। একদিন আগেই শহরটির একটি কোচিং সেন্টারের সামনে বোমা হামলায় ৪৮ জন নিহত হয়েছিলেন। আহত হন আরও ৬৭ জন। হতাহতদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ। তবে বৃহস্পতিবার সকালের হামলায় এখনও হতাহতের সংখ্যা জানা যায়নি। স্থানীয় সময় সকাল সোয়া ১০টার সময় শহরের কালা-ই-ওয়াজির এলাকায় হামলা চালায় বন্দুকধারীরা। কাবুল পুলিশের মুখপাত্র হাশমত স্তানিকজাই বলেন, আমরা এখন ভবনটিতে আটকে পড়াদের উদ্ধারের চেষ্টা করছি। তিনি বলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা এলাকাটি ঘিরে ফেলেছে। বন্দুকধারীরা ওই সেন্টারের বিপরীত পাশ থেকে গুলি চালাচ্ছিলো। এএফপি, সাউথ এশিয়ান মনিটর।



 

Show all comments
  • ইবনে আব্দিুল বারী ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:৪৯ পিএম says : 0
    আমেরিকার ভন্ডামী তালেবানের সাথে কাজে আসবে না।
    Total Reply(0) Reply
  • আবু নোমান ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:৫৭ পিএম says : 1
    মধ্যপ্রাচ্য থেকে আমেরিকা সরে গেলেই শান্তি ফিরে আসবে
    Total Reply(1) Reply
    • মারুফ ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:৫৮ পিএম says : 0
      ঠিক বলেছেন। যত অশান্তির মুল কারণ তারা
  • নাবিলা ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:৫৮ পিএম says : 0
    এই যুদ্ধের একটা শেষ হওয়া দরকার।
    Total Reply(0) Reply
  • শরৗফ ২৩ আগস্ট, ২০১৮, ১০:১৯ পিএম says : 0
    সনএাসৗ রাষ্ট্র আমেরিকা চাছেচ না এই যুদ্ধ শেষ হোক. যুদ্ধ শেষ হলে তারা আর আফগানিস্তানে ঘাঁটি গেড়ে থাকতে পারবে না তাই তারা ঊলট আফগান সৈন্যদের কৌশলে হত্যা করছে আর বলছে ভুল বশত বোমা হামলা করা হয়েছে. তাই এই যুদ্ধ পুরোপুরি বন্ধ করে শান্তি ফিরিয়ে আনতে হলে আমেরিকা কে বাদ দিয়ে ইরান পাকিস্তান ও রাশিয়া নিয়ে একটি জোট গঠন করে তালেবান ও আফগান সরকারের ভিতরে একটি সমঝোতায় আসতে হবে তবেই যুদ্ধ বন্ধ হবে এবং আফগানিস্তানে শান্তি ফিরে আসবে. পৃথিবীর কোন দেশ আর আমেরিকা কে বিশ্বাস করে না এবং সেই অথে তালেবান ও আমেরিকা কে বিশ্বাস করে না তাদের বহুমুখী আচরণের জন্য.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ