Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫, ৮ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

২০১৭-১৮ অর্থবছর

রফতানিতে পিছিয়ে যেসব খাত

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০৬ এএম

রফতানি আয়ের দিক থেকে গত অর্থবছরের তুলনায় কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ খাত পিছিয়ে পড়েছে এবার। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে শক্তিশালী ভ‚মিকা রাখে এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে-চামড়া-চামড়াজাত পণ্য, হিমায়িত ও জীবন্ত মাছ, প্লাস্টিক-মেলামাইন দ্রব্যাদি ও প্রকৌশল দ্রব্যাদি।
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো সূত্রে এই তথ্য পাওয়া গেছে।
প্রতিবছরই দেশের মোট রফতানি আয়ে চামড়া-চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা খাত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। তবে ২০১৭-১৮ অর্থ-বছরে এখাত থেকে রফতানি আয় ১০৮৫.৫১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা বিগত বছরে একই সময়ের ১২৩৪.০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের তুলনায় ১২.০৩ শতাংশ কম। তবুও আলোচ্য অর্থবছরে মোট রফতানিতে এ খাতের অবদান ২.৯৬ শতাংশ।
পূর্বের তুলনায় মাছ রফতানিতে সবল হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের মৎস চাষীরা। তবে আগের অর্থবছরের তুলনায় সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে কিছুটা কমে এসেছে এ খাতের রপ্তানি আয়।
হিমায়িত ও জীবন্ত মাছ খাতে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রফতানি আয় ৫০৮.৪৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা বিগত বছরে একই সময়ের ৫২৬.৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের তুলনায় ৩.৪২ শতাংশ কম।
এর মধ্যে ক্রাসটাসিনস (কঠিন আবরণযুক্ত জলজ প্রাণী) খাতে বিগত অর্থ-বছরের রফতানি আয় ৪৬৪.৩২ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের তুলনায় ৮.২৩ শতাংশ হ্রাস পেয়ে বিবেচ্য সময়ে এ পণ্যটির রফতানি আয় দাঁড়িয়েছে ৪২৬.০৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
উক্ত সময়ের মোট রপ্তানিতে হিমায়িত ও জীবন্ত মাছ খাতের অবদান ১.৩৯ শতাংশ।
প্লাস্টিকের ব্যবহার বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে রফতানিও বৃদ্ধি পেয়েছে এদেশ থেকে। কিন্তু গত অর্থবছরে খুব একটা ভালো আয় করতে পারেনি এই খাত।
প্লাস্টিক ও মেলামাইন দ্রব্যাদি খাতে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রপ্তানি আয় হয়েছে ৯৮.৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিগত বছরে একই সময়ের ১১৬.৯৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় অপেক্ষা ১৫.৭৯ শতাংশ কম।
প্রকৌশল দ্রব্যাদি খাতে ২০১৭-১৮ অর্থ-বছরে রফতানি আয় হয়েছে আগের বছেরের তুলনায় প্রায় অর্ধেক। এবছরে প্রকৌশল দ্রব্যাদি খাত থেকে আয় হয়েছে ৩৫৫.৯৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা বিগত বছরে একই সময়ের ৬৮৮.৮৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় অপেক্ষা ৪৮.৩২ শতাংশ কম।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ