Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫, ৯ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

শ্রীপুরে মরুর প্রাণী স্বপ্ন জাগাচ্ছে

শ্রীপুর (গাজীপুর) থেকে এম এ মতিন : | প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০৬ এএম

সিকিউরিটি প্রতিষ্ঠানের মালিক জামাল উদ্দিন আহমেদ এর ছোটকাল থেকেই শখ ছিল দেশীয় আবহাওয়ায় আরবের মরু অঞ্চলের বিভিন্ন প্রাণি পালনের। কিন্তু এটা ছিল অনেকটা দুঃস্বপ্নের মতো। ২০১৪ সালে মাত্র ২৬টি মরুর দেশের প্রাণি নিয়ে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের বরকুল গ্রামের ৩ বিঘা জমির উপর বহুতল ভবন নির্মাণ করে সেভ মিট নামের একটি খামার চালু করেন। শুরুতে ২৬টি প্রাণির মধ্যে ২০টি মারা যায়।
তবে তিনি দমে যাননি, যেখানেই শেষ, সেখান থেকেই শুরু মন্ত্রকে নিজের মনের সাথে বেঁধে চালিয়েছেন সাধনা, অনেকটা অসাধ্যকে সাধন করে এখন তার মুখে ফুটেছে হাসির ঝলক। সেইসাথে আমাদের দেশীয় আবহাওয়ায় মরুর বিভিন্ন জাতের প্রাণি পালনের অপার সম্ভাবনার জানান দিচ্ছেন তিনি।বর্তমানে তাঁর খামারে ৩৫০টি দুম্বা, গাড়ল ও বিভিন্ন উন্নত প্রজাতির ছাগল রয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী বছরেই তাঁর খামার থেকে মরুর দুম্বা, গাড়লসহ বিভিন্ন জাতের প্রাণি বিক্রি করা সম্ভব হবে।
জামাল উদ্দিন আহমেদের খামারে প্রতিনিয়ত কাজ করেন ৭ জন শ্রমিক। এসব প্রাণির প্রাকৃতিক খাবার ঘাসের জন্য তিনি লীজ নিয়েছেন আশেপাশের কৃষকের কয়েক একর জমি। জমি থেকে উৎপাদিত ঘাসের সাথে সাথে খড়, ভূসিও রয়েছে খাদ্যের তালিকায়। নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার সাথে।
জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, তাঁর এ উদ্যোগকে প্রথমে কেউ ভালোভাবে নেয়নি, সবার কাছে ছিল এটা এক প্রকার এক পাগলামী, কিন্তু তাঁর নিজের প্রতি অবিচল আস্থা থাকায় তিনি লক্ষ্যচ্যুত হননি এটাই ছিল তার প্রথম সফলতা। তিনি আরো জানান, আমাদের দেশীয় আবহাওয়ায় এই প্রাণিগুলোর নিয়মিত বাচ্চাদানসহ স্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটে, সরকারি-বেসরকারি পৃষ্টপোষকতা পেলে অনেকেই আগ্রহী হবে। যা দেশের মাংসের চাহিদা পূরণ করে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রেও ভূমিকা রাখতে পারবে।
এ বিষয়ে শ্রীপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আব্দুল জলিল জানান, আমরা সেইফ মিট খামারের লোকজনদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের এসব প্রাণিগুলোর খাবার ও স্বাস্থ্যগত ব্যবস্থার নজরদারী করে থাকি। অল্পকয়েক বছরেই এই মরু অঞ্চলের প্রাণিগুলো পালনে ব্যাপক সফলতা এসেছে। দেশীয় আবহাওয়ায় এসব প্রাণি পালনের অপার সম্ভাবনা রয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ