Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫, ১২ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

দেশের মানুষ ফুঁসছে জাগপার আলোচনায় নজরুল ইসলাম

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

সরকার দুর্নীতি, অন্যায়, অত্যাচার, জুলুম-নির্যাতনের বিরুদ্ধে দেশের মানুষ ফুঁসছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, তারা পরিবর্তনের একটা সুযোগ চায়। ভোটের অধিকার পেলে, ভোট দেয়ার সুযোগ পেলে তারা পরিবর্তন আনবেন। গতকাল (বৃহস্পতিবার) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) আয়োজিত খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। 

নজরুল ইসলাম বলেন, অনেকে আমার কাছে প্রশ্ন করেন আপনারা নির্বাচনে যাবেন নাকি? আমরা যদি নির্বাচনে না-ই যেতে চাই তাহলে নিরপেক্ষ নির্বাচন কেন চাচ্ছি। নির্বাচন কমিশনের পুনর্গঠন কেন চাচ্ছি। নির্বাচনের সময় সেনা মোতায়েনই বা কেন চাচ্ছি। নির্বাচনে যাব বলেই তো এসব চাই। তবে এই সরকারের কোনো প্রহসনের নির্বাচনে বিএনপি যাবে না। তিনি বলেন, আমরা নির্বাচনে যেতে চাই। তবে এই সরকারের অধিনে নির্বাচনের নামে সিটি করপোরেশনের মতো কোনো প্রহসনে যেতে চাই না। কারণ নির্বাচনে যদি মানুষ ভোট দেয়ার সুযোগ না পায় তাহলে জনগণ যে পরিবর্তন চান সেটা তারা করতে পারবেন না।
বিএনপির এই নেতা বলেন, আমরা আগামী নির্বাচনে যাব। তার আগে ইনশাআল্লাহ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন। তাকে নিয়েই নির্বাচনে যাব। কিন্তু তার মুক্তির জন্য আমাদের সবাইকে রাজপথে কঠোর আন্দোলন করতে হবে।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারি হল। তার তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ না করে অর্থমন্ত্রী বললেন, এটা প্রকাশ করা যাবে না, কারণ অনেক গুরুত্বপ‚র্ণ লোকের নাম আছে। এর পর আমার ব্যাপারে বলা হল সিঙ্গাপুরে নাকি আমার একটি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট আছে। আমি বললাম থাকতেও পারে। তবে যিনি বলেছেন তিনি ওই অ্যাপার্টমেন্টের ঠিকানা আনুক। আমি তাকে মাত্র ২৫ লাখ টাকার বিনিময়ে দলিল করে দেব। আমি অনেক সমস্যায় আছি। টাকার দরকার। আমাদের দলের নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের নামে বলা হল, তিনি এক মাসে ২০ কোটির উপরে লেনদেন করেছেন ডাচ বাংলা ব্যাংকের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বললেন- আমি, আমার ছেলে, মেয়ে বা পরিবারের কোনো সদস্যের ডাচ বাংলা ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট নেই। আগেও কখনো ছিল না। এর পর এসব নিয়ে আর কোন কথা বলেন না। তিনি বলেন, এসব কথার অভিযোগের স‚ত্র কি? গোয়েন্দা বাহিনীর তথ্য। গোয়েন্দা বাহিনী মানে ইন্টেলিজেন্স বাহিনী। কিন্তু এরা কেমন ইন্টেলিজেন্স। এরা হল সরকারি দালাল। সরকার কিছু দালালকে দিয়ে এসব বলার জন্য দোকান খুলছে। তারা বসে বসে এসব উদ্ভট তথ্য বানায়। কিন্তু এসব করে পার পাওয়া যায় না। আইয়‚ব খানকে উন্নয়নের উৎসব পালন করতে দেখেছি। আবার কয়দিন পরে গর্তে পড়তেও দেখেছি।
জাগপা সহ-সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, এনপিপির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ এর মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুইয়া প্রমুখ।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ