Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

বিশ্বময় ইসলামের জাগরণ - মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বনবী (সা.)

প্রকাশের সময় : ২১ এপ্রিল, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মুহাম্মদ মনজুর হোসেন খান
(পূর্ব প্রকাশিতের পর)
মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবন দর্শনে সমাজে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে প্রতিটি ব্যক্তিকে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার অধিকার প্রদান করা হয়েছে। ইসলামে বিবাহ সমভাবে একটি অধিকার ও ধর্মীয় দায়িত্ব। রাসূল (সা.) বলেছেÑ ‘বিবাহ আমার সুন্নত, যে আমার সুন্নতের প্রতি অনাসক্ত সে আমার আদর্শভুক্ত নয় কৌমার্যব্রতকে প্রত্যাখ্যান করে তিনি বলেছেন : ‘ইসলামে সন্ন্যাসবাদ ও বৈরাগ্য প্রথার অনুমোদন নেই। প্রকৃতপক্ষে ইসলামে ‘বিবাহ’ কেবল জৈবিকা চাহিদা পূরণের পন্থাই নয় বরং পারস্পরিক ভালবাসা, সমঝোতা, সমবেদনা ও নির্ভরশীলতার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত একটি সামাজিক প্রতিষ্ঠান। রাসূল (সা.) প্রবর্তিত বিবাহব্যবস্থা এমন একটি সামাজিক চুক্তি যাতে নারী ও পুরুষ উভয়ের সম্মত বা অসম্মত হবার সমান অধিকার স্বীকৃত। তালাক বা বিবাহ বিচ্ছেদের ব্যাপারেও ইসলামে নারী ও পুরুষকে সমান অধিকার প্রদান করা হয়েছে। বিবাহের পাশাপাশি পারিবারিক জীবনকে ইসলামে অত্যন্ত গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যেহেতু স্বামী-স্ত্রীই হল পরিবারের মূল ভিত্তি এবং স্বামী-স্ত্রীর মধ্যকার সম্পর্কের উপরই প্রাথমিকভাবে পারিবারিক জীবনের শান্তি ও সুখ নির্ভরশীল তাই পারিবারিক জীবনে স্বামী-স্ত্রী সম্পর্ক কেমন হবে এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়ে কুরআনে ঘোষণা করা হয়েছেÑ ‘তাঁরা (স্ত্রীগণ) তোমাদের (স্বামীদের) ভূষণ আর তোমরা তাদের ভূষণ।
রাসূল (সা.) প্রবর্তিত ইসলামী অর্থব্যবস্থা সমাজবাদ বা পুঁজিবাদ কোনটিকেই সমর্থন করে না এখানে সীমিত পরিসরে ব্যক্তির জন্য সম্পত্তির মালিকানা স্বীকৃত। তবে তা এতটাই নিয়ন্ত্রিত যে, ব্যক্তি এখানে সম্পদ উপার্জনের লাগামহীন স্বাধীনতা লাভ করে না। ইসলামী সমাজে সকল সম্পদের প্রকৃত মালিকানা আল্লাহর। মানুষ দায়িত্বপ্রাপ্ত (ঞৎঁংঃবব) হিসাবে এর অর্জন, ভোগ ও বণ্টনের অধিকার লাভ করে। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে- ‘তাদের সম্পদে প্রার্থী ও বঞ্চিতদের অধিকার রয়েছে’। দান-খয়রাত, সদকা, যাকাত, ফিতরা প্রভৃতির মাধ্যমে বর্ধিত সম্পদের বিলি-বণ্টন করে একটি ভারসাম্যপূর্ণ অর্থনৈতিক অবস্থার কথা কেবল বলাই যায়নি, রাসূল (সা.) তাঁর জীবনে কার্যকরভাবে তা প্রতিষ্ঠা করেছেন। ইসলামে সমাজে পুঁজিপতি ও শ্রমিকের সম্পর্ক শোষণ বা সংঘর্ষনির্ভর নয় বরং পারস্পরিক কল্যাণমূলক ও ভ্রাতৃত্বসূলভ। রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘যে সত্তার হাতে আমার জীবন তার শপথ করে বলছি, কোন ব্যক্তি ততক্ষণ পর্যন্ত মুমিন হতে পারে না, যে পর্যন্ত না সে নিজের জন্য যা পছন্দ করে তা অন্য ভাইয়ের জন্য তা পছন্দ করে’। দাসত্বের পরাধীনতা মানবেতিহাসের এক চরম অমানবিক ও অবমাননাকর অধ্যায়। এর প্রচলন ছিল বিশ্বব্যাপী এবং ১৮৯০ সালে ব্রাসেলসে দাস-ব্যবসা নিষিদ্ধকরণ কনফারেন্সের আগ পর্যন্ত বিশ্বের কোথাও এ ব্যবস্থার বিরুদ্ধাচরণ করা হয়নি। ‘মানব প্রকৃতি অপরিবর্তনীয়’Ñ এ দার্শনিক দৃষ্টিভঙ্গির ভিত্তিতে প্লেটো ও এরিস্টোটল থেকে শুরু করে আঠারো শতকের অধিকাংশ দার্শনিক দাস প্রথাকে সমর্থন করেছেন। দাস প্রথা সম্পর্কে এরিস্টোটলের মতামত উল্লেখ করে অনফঁষষধয কধহহড়ঁস বলেছেন- গ্রীক, রোমান, পারসিক প্রভৃতি প্রাচীন সভ্যতাসমূহে ইহুদী, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ ও সনাতন হিন্দু ধর্মে এমনকি আধুনিক ইউরোপ ও আমেরিকাতেও প্রথমদিকে দাস প্রথা স্বীকৃত প্রথার মর্যাদা পায়। এ থেকে অনুমিত হয় যে, এ প্রথাটির নৈতিকতা সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির প্রাথমিক কৃতিত্ব মহানবী (সা.) এরই প্রাপ্য। মানবতার মুক্তিদূত মুহাম্মদ (সা.) সেই সপ্তম শতাব্দীতেই এ প্রথার বিরোধিতা ও এর বিলুপ্তির প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছেন। তাঁর দর্শন ছিল, সমগ্র মানব জাতি একজন নারী ও পুরুষ থেকে উদ্ভূত সুতরাং জন্মগতভাবে সকল মানুষ সমান ও স্বাধীন। তিনিই সর্বপ্রথম দাসমুক্ত করেন এবং দাসমুক্ত করাকে বিশেষ সওয়াবের কাজ হিসেবে আখ্যায়িত করলে সাহাবীদের মাঝে দাস মুক্তির হিড়িক পড়ে যায়। স্বয়ং নবী (সা.) ৬৭ জন, আবু বকর (রা.) অসংখ্য, ওমর (রা.) এক হাজার, আবদুর রহমান ইবনে আওফ (রা.) ত্রিশ হাজার দাস-দাসীকে মুক্তি দান করেন। মানুষে মানুষে এই সমতা বিধানের মহত্তম আদর্শ দেখে মুগ্ধ হয়ে উৎ. অযসধফ এড়ষধিংয তাঁর ঞযব জবষরমরড়হ ড়ভ ওংষধস গ্রন্থে বলেন, ঊয়ঁধষরঃু ড়ভ ৎরমযঃ ধিং ঃযব ফরংঃরহমঁরংযরহম ভবধঃঁৎব ড়ভ ঃযব ওংষধসরপ ঈড়সসড়হবিধষঃয. অ পড়হাবৎঃ ভৎড়স ধহ যঁসনষব পষধহ বহলড়ুবফ ঃযব ংধসব ৎরমযঃং ধহফ ঢ়ৎরারষবমবং ধং ড়হব যিড়ফ নবষড়হমবফ ঃড় ঃযব হড়নষবংঃ কড়ৎধংরংয.
বর্তমানে দাসত্ব তথা দাস প্রথা উচ্ছেদ করার কথা সভ্য সমাজ মুখে বললেও এটিকে তারা বাস্তবে জিইয়ে রেখেছে। আমিরিকা তার সভ্যতা বিকাশের বিভিন্ন পর্যায়ে, বহুতল বিশিষ্ট অট্টালিকা, সুরমা জনপদ, প্রশস্ত সড়ক, বিশালাকার শিল্প-কারখানা ইত্যাদি নির্মাণে আফ্রিকা থেকে বহুসংখ্যক দাস আমদানি করে। সে প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে এবং কিছুটা ভিন্ন আকারে। ১৭৭৬ সনের ৪ জুলাই আমেরিকার স্বাধীনতা ঘোষণার কথা বলতে গিয়ে ঈষধঁফব গ. খরমযঃভড়ড়ফ বলেন- ইষধপশ ৎবসধরহবফ ংষধাবং ঁহঃরষ ধনড়ঁঃ ৮০ ুবধৎং ষধঃবৎ, ড়িসবহ ফরফ হড়ঃ ৎবপরবাব ঃযব ৎরমযঃ ঃড় াড়ঃব ঁহরঃষ ১১২ ুবধৎং ষধঃবৎ ধহফ ঃযব ড়িৎশরহম পষধংং ফরফ হড়ঃ মবঃ ঃযব ষবমধষ ৎরমযঃ ঃড় ড়ৎমধহরহংব ধহফ পড়ষষবপঃরাবষু নধৎমধরহ ১৫০ ুবধৎং ষধঃবৎ. প্রখ্যাত প্রাচ্যবিদ ইড়ংড়িৎঃয তাঁর গড়যধসসবফ ধহফ গড়যধসধফধহরংস গ্রন্থে বলেন- ওঃ ৎবপড়মহরংবফ রহফরারফঁধষ ধহফ ঢ়ঁনষরপ ষরনবৎঃু, ংবপঁৎবফ ঃযব ঢ়বৎংড়হ ধহফ ঢ়ৎড়ঢ়বৎঃু ড়ভ ঃযব ংঁনলবপঃং ধহফ ঢ়ড়ংঃবৎবফ ঃযব মৎড়ঃিয ড়ভ ধষষ পরারপ ারৎঃঁবং. ওঃ পড়সসঁহরপধঃবফ ধষষ ঃযব ঢ়ৎরারষবমবং ড়ভ ঃযব পড়হয়ঁবৎরহম পষধংং ঃড় ঃযড়ংব ড়ভ ঃযব পড়হয়ঁবৎবফ যিড় পড়হভড়ৎসবফ ড়ভ রঃং ৎবষরমরড়হ, ধহফ ধষষ ঃযব ঢ়ৎড়ঃবপঃরড়হ ড়ভ পরঃরুবহংযরঢ় ঃড় ঃযড়ংব যিড় ফরফ হড়ঃ, ওঃ ঢ়ঁঃ ধহবহফ ঃড় ড়ষফ পঁংঃড়সং ঃযধঃ ৎিবৎব ড়ভ রসসড়ৎধষ ধহফ পৎরসরহধষ পযধৎপঃবৎ. ওঃ ধনড়ষরংযবফ ঃযব রহযঁসধহ পড়ংঃড়স ড়ভ নঁৎুরহয ঃযব রহভধহঃ ফধঁমযঃবৎং ধষরাব, ধহফ ঃড়ড়শ বভভবপঃরাব সবধংঁৎবং ভড়ৎ ঃযব ংঁঢ়ঢ়ৎবংংরড়হ ড়ভ ঃযব ংধষাব- ঃৎধভভরপ.
মুহাম্মদ (সা.) প্রবর্তিত রাষ্ট্রব্যবস্থায় রাষ্ট্রের প্রতিটি নাগরিকের রাষ্ট্রের যে কোন স্থানে স্বাধীনভাবে চলাচল ও বসবাসের অধিকার প্রদান করে। একইভাবে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রের বাইরে যাওয়া ও অন্য রাষ্ট্রে বসবাসের অধিকারও প্রতিটি ব্যক্তিকে দেয়া হয়েছিল। তাঁর রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রকৃতপক্ষে একটি ‘বিশ্ব রাষ্ট্রব্যবস্থা’ ধারণায় বিশ্বাসী ছিল। রাসূল (সা.) এর রাষ্ট্র দর্শন অনুযায়ী সমগ্র বিশ্ব আল্লাহর রাজ্যস্বরূপ- যা তিনি সকল মানুষের চলাচল ও বসবাসের জন্যে অবারিত করে দিয়েছেন।
তিনি বলেন, ‘সমগ্র দেশ আল্লাহর আর মানুষ আল্লাহর বান্দা, তুমি যেখানে মঙ্গলজনক মনে কর বসবাস করে। এখানে উল্লেখ্য যে, প্রথম বিশ্বযুদ্ধের অব্যবহিত পূর্ব পর্যন্ত মানুষের জন্য বিশ্বের যে কোন স্থানে স্বাধীনভাবে চলালচল ও বসবাসের সর্বজনীন স্বাধীনতা ছিল। (চলবে)



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর