Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

রোনালদোয় শুরু ইতালির নতুন অধ্যায়

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০২ এএম

নিশ্চিতভাবেই অন্যবারের চেয়ে এবার ইতালিয়ান সেরি আ নিয়ে ফুটবল প্রেমীদের আগ্রহ একটু বেশি থাকবে। বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর জুভেন্টাসে অন্তর্ভুক্তিই যে এর একমাত্র কারণ তা না বললেও চলে। সাদা-কালো জার্সিতে রোনালদোকে দেখার অপেক্ষায় বিশ্বসাসী। আজ ফুরোচ্ছে সেই অপেক্ষা। চিয়েভো-জুভেন্টাস ম্যাচ দিয়ে আজ মাঠে গড়াচ্ছে সেরি আ লিগ। তুরিনের দলের হয়ে আজ প্রথমবারের মত দেখা যাবে পর্তুগিজ তারকাকে।
এমনিতেই সেরি আ ইদানিং এক ঘোড়ার দৌড়ে পরিণত হয়েছে। ২০১৭-১৮ মৌসুমে টানা সপ্তম লিগ শিরোপা জেতে জুভেন্টাস। সেই দলেই এবার রোনালদোর সংযুক্তি প্রতিযোগিতাকে যে আরো একপেশে করে তুলবে এমন শঙ্কা এসে যায়। অনেকে মনে করছেন রোনালদোর হাত ধরেই আবার সোনালী যুগে ফিরবে ইতালিয়ান ফুটবল। ৩৩ বছর বয়সী পাঁচবারের বর্ষসেরা কেবল গত এক দশকের সেরা দুই খেলোয়াড়ের একজনই নন, বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ব্যাক্তিও। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিশ্বজুড়ে তার ৩১৩ মিলিয়ন অনুসারী রয়েছে। তাদের মনোযোগ যে এখন থেকে সেরি আ-র দিকে মোড় নেবে সেকথা না বললেও চলে।
একটা সময় ছিল যখন ইতালিয়ান ফুটবল নিয়েই বিশ্ববাসীর আগ্রহটা ছিল বেশি। ৮০ ও ৯০ দশকের সেই সময়টাতে বিশ্বের সেরা সব খেলোয়াড়দের ঠিকানা ছিল ইতালি। রোনালদোর মত বিশ্ব সেরার হাত ধরে সেই যুগ ফিরে আসবে বলে মনে করেন সাবেক ইতালিয়ান মিডফিল্ডার ও কিংবদন্তি কোচ ফ্যাবিও কাপেলো, ‘অবশেষে আবার বিশ্ব ইতালিয়ান লিগ নিয়ে কথা বলবে।’ পুরোনো দিনকে স্বরণ করে সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ কোচ বলেন, ‘৮০ ও ৯০ দশকে আমরাই শীর্ষে থেকে নেতৃত্ব দিতাম। এরপর আমরা আমাদের পথ হারিয়ে বসি এবং আমরা অবকাঠামো গঠনে যথেষ্ঠ বিনিয়গ করিনি। রোনালদোর হাত ধরে আমরা আবারো মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারি।’
দুই মৌসুম আগে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে লেস্টার সিটির রূপকথার নায়ক আরেক ইতালিয়ান কোচ ক্লাদিও রেনিয়েরির একই আশা, ‘সর্বশেষ ২০০৩ সালে আমাদের দুটি দল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে খেলেছে। আমরা সেই দিনে এখনই ফিরে যেতে পারব না। তবে আমি বলতে পারি চর্মসার দিনগুলো হয়ত ফুরিয়ে আসছে।’
এই আলোচনা অবশ্য গত মাস থেকেই শুরু হয়েছে। ঠিক যেদিন রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে নয় বছরের সম্পর্ক ছেদ করে ৯৯.২ মিলিয়ন পাউন্ডের ট্রান্সফার ফিতে তুরিনের ক্লাবে যোগ দেন রোনালদো। এতে হয়ত জুভেন্টাসের শক্তি বাড়বে। কিন্তু বাকি দলগুলোর কি হাল? রোনালদোকে পেয়ে দলে যে শক্তি বেড়েছে তা স্বীকার করছেন জুভা কোচ মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি, ‘গ্রীস্ম জুড়ে আমরা দলটাকে শক্তিশালী করেছি। তবে আমাদের প্রতিপক্ষরাও বসে নেই। বলছি না গতবারের চেয়ে এবার লিগ আরো কঠিন হবে, তবে প্রতিটা ম্যাচেই আমাদের আলাদা নজর থাকবে।’
পরিবর্তনের আভাস যে বাকি দলগুলোর মধ্যে নেই তা নয়। গত মৌসুম জুভেন্টাসের চেয়ে চার পয়েন্ট পিছিয়ে দুইয়ে থেকে লিগ শেষ করে নাপোলি। নাপোলির ডাগআউটে এবার দেখা যাবে রোনালদোরই সাবেক রিয়াল গুরু কার্লো আনচেলত্তিকে। খেলোয়াড় হিসেবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালিস্ট দলে যোগ হয়েছেন তরুণ নেদারল্যান্ড স্ট্রাইকার জাস্টিন ক্লুইভার্ট, বিশ্বকাপের ক্রোয়েশিয়ার ফাইনালিস্ট দলের মিডফিল্ডার আন্তে করিচ, আর্জেন্টিনার উইঙ্গার হাভিয়ের পাস্তোরে ও ফ্রান্সের বিশ্বকাপজয়ী দলের মিডফিল্ডার স্টিভেন এনজোনজি। প্রথমিকভাবে লিগ জয়ই তাদের মূল লক্ষ্য।
২০১০ সালের ইউরোপ সেরা ইন্টার মিলানও পরিবর্তনের আশায় দলে এনেছে আমুল পরিবর্তন। নতুনভাবে তারা দলে যুক্ত করেছে নেদারল্যান্ডস তরুণ ডিফেন্ডার স্টিফান ডি ভার্জি, বেলজিয়ান মিডফিল্ডার রাদজা নাইনগোলান, ক্রোয়াট ডিফেন্ডার সিমে ভার্সালজোকোকে। পাশাপাশি আক্রমণভাগে যুক্ত হয়েছে সেনেগাল ফরোয়ার্ড কেইটা, আর্জেন্টিনার তরুণ স্ট্রাইকার লাউতারো মার্টিনেজ।
সাতবারের ইউরোপ সেরা এসি মিলানও দিয়েছে পরিবর্তনের আভাস। ক্লাবটির নতুন মালিক এলিয়ট ম্যানেজমেন্ট ৩৪ বিলিয়ন ডলারের মালিক। রিয়াল থেকে রাশিয়া বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় লুকা মড্রিচ পর্যন্ত ভাগিয়ে আনতে চেয়েছে তারা। রিয়ালের পক্ষ থেকে অবশ্য তা নাকোচ করে দেয়া হয়েছে। তবে জুভেন্টাস থেকে সেরি আর গোল মেশিন গঞ্জালো হিগুয়াইনকে এনেছে তারা। গত কয়েক মৌসুম ধরে সেরি আ-তে আলো ছড়ানো তরুণ ইতালিয়ান ডিফেন্ডার মাতিয়া কালদারার সংযুক্তিও পরিবর্তনের আভাস দেয়।
পরিবর্তনের আভাস আছে সেরি আ-র নবীনতম দল ফিওরেন্তিনার মাঝেও। সেই পরিবর্তন লিগে এবং ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় কতটুকু প্রভাব ফেলবে সেটাই এখন দেখার।
তবে একটা হাহাকার হয়ত থাকবে ইতালিয়ান ফুটবলে- জিয়ালুইজি বুফন। ১৭ বছর ধরে যিনি আগলে রেখেছিলেন জভেন্টাসের গোলপোস্ট। ৪০ বছর বয়সীকে আর দেখা যাবে না সাদা-কালো ডোরাকাটা সার্জিতে। ৪০ বছর বয়সী যে এখন পিএসজির।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর