Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৭ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ঝালকাঠিতে অবৈধ গরুর হাটের ছড়াছড়ি

| প্রকাশের সময় : ১৯ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০১ এএম

মু.আব্দুর রশীদ, ঝালকাঠি থেকে : ঝালকাঠিতে স্কুল মাঠ, খেলার মাঠ ও আঞ্চলিক মহাসড়ক দখল করে কোরবানীর গরুর হাট বসানো হয়েছে। বরিশাল-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার বাঘরী হাটে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আঞ্চলিক মহাসড়কের ওপরে অবৈধ গরুর হাট বসেছে। শুধু সড়কেই নয়, পাশের বাঘরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করেও গরুর হাটের কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। ফলে এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করা যানবাহন ও যাত্রীদের ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। জানা যায়, আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষের ভোগান্তি কমাতে মহাসড়কে গরুর হাট না বসাতে প্রশাসনের নির্দেশনা থাকলেও তা মানছেন না বাঘরী হাট কর্তৃপক্ষ। বাঘরী বাজারের মধ্যে হাটের নির্ধারিত স্থান থাকা সত্বেও আঞ্চলিক মহাসড়কের ওপর গরুর হাট বসিয়েছেন ইজারাদাররা। ফলে বরিশাল-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের এ এলাকায় হাট চলাকালীন যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়া ছোট-বড় দুর্ঘটনার কবলে পড়ছেন পথচারী ও হাটে আসা ক্রেতা-বিক্রেতারা। বাঘরীতে সপ্তাহের রবি ও বৃহস্পতিবার নিয়মিত এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় গরুর হাট বসে। তবে ঈদ উপলক্ষে গত বৃহস্পতিবার থেকে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রতিদিনই গরুর হাটের কার্যক্রম চলবে বলে জানা গেছে। এ ছাড়াও ঝালকাঠি বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন গুরুদম সেতু এলাকায়, নলছিটির শ্রীরামপুর, নলছিটি-মোল্লারহাট সড়কের শিমুলতলা, নলছিটি-বরিশাল সড়কের দপদপিয়া জিরোপয়েন্ট সংলগ্ন এলাকায় বসানো হয়েছে কোরবানীর গরুর হাট। তবে হাটের ইজারাদাররা জানান, কর্তৃপক্ষ উন্মুক্ত ইজারার আহŸান করায় নগদ টাকা পরিশোধ করেই গরুর হাটের ইজারা নেয়া হয়।
বরিশাল-খুলনা রুটের বাস চালক মো. ইব্রাহিম হাওলাদার বলেন, বরিশাল থেকে খুলনা যাওয়ার পথে সড়কে তেমন কোন যানজট না থাকলেও রাজাপুরের বাঘরী হাট এলাকার আধা কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে আধাঘন্টারও বেশি সময় লাগে। ফলে নির্দিষ্ট সময়ে বেকুটিয়া ফেরিতে উঠতে পারছি না। এছাড়া গ্রাম থেকে আনা গরুগুলো বাসের হর্ন শুনলেই আতংকিত হয়ে দিকবিদিক ছোটাছুটি শুরু করে। এতে হাটে আশা ক্রেতা ও পথচারিরা আহত হয়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাঘরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন শিক্ষক বলেন, ঈদের আগে শনি, রবি ও সোমবার বিদ্যালয় খোলা রয়েছে। কিন্তু গরুর হাটের কারনে বিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। বিদ্যালয় মাঠ ও বারান্দায় গরুর গোবরের গন্ধে শিশু শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের পাঠদানে মনযোগ দিতে পাড়ছে না। নলছিটির স্কুল শিক্ষক মাহামুদ হোসেন চৌধুরী বলেন, নির্দিষ্ট স্থানে পশুরহাটের ইজারা দেয়া হলেও শিমুলতলা এলাকায় রাস্তা আটকে গরুর হাট বসানো হয়েছে। অবৈধ এ হাট কেউ ইজারা দেয়নি। স্থানীয় এক ব্যক্তি জোর করে হাট বসিয়েছেন। এতে পথচারী ও যানবাহন চলাচলে দুর্ভোগ হচ্ছে।
রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা বেগম পারুল বলেন, রাজাপুরের বাঘরী বাজারে প্রতি সপ্তাহে দুদিন নিয়মিত পশুহাট বসে। এ হাট ইজারা দেয়া আছে। এখন কোরবানী সামনে রেখে প্রতিদিনই হাট বসানো হচ্ছে। কিন্তু মহাসড়ক ও স্কুল মাঠে কোনভাবেই গরুর হাট বসানো যাবে না। এভাবে কেউ হাট বসালে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ব্যবস্থা নেবো।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ঝালকাঠি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ