Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ০১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণের দায়িত্বে ভারতের শ্যাম বেনেগাল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ আগস্ট, ২০১৮, ১২:০২ এএম

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনীভিত্তিক বাংলা ভাষায় চলচ্চিত্র নির্মাণের দায়িত্ব পাচ্ছেন ভারতের পরিচালক শ্যাম বেনেগাল। গতকাল সোমবার সচিবালয়ে নিজের দপ্তরে তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম সাংবাদিকদের এতথ্য জানান।
তিনি বলেন, এই চলচ্চিত্র নির্মাণে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি বিশেষজ্ঞ টিম থাকবে। এই টিমে চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞ থাকবেন। বঙ্গবন্ধুকে চেনেন-জানেন, তার রাজনৈতিক সহকর্মী ছিলেন এমন একজন থাকবেন এবং ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে চেনেন এমন একজন থাকবেন। চলচ্চিত্র নির্মাতা বা তাদের টিম যে কোনো সাহায্য-সহযোগিতা চাইতে পারবেন। তিনি বলেন, এছাড়া চলচ্চিত্র নির্মাণে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা দিতে বাংলাদেশের পক্ষ থেকেও একজন চলচ্চিত্রকর্মী থাকবেন। বঙ্গবন্ধুর মতো মহান নেতার জীবন নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ অনেক আগেই হওয়া উচিত ছিল। দেরিতে হলেও গত বছরের ৮ এপ্রিল নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুসারে দুই দেশের যৌথ প্রযোজনায় বঙ্গবন্ধুর জীবনীভিত্তিক একটি চলচ্চিত্র ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের উপর একটি প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের চুক্তি হয়। ওই চুক্তির শর্তানুযায়ী একটি জয়েন্ট কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটিতে বাংলাদেশের ১০ ও ভারতের ৯ জন সদস্য রয়েছেন। গত ৯ জুলাই নয়াদিল্লিতে জয়েন্ট কমিটির প্রথম সভা হয়। সেখানে ভারত চলচ্চিত্রটি নির্মাণের জন্য তিনজন পরিচালকের নাম প্রস্তাব করে।
তারানা হালিম বলেন, আমরা মনে করি তিনজনই স্বনামে খ্যাত, তারা প্রতিভাবান। কিন্তু আমরা শ্যাম বেনেগালকে নির্বাচন করেছি। শ্যাম বেনেগালের নাম প্রস্তাবের যৌক্তিকতা তুলে ধরে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, তিনি পুরস্কারের মধ্যে পদ্মশ্রী, পদ্মভূষণ, দাদা সাহেব ফালকে পুরস্কার পেয়েছেন।এছাড়া তিনি নেতাজী সুভাষ বসুর উপর জীবনীভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। চলচ্চিত্রটি আন্তর্জাতিক মানের হবে।এই ছবিটির মানের প্রশ্নে কোনো রকম সমঝোতা করতে রাজি নই আমরা। পরিচালকই কলাকুশলী নির্বাচন করবেন। পরিচালক চলচ্চিত্র নির্মাণে সম্পূর্ণ স্বাধীনতা ভোগ করবেন। দুই দেশের বাইরে থেকেও কলাকুশলী নির্বাচন করতে পারবেন, সেই স্বাধীনতাটা পরিচালকের ওপর থাকবে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের বিষয়েও পরবর্তী মিটিং বাংলাদেশে হওয়ার কথা। সেখানে আমরা বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পরিচালকের নাম প্রস্তাব করব। তারাও (ভারত) হয়তোবা করবেন। সেই মিটিংয়ে আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব। বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে বাংলাদেশে যে কোনো মানসম্মত চলচ্চিত্র নির্মাণে তথ্য মন্ত্রণালয় সকল প্রকার সহযোগিতা দেবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী। সেই সময়টাকে টার্গেট করেই ছবির কাজ শেষ করতে চাই। যেহেতু আমরা মানের ক্ষেত্রে কোনো সমঝোতা করব না, তাই সময়টি হয়তো এর চেয়ে বেশি লেগে যেতে পারে।
তারানা হালিম বলেন, সেই বাজেট ধরে আমাদের এগোতে হবে। চলচ্চিত্রটির খরচ উভয় দেশ বহন করবে। তবে বড় অংশটি বাংলাদেশ সরকার বহন করার প্রস্তাব দিয়েছে। বাংলাদেশ সরকার খরচের ৮০ শতাংশ বহন করতে চায়। ভারত ইতোমধ্যে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিতর্কিত একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছে। তাদের হাতে বঙ্গবন্ধু সুরক্ষিত থাকবে কি না- এ বিষয়ে তারানা হালিম বলেন, এটা আপনাদের নিশ্চিত করে রাখতে পারি- চলচ্চিত্রের যে পান্ডুলিপিটি হবে সেটি বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে দেখিয়ে আমরা কাজ শুরু করতে চাই। বিতর্কের কোনো সুযোগই থাকবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর