Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

শুরু হয়েছে ১৮তম দ্বিবার্ষিক এশিয় চারুকলা প্রদর্শনী

বিনোদন রিপোর্ট: | প্রকাশের সময় : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে ১৮ তম ‘দ্বিবার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী বাংলাদেশ’। সাইত্রিশ বছর ধরে গুরুত্বপূর্ণ এই প্রদর্শনী আয়োজিত হয়ে আসছে। এ প্রদর্শনীকে কেন্দ্র করে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে যেমন শিল্পী প্রতিনিধিরা আসেন তেমনি সারাদেশ থেকে শিল্পীরাও অংশগ্রহণ করে থাকেন। দ্বিবার্ষিক এশীয়ান চারুকলা প্রদর্শনীর সময় সর্বদাই শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে উৎসবের আমেজ বিরাজ করে । সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির চারুকলা বিভাগ এ আয়োজনকে ধারাবাহিকভাবে সামনে এগিয়ে নিয়ে এসেছে। বিগত সাইত্রিশ বছর ধরে এক বছর অন্তর এ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। দীর্ঘ সময়ের আবর্তন ও আয়োজনের উৎকর্ষতায় আমাদের এই দ্বি-বার্ষিক এশীয়ান হয়ে ওঠেছে চারুশিল্পীদের পারস্পরিক মতবিনিময়ের অনন্য এক প্ল্যাটফর্ম। এবার বিশ্বের ৬৮ দেশের চারুশিল্পীরা এ শিল্পযজ্ঞে অংশগ্রহণ করছেস। সৃজনশীল প্রয়াসে তাঁরা কাজ করেছেন নানা মাধ্যমে। সমাজ-পরিপার্শ্বের দৃশ্য, সঙ্গতি-অসঙ্গতি নিয়ে কখনো প্রচলিত প্রকাশরীতিতে, কখনও স্থাপনাচিত্র, কখনওবা ভিডিও আর্টের মাধ্যমে সমকালীন জীবনযাত্রা এবং জটিলতাকে তুলে ধরেছেন। আমাদের দেশের শিল্পীরাও বিশেষ করে তরুণ শিল্পীরা নানা নিরীক্ষায়, উপকরণের বিচিত্র প্রয়োগে, করণ-কৌশলের প্রাচুর্যে প্রদর্শনী হলের স্পেসকে সমৃদ্ধ ও আলোকিত করেছেন। চারুশিল্পীদের মতবিনিময়ের অনন্য পটভূূমি হিসেবে ‘দ্বি-বার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী বাংলাদেশ’ আজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিল্পী ও শিল্প-সমঝদারদের বন্ধুত্বের এক অনুপম সেতুবন্ধরূপে গড়ে ওঠেছে। নানা দেশ ও সংস্কৃতির ভেতর থেকে ওঠে আসা শিল্পী ও শিল্প-সংশ্লিষ্টদের মধ্যে ভাবের এই আদান প্রদানের সুফল দেখা যাচ্ছে, শিল্পকলা-সংক্রান্ত নানা গবেষণায় এবং তাঁদের বৈচিত্র্যেময় সৃজন সমাহারে। এবারের আয়োজনে বিশ্বের প্রায় সকল অঞ্চলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হয়েছে। ২৬৬ জন বিদেশী শিল্পীর মধ্যে ২২৩ জন শিল্পী প্রতিযোগিতায় শিল্পকর্ম জমা দিয়েছেন, ২৯ জন বিদেশী শিল্পী বিশেষ আমন্ত্রণে অংশ নিচ্ছেন এবং ১৪জন পারফরমেন্স আর্টিস্ট এবার তাঁদের শিল্পনৈপুণ্য প্রদর্শন করছেন। এ আয়োজনে অংশগ্রহণ করছেন ১৯৯ জন বাংলাদেশী শিল্পী, তাদের মধ্যে ১০৭ জন শিল্পী প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন, ১৩ জন মাস্টার পেইন্টারের প্রদর্শনী থাকছে, বিশেষ আমন্ত্রণে অংশ নিচ্ছেন ৬৩ জন শিল্পী এবং ১৬ জন দেশীয় পারফর্মেন্স আর্টিস্ট তাদের শিল্পনৈপুণ্য প্রদর্শন করছেন । এই মেগা প্রদর্শনীতে দেশীয় শিল্পীদের ২০৩টি আর্টওয়ার্কের এক বিরাট শিল্পকর্ম পরিবেশিত হচ্ছে। এবারের আয়োজনের মধ্যে থাকছে দেশী-বিদেশী শিল্পীদের মোট ৩৬৮টি পেইন্টিং, প্রিন্ট ও ফটোগ্রাফি; ৩৩টি ভাস্কর্য; ৫২টি ইনস্টলেশন আর্ট এবং ৩০জন পারফর্মেন্স আর্টিস্ট-এর শিল্পনৈপুণ্য প্রদর্শনী। আয়োজনের মধ্যে আরও থাকছে ১২ জন বাংলাদেশী নবীন শিল্পীর অংশগ্রহণে এবং শিল্পী বিশ্বজিৎ গোস্বামীর তত্ত্বাবধানে ‘ইয়াং আর্ট প্রজেক্ট’। দেশী-বিদেশী ৪৬৫ জন শিল্পীর ৫৮৩টি শিল্পকর্মের এ বিশাল শিল্পকর্মে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে আন্তর্জাতিক সেমিনার, পেইন্টিং, ভাস্কর্য, আলোকচিত্র, প্রাচ্যকলা, প্রিন্ট মেকিং, ভিডিও আর্ট, মৃৎশিল্প, পারফর্মেন্স আর্ট, নিউ মিডিয়া এবং স্থাপনা শিল্প । বিশেষ সংযোজন হিসেবে রয়েছে কারুপণ্য মেলা, ফুড কোর্ট, আর্ট ক্যাফে, শিশু কর্ণার, আর্ট ক্যাম্প, পারফর্মেন্স আর্ট ওয়ার্কশপ এবং ভাস্কর্য উদ্যান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।