Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৩ আশ্বিন ১৪২৫, ৭ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

রফতানি আয়ে বাড়ছে ভারতের অংশগ্রহণ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০১ এএম

দেশের মোট রফতানি আয়ে ভারতের অংশগ্রহণ বাড়ছে। এতে সবচেয়ে বড় ভ‚মিকা রাখছে পোশাক খাত। বিশেষ করে দেশটিতে টি-শার্ট, ট্রাউজার ও শার্ট ভারতে রফতানি বাবদ আয় বেড়েছে সবচেয়ে বেশি। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে এ তথ্য পাওয়া গেছে। জানা গেছে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে দেশের মোট রফতানি আয় হয় তিন হাজার ৪৮৪ কোটি ৬৮ লাখ ৪০ হাজার ডলার। ওই অর্থবছরে দেশের মোট রফতানি আয়ে ভারতের অংশ ছিল ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ। অন্যদিকে সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দেশের মোট রফতানি আয় দাঁড়ায় তিন হাজার ৬৬৬ কোটি ৮১ লাখ ৭০ হাজার ডলারে। এ আয়ে ভারতের অংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে দুই দশমিক ৩৮ শতাংশে।
২০১৭-১৮ অর্থবছরে ভারতে বিভিন্ন পণ্য রফতানি বাবদ বাংলাদেশের আয় হয়েছে ৮৭ কোটি ৩২ লাখ ৭০ হাজার ডলার। এ আয়ের এক-তৃতীয়াংশই এসেছে তৈরি পোশাক রফতানি বাবদ। পোশাক পণ্যের মধ্যে দেশটিতে বাংলাদেশ থেকে ওভেন পণ্যই গেছে সবচেয়ে বেশি।
ইপিবির দেশভিত্তিক পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত অর্থবছরে ভারতে রফতানি হওয়া পণ্যের ২৩ শতাংশই ছিল পোশাকের ওভেন পণ্য। ওভেন পণ্য রফতানি বাবদ গত অর্থবছরে আয় হয়েছে ২০ কোটি ৭৬ লাখ ২০ হাজার ডলার। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অবদান ট্রাউজার ও শার্ট পণ্যের।
২০১৭-১৮ অর্থবছরে ভারতে নারী ও পুরুষের ব্যবহারযোগ্য ট্রাউজার রফতানি বাবদ আয় হয়েছে ১১ কোটি ৮৭ লাখ ৬৩ হাজার ৮৯০ ডলার। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে একই পণ্য রফতানি থেকে আয় হয় ৫ কোটি ৫৯ লাখ ৯৭ হাজার ৯৩৬ ডলার। এ হিসাবে শুধু পুরুষ ও নারীদের ওভেন ট্রাউজার রফতানি বাবদ ভারত থেকে আয় বেড়েছে ১১২ শতাংশের বেশি।
গত অর্থবছরে ভারতে পুরুষদের ব্যবহূত ওভেন শার্ট রফতানি বাবদ আয় হয়েছে ৪ কোটি ৭৪ লাখ ৩৬ হাজার ১৪৮ ডলার। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে একই পণ্য রফতানি বাবদ ভারত থেকে আয় হয়েছিল ১ কোটি ৬৭ লাখ ৪৬ হাজার ৯২৮ ডলার। এ হিসাবে পুরুষের ওভেন শার্ট ভারতে রফতানি বাবদ আয় বেড়েছে ১৮৩ শতাংশেরও বেশি।
ভারতে টি-শার্ট রফতানি থেকেও বাংলাদেশের আয় বেড়েছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এটি রফতানি বাবদ বাংলাদেশের আয় দাঁড়ায় ২ কোটি ৮৮ লাখ ১৭ হাজার ৪৯০ ডলারে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এ পণ্য থেকে আয় হয়েছিল ১ কোটি ৪১ লাখ ৩৪ হাজার ৯৩৫ ডলার। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে ভারতে টি-শার্ট রফতানি বাবদ আয় বেড়েছে ১০৩ শতাংশ।
রফতানি খাতসংশ্লিষ্টদের দাবি, প্রতিবেশী ও জনসংখ্যার বিচারে ভারতের বাজার বাংলাদেশের জন্য অনেক সুবিধাজনক। কিন্ত শুল্ক বাধার কারণে দেশটিতে রফতানি কাক্সিক্ষত হারে বাড়ছে না। বর্তমানে রফতানি বৃদ্ধির হারও শুধু পোশাক খাতনির্ভর। দেশটিতে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার পেলেও রাজ্যের ভিন্নতায় এখনো কাউন্টারভেইলিং ডিউটি দিতে হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ