Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ০১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

শাস্ত্রীকে একহাত নিলেন গাঙ্গুলি-শেবাগ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৫ এএম

ইংল্যান্ডের মাটিতে পাঁচ টেস্টের সিরিজ শেষ হতে এখনো এক ম্যাচ বাকি। এরই মধ্যে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ খুঁইয়েছে বিরাট কোহলির ভারত। এরপর থেকেই সোচ্চার ভারতের সাবেকেরা। সুনীল গাভাস্কার থেকে সৌরভ গাঙ্গুলী, বীরেন্দর শেবাগরা সমালোচনায় মুখর। বিশেষ করে ভারতীয় দলের হেড কোচ রবি শাস্ত্রীকে তুলোধুনো করেছেন শেবাগ ও গাঙ্গুলী।
সেই সঙ্গে তেড়েফুঁড়ে বেরিয়ে এসেছে মাটিচাপা থাকা দাবিটাও। শাস্ত্রীকে অপসারণ করে কোহলিদের কোচ পদে ফেরানো হোক অনিল কুম্বলেকে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই দাবিতে সোচ্চার ভারতের ক্রিকেটপ্রেমীরা। এদিকে সাবেকদের চোখেও সুবিধাজনক অবস্থানে নেই শাস্ত্রী। হেড কোচের দায়িত্ব পাওয়ার পর ভারতের সাবেক এই অলরাউন্ডার মাসখানেক আগে বলেছিলেন, ‘অন্যতম সেরা সফরকারি দলে পরিণত হওয়ার সামর্থ্য রয়েছে।’ কিন্তু শাস্ত্রীর এই কথা বুলি হিসেবেই থেকে গেছে। প্রতিপক্ষের মাঠে ফলেনি। অবশ্য শুধু শাস্ত্রীয় নয়, টেস্টে কোহলির নেতৃত্বগুণ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন ভারতের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান সুনীল গাভাস্কার।
প্রতিপক্ষের মাটিতে শেষ আট টেস্টের মধ্যে এ নিয়ে পাঁচ ম্যাচ হারল কোহলির দল। শেবাগ তাই যেন কথার সোজা ব্যাটে খেলে শাস্ত্রীকে আছড়ে ফেললেন সীমানার বাইরে। ইন্ডিয়া টিভিকে ভারতের সাবেক এই ওপেনার বলেন, ‘সেরা সফরকারি দল নির্ধারিত হয় মাঠের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে। ড্রেসিংরুমে বসে বুলি আওড়ানোর মাধ্যমে নয়। আপনি যত খুশি কথা বলতে পারেন কিন্তু ব্যাট আর বল কথা বলে না উঠলে সেরা সফরকারি দল হতে পারবেন না।’
১৩ মাস আগে ভারতের হেড কোচ বেছে নেওয়ার জন্য বিসিসিআই গঠিত উপদেষ্টা কমিটির পছন্দের ব্যক্তিটি ছিলেন কুম্বলে। কিন্তু ভারতীয় সংবাদমাধ্যম তখন জানিয়েছিল, কোহলিদের দাবির প্রেক্ষিতে শাস্ত্রীর কাঁধে দায়িত্ব তুলে দিয়েছিলেন সেই উপদেষ্টা কমিটির প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলী। কোচ হওয়ার সেই দৌড়ে শেবাগও ছিলেন প্রতিদ্ব›দ্বী। একই সংবাদমাধ্যমের বিশ্লেষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সৌরভ। ভারতের সাবেক এই অধিনায়কও কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন শাস্ত্রীকে। তাকে এবং ব্যাটিং কোচ সঞ্জয় বাঙ্গারকে উদ্দেশ করে গাঙ্গুলী বলেন, ‘এই ফলের দায় নিতে হবে শাস্ত্রী ও বাঙ্গারকে। কেন শুধু একজন ব্যাটসম্যান পারফর্ম করছে? বাকিরা কেন পিছিয়ে যাচ্ছে? এই প্রশ্নের জবাব দিতে না পারলে তিনটি দেশের (ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা) মাটিতে সিরিজ জেতা হবে না।’
দলের সঙ্গে তো বটেই ব্যক্তিগত জীবনেও ঝামেলায় পড়েছেন শাস্ত্রীর। প্রেমের গুঞ্জন চলছে তাকে ঘিরে। বলিউড অভিনেত্রী নিমরাত কৌরের সঙ্গে নাকি মন দেওয়া-নেওয়া চলছে শাস্ত্রীর। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তো রসিকতা চলছে, নিমরাতকে মন দিতে গিয়ে শাস্ত্রী জাতীয় দলের প্রতি মনোযোগ হারিয়েছেন!

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।