Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫, ১১ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

চলছে মাঠ জরিপ

দক্ষিণ-পশ্চিমে নির্বাচন

মিজানুর রহমান তোতা | প্রকাশের সময় : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

রাজনীতির মাঠে বর্তমানে প্রাধান্য পাচ্ছে আগামী জাতীয় নির্বাচন। তবে নির্বাচন নিয়ে নানা সন্দেহ সংশয় ও শঙ্কার বিষয়টিও একে অপরের সঙ্গে আলোচনায় উঠে আসছে। কোন আসনে এবার কে কে প্রার্থী হতে পারে, কার অবস্থা কি হবে, মৌসুমি পাখিদের আনাগোনা কেমন-এসব নিয়ে সবখানে সমানতালে চলছে আলোচনা সমালোচনা। মোড়ে মোড়ে ঈদ শুভেচ্ছার নামে বিভিন্ন রঙ্গিন পোস্টার টানানো এবং সরাসরি শুভেচ্ছা জানানোর মধ্য দিয়ে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মূলত ভোট রাজনীতির মাঠে নেমে পড়েছেন। এই চিত্র দক্ষিণ-পশ্চিমের। এই অঞ্চলে প্রধান দু’টি রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এখন করছে নির্বাচনী মাঠ জরিপ। একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা ছাড়াও দল নির্ধারিত বিভিন্ন টিমের মাধ্যমে পুরাদমে চলছে জরিপ কাজ। তাদের তৎপরতা নির্বাচনী আলোচনাকে জোরদার করছে। তবে কেন যেন কাপ ঊত্তাপ নেই। সবকিছুই চলছে কার্যত প্রাণহীনভাবে।
জনসাধারণের কথা, ‘ওরে ভাই ভোট আসলি সবাই তৎপর হয়, ভোট গেলে সাধারণ লোকজনের খবরও রাখে না আমাদের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা। অনেকেই রাতারাতি চোখ পাল্টি দিয়ে দেয়’। ভোট রাজনীতিতে কি এসবের পরিবর্তন হবে না এমন প্রশ্ন ও নানা কথাবার্তা চলছে নির্বাচনের প্রসঙ্গ উঠলেই। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের কথা, রাজনীতিতে ঘটেনি কোন মৌলিক ও গুণগত পরিবর্তন। অনেকটাই গতানুগতিক। তাছাড়া রাজনীতির গতি প্রকৃতিও খুব বেশী সুখকর নয়। অতীতেও একই ধারা ছিল, কিন্তু বর্তমানে সেই ধারার গতি বৃদ্ধি পেয়েছে মাত্রাতিরিক্ত। জনগণের সমস্যা সমাধানে ও জনকল্যাণে এবং স্থানীয় ইস্যুভিত্তিক রাজনীতি নেই বললেই চলে। দক্ষিণ-পশ্চিমের ১০ জেলায় মোট ৩৬ আসনে আসনভিত্তিক নির্বাচনী জরিপ চালাচ্ছে সরকারের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। বর্তমান এমপিদের কর্মকান্ডে কে নিন্দিত কে নন্দিত, কে মাঠে নামেন না, কার জনগণের সাথে কার সম্পর্ক আছে, কার নেই, ক্ষমতায় থাকার সুবাদে কে কে ফুলেফেপে মোটা হয়েছেন, কার সম্পদ আনুমানিক কত, কাকে মনোনয়ন দিলে প্রতিপক্ষের সঙ্গে ভোটযুদ্ধে পারবে কি পারবে না-এসব তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়।
সূত্র জানায়, যশোর, খুলনা, ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া, মাগুরা, নড়াইল, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গার ৩৬টি সংসদীয় আসনে ক্ষমতাসীন দলের অন্তত ১২জন এমপি জনবিচ্ছিন্ন ও দুর্নীতিসহ নানা কারণে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না । গোয়েন্দা সংস্থা ছাড়াও আওয়ামী লীগের কেন্দ্র থেকে একাধিক টীম আগামী নির্বাচনের প্রার্থীদের নিয়ে কাজ করছে। যারা নানা কারণে বিতর্কিত হয়েছেন, নির্দিষ্ট গন্ডির বাইরে বের হতে পারেনি, ঘরের ভেতর ঘর তৈরী করেছেন। দলের নেতা কর্মী ও সমর্থকের বদলে ব্যক্তি সুবিধার জন্য কর্মচারীর মতো কিছু চালাচামন্ডা পুষে রাজনীতির কর্মকান্ড করে নামকাওয়াস্তে ও শুধু ফটোসেশনের মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখে সমালোচিত হয়েছেন তাদের যাতে মনোনয়ন না দেওয়া হয় এমন তথ্য ও মন্তব্য কেন্দ্রে জানানো হচ্ছে।
বিএনপিও বসে নেই। কারা নির্বাচনের প্রস্ততি নিচ্ছে জোরেশোরে। এই অঞ্চলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের অধিকাংশই হামলা মামলা প্রশাসনিক হয়রানি জেল জুলুম হুলিয়ার শিকার হয়ে জেরবার অবস্থায়। তার মধ্যেও ঘুরে দাঁড়ানোর প্রাণান্ত চেষ্টা চালাচ্ছেন তারা। দলীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে, বিএনপিতে এবার অনেক নতুন মুখ আসছে। নেতা ও কর্মীরা এখন বহুলাংশে চাঙা। তারা গা ঝাড়া দিয়ে উঠেছে। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। আর পেছনের পথ নেই। এবার শক্ত হাতে কেন্দ্র নির্বাচনী মাঠে নামছে। পাশাপাশি আন্দোলনেরও প্রস্ততি নিচ্ছে বলে দলীয় একাধিক সুত্রে জানা গেছে। এদিকে, ভোট রাজনীতির মাঠে সর্বশেষ ঢাকায় বিএনপির শো-ডাউন এবং নতুন জোটও আলোচনায় আছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ