Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

সোরিয়াসিস চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথি

ডা. এস এম আব্দুল আজিজ | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

মানুষের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে-প্রতঙ্গে বিশেষ করে ত্বকে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। যা মানুষের শরীরের ত্বক বা স্কীনের সৌন্দর্য্যকে বিকৃত ও বিনষ্ট করে । বিজ্ঞান ভিত্তিক হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা ব্যাবস্থায় সোরিয়াসিস রোগের আরোগ্য সম্ভব। সোরিয়াসিস চর্মের একটি জটিল ও কঠিন সমস্যা। এটি অনেকটা একজিমা সাদৃশ্য। চর্মের উপর শুষ্ক ক্ষত হয় এর উপর আঁইশের মত দেখা যায়, শুকিয়ে ভূষির ন্যায় খসে পড়ে, কড়াই চটকার ন্যায় ছাল উঠে। অনেক ক্ষেত্রে সোরিয়াসিসে চুলকানী থাকে। চুলকালে মধুর মত ঘন রস বের হতে পারে। লাল বর্ণের চ্যাপ্টা উদ্ভেদ বের হয়ে তা থেকে খোলস উঠতে থাকে। যা খুব পাতলা আইশের মত বা খুশকির মত একেই সোরিয়াসিস বলে। 

সোরিয়াসিসের কারণ ঃ
১) সঠিক কারণ এখনো অজানা
২) কালো লোকদের তুলনায় সাদা/ফর্সা লোকদের বেশি হয়।
৩) জীবানু সংক্রামন,
৪) লিভার ক্রিয়ার গোলযোগ থাকলে,
৫) শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার অভাব,
৬) খাদ্যাভ্যাস,
৭) পুষ্টির অভাব,
৮) শীত প্রধান অঞ্চল,
৯) হোমিওপ্যাথিক দৃষ্টি কোন থেকে সোরা ধাতু দোষই হলো মূল কারণ।
লক্ষণ ঃ
১) ছোট বড় নানা আকারে লাল বর্ণের একটি/অনেক গুলো ম্যাকুল/প্যাচ দেহের অনেক স্থানে দেখা যায়। ২) ঈষৎ ধূসর বর্ণের চকচকে প্রচুর আঁশ উঠে। ৩) কোন প্রকার ফুশকুড়ি হয় না, রস পড়ে না। ৪) প্যাচ মিলিয়ে গিয়ে আবারও আসে, কোন কোন প্যাচ দীর্ঘদিন স্থায়ী হয়। অতিরিক্তি চুলকালে ক্ষতের সৃষ্টি হয়ে মধুর ন্যায় আঠালো রস বের হয় ৫) ক্ষত মিলিয়ে যাওয়ার পর কোন দাগ থাকে না। ৬) আইশ উঠিয়ে দিলে তার নীচটা মসৃন ও শুস্ক দেখায়। ৭) শরীরের প্রায় সবখানেই হতে পারে, অনেক বেশি হলে পুরো শরীরেও হতে পারে। ৮) নখ আক্রান্ত হলে নখের চারপাশে ও নখের নীচে ঘন আঁশ জমে নখ মোটা হয়ে ভেঙ্গে যায় ও বিকৃত হয়ে যায়, বিবর্ণ দেখায়, নখে ফাংগাল ইনফেকশনের মত দেখায়। ৯) যাদের সোরিয়াসিসের সঙ্গে আর্থাইটিস থাকে তাদের ভয়ানক কষ্ট ভোগ করতে হয়। গায়ে সামান্য সূর্যতাপ লাগলে বা কোন উত্তেজক বস্তুর সংস্পর্শে গেলে রোগী অস্বস্থি বোধ করে।
সোরিয়াসিস রোগ নির্ণয়ঃ * প্রথম দর্শনে কখনও কখনও এ রোগ নির্ণয় করা কঠিন, কারণ অন্যান্য চর্ম রোগের সাথে ভুল হওয়া খুব স্বাভাবিক।
* মাথার সোরিয়াসিসের সাথে মাথার খুশকি পার্থক্য করতে হবে।
* অন্যান্য চর্ম রোগের আঁশের সাথে এর পার্থক্য- এর আঁশ খুবই পাতলা, চকচকে ও রূপালী।
* এতে মাথার চুল নষ্ট হয় না, জট হয় না।
* সোরিয়াসিসের সাথে কোষ্ঠ কাঠিন্য থাকতে পারে, সিফিলিস, একজিমা, নখের ফাংগাস ইনফেকশন, ক্যান্সার এর সাথে এর পার্থক্য জেনে নিতে হবে। সোরিয়াসিস থেকেও স্কীন ক্যান্সার হতে পারে।
হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাঃ পাঠক ও সোরিয়াসিসে আক্রান্ত ব্যাক্তিকে মনে রাখতে হবে যে সর্বদায় হোমিওপ্যাথি ঔষধ লক্ষণ ভিত্তিক নির্বাচিত। আর ঔষধ, মাত্রা ও শক্তি একজন চিকিৎসকের পক্ষেই নির্বাচন করা সম্ভব।
চিকিৎসকের পরামর্শঃ রোগীকে সর্বদা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে * পরিস্কার নরম জামা পড়তে হবে। * রৌদ্রে, গরমে ও উত্তেজক স্থানে যাওয়া যাবে না * নিমপাতার গরম পানিতে গোসল করতে হবে * পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে * টাটকা সবুজ শাক সব্জি খেতে হবে। ফাষ্ট ফুড ও এ্যালার্জি জাতীয় খাবার বর্জন করতে হবে।

সেক্রেটারী: আইডিয়াল ডক্টর্স ফোরাম অব হোমিওপ্যাথি,
আল-আজিজ হেলথ কেয়ার সেন্টার,
৫৩-পুরানা পল্টন, বায়তুল আবেদ, ঢাকা।
মোবাইল: ০১৭১০ ২৯৮ ২৮৭



 

Show all comments
  • Mahmud Al Hasan Sumon ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৯:২৪ এএম says : 0
    thanks of lot
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর