Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

সাতক্ষীরা-আশাশুনি-ঘোলা সড়কে চরম ভোগান্তি

আশাশুনি (সাতক্ষীরা) থেকে জি এম মুজিবুর রহমান | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

আশাশুনি-সাতক্ষীরা ও আশাশুনি-ঘোলা এবং বুধহাটা-বাঁকা সড়ক বেহাল দশায় জনভোগান্তি বেড়েই চলেছে। ফলে যানবাহন চালক ও যাত্রী সাধারণের দুরবস্থা চরম আকার ধারণ করেছে।
সড়কগুলোর বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘদিন সড়কগুলো সংস্কার না করায় সড়কগুলো চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়ক ও জনপদ বিভাগ মাঝে মধ্যে পুটিং করে চলায় কোন রকমে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে। সড়কের দুরাবস্থার মধ্যে ইঞ্জিন ভ্যান, ট্রলি, নসিমন, করিমন, ইজিবাইক, ব্যাটারি ভ্যান ও মোটরসাইকেল চলাচল করার সময় অধিকাংশ ক্ষেত্রে কেউ কারো সাইট দিতে চায় না। আবার অনেক অনভিজ্ঞ চালক ঠিকভাবে চলাচলে ব্যর্থ হওয়ায় দুর্ঘটনার শিকার হয়। মিনিবাস চালকের মধ্যে একাধিক চালক এ প্রতিবেদকে জানান, সাতক্ষীরা-আশাশুনি সড়কের ধুলিহর-ব্রহ্মরাজপুর বাজার, চাঁদপুর বাজার, কুল্যার মোড়, বুধহাটা বাজার, মহেশ্বরকাটি মৎস্য সেট, হাড়িভাঙ্গা বাজার, মহিষকুড় বাজার, কালিবাড়ী বাজার এবং বাকা সড়কের গুনাকরকাটি বাজার, কাদাকাটি বাজার, শ্রীধরপুর মোড়, কালাবাগী বাজার, দরগাহপুর বাজারের সড়কের দুইধারের ফুটপাথ ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে। সাথে সাথে ছোট ছোট যানবাহনগুলো সড়কের উপর থেকে যাত্রী উঠা-নামা করায় এবং যত্রতত্র স্ট্যান্ড হিসেবে ব্যবহার করায় সমস্যা প্রকট হয়ে উঠেছে। ফুটপাথ উন্মুক্ত না থাকায় যানবাহন গুলোর ক্রসিংয়ে ব্যাপক সমস্যার সৃষ্টি হয়।
অনেক সময় ফুটপাথ না থাকায় সড়কের একাংশে থাকা অবৈধ যানবাহনে বা পথচারীর পেছনে লেগে যায় অন্য যানবাহনের ধাক্কা। অন্যদিকে ক্রসিং করতে গিয়ে ফুটপাথ দখলকারী ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে উঠে যায় গণপরিবহনের চাকা। এতে করে ফুটপাথ দখকারী ও পথচারীরা ক্ষিপ্ত হয়ে অনেক সময় গাড়ি ভাঙচুরের মতো ঘটনাও ঘটে থাকে। এ ছাড়া সড়কগুলোর বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় সড়ক এখন খানাখন্দে পরিণত হয়েছে। আর এ কারণে অনেক সময় যানবাহনের ব্রেক ফেল, টায়ার ব্রাস্ট, এখনকি অনেক সময় পাতি ভেঙে যাওয়ার মতো ভয়াবহ ঘটনাও ঘটে। এ ব্যাপারে সড়কগুলো দ্রুত সংস্কার ও পুননির্মাণের ব্যবস্থা এবং অনিয়ম দূর করতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর