Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫, ১৩ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

লঙ্কানদের টিকে থাকার লড়াই

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

সাফ সুজুকি কাপে টিকে থাকার লড়াইয়ে আজ মাঠে নামছে শ্রীলঙ্কা। ‘বি’ গ্রæপের প্রথম ম্যাচে টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারতের বিপক্ষে হারের কারণে অনেকটাই কোনঠাসা লঙ্কানরা। তাই টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে হলে দ্বিতীয় ম্যাচে মালদ্বীপের বিপক্ষে জিততে হবে তাদের। হারলেই বাদ- এমন সমীকরণেই আজ মালদ্বীপের মুখোমুখী হচ্ছে শ্রীলঙ্কা। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে ম্যাচটি।
গ্রæপপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী ভারতের কাছে ২-০ গোলে হেরে এবারের সাফ মিশন শুরু করে কোচ পাকির আলীর শ্রীলঙ্কা। তাই মালদ্বীপের বিপক্ষে জয় ছাড়া অন্য কিছুই ভাবছে না তারা। ব্যবধানে হেরেছে দলটি। অন্যদিকে ২০০৮ সালের সাফ চ্যাম্পিয়ন মালদ্বীপ প্রথম ম্যাচে লঙ্কানদের হারিয়ে এবারের আসর শুরু করতে চায়।
ম্যাচে ড্র করলেও সম্ভাবনা টিকে থাকবে শ্রীলঙ্কার। সেক্ষেত্রে ভারতের কাছে গ্রæপপর্বের শেষ ম্যাচে মালদ্বীপকে হারতেই হবে। তখন শ্রীলঙ্কা-মালদ্বীপ ১ পয়েন্ট নিয়ে একই অবস্থানে থাকলে গোলগড়ে এগিয়ে থাকা দল চলে যাবে সেমিফাইনালে। তবে সমীকরণ নিয়ে ভাবতে রাজি নন লঙ্কান কোচ পাকির আলী। ম্যাচের আগে তিনি বলেন, ‘আমাদের গ্রæপটা বেশ শক্তিশালী। ভারতের কাছে প্রথম ম্যাচে আমরা হেরেছি। তাই মালদ্বীপের বিপক্ষে আগামীকাল (আজ) আমাদের জিততেই হবে। দলটি অনেক শক্তিশালী। তবে জেতার জন্য আমরা শেষ পর্যন্ত লড়াই করব।’
তারুণ্যনির্ভর দল নিয়ে এবার সাফ খেলছে মালদ্বীপ। দলটির অনেক সাফল্যের নায়ক, অভিজ্ঞ আলী আশফাককেও এবার দলে রাখেননি ক্রোয়েশিয়ান বংশোদ্ভূত জার্মান কোচ পিটার সেগার্ট। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে তার কথা,‘আমার মতে এই টুর্নামেন্টে এগিয়ে ভারতই। তবে তাদেরকে আমি ফেভারিট বলব না। আমার কাছে সাত দলই ফেভারিট। আমাদের গ্রæপে শ্রীলঙ্কাও আছে। গত কয়েক মাস ধরে শ্রীলঙ্কার ফুটবল অনেক উন্নতি করেছে। প্রীতি ফুটবল ম্যাচে তারা স্বাগতিক বাংলাদেশকে হারিয়েছে। তাদের দলটাও তরুণ। লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচটি কঠিন হবে।’
ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখেই তরুণদের ঝালিয়ে নিতে সাফের এবার তাদের ভিড়িয়েছে মালদ্বীপ। এ প্রসঙ্গে কোচ পিটার বলেন, ‘মালদ্বীপ তারুণ্যনির্ভর দল। এই দলের ভবিষ্যৎ উজ্জল। আমি এখানে এসেছি সেরাটা মেলে ধরতে। ছেলেরা খুবই উজ্জীবিত। আমাদের প্রস্তুতিটাও ভাল। এখন মাঠে প্রমাণ করতে চাই।’ সাফে সর্বোচ্চ ২০ গোলের মালিক মালদ্বীপের তারকা খেলোয়াড় আলী আশফাক। এই আশফাকই এবার দলে জায়গা পাননি। তাকে বাদ দেয়া প্রসঙ্গে পিটার সেগার্টের কথা, ‘আলী আশফাক অসাধারণ ফুটবলার। যে কোনো কোচই তাকে নিতে চাইবেন। কিন্তু আমার ট্যাকটিসে সে পড়েনি। তাই তাকে আমি দলে নেইনি। তবে তার জায়গায় যে খেলবে সেও দুর্দান্ত।’
সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে দু’দলেরই শিরোপা জয়ের ইতিহাস রয়েছে। ১৯৯৫ সালে দ্বিতীয় আসরে ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় শ্রীলঙ্কা। আর ২০০৮ সালের সপ্তম আসরে শিরোপা জেতে মালদ্বীপ। তারাও ভারতকে হারিয়েই চ্যাম্পিয়ন হয়। শ্রীলঙ্কা-মালদ্বীপের জাতীয় দল এখন পর্যন্ত ১৮ বার পরস্পরের মুখোমুখি হয়েছে। তাতে মালদ্বীপ ৭ ম্যাচে জয় পেলেও লঙ্কানরা জিতেছে ৩ ম্যাচ। বাকি ৮ ম্যাচ ড্র হয়েছে। সাফে তারা ৬ বার মুখোমুখী হয়। তাতে মালদ্বীপ জয় পায় ৫ ম্যাচে। বাকি একটি ম্যাচ ড্র হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর