Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

প্রশ্ন : আমি সরকারি অফিসে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকরি করি। ঘুষ নেই না, গ্রামের বাড়িতে একটি মাদরাসা চালাই, তাই বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে দান গ্রহণ করি। এটা কি ঠিক হচ্ছে?

আতাউল গণী
কুয়াকাটা

প্রকাশের সময় : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:১২ এএম

উত্তর : ঘুষ নেয়া হারাম। যে অনিয়মের জন্য ঘুষ নেয়া হয়, সেখানে ঘুষ না নিয়ে চাঁদা নেয়াও হারাম। হোক তা নিজে খাওয়ার জন্য অথবা মসজিদ-মাদরাসার জন্য। নবী করিম (সা.) এক সাহাবীকে সরকারী কাজে নিয়োগ করেন, তখন সে সাহাবী রাজস্ব বাবদ কিছু অর্থ নবীজির (সা.) কাছে জমা দেন। আর কিছু অর্থ এ বলে নিজের কাছে রেখে দিতে চেষ্টা করেন যে, এসব মানুষ আমাকে হাদিয়া দিয়েছে। হুজুর তখন বললেন, তোমাকে যদি এ পদে না বসাতাম, তাহলেও কি তারা তোমাকে এসব হাদিয়া দিত? সাহাবী বললেন, কখনোই না। তখন নবীজি (সা.) বললেন, এগুলোও বায়তুল মালে জমা করে দাও। কেননা, ক্ষমতাসীনদের হাদিয়াও ঘুষ। এখন আপনি সিদ্ধান্ত নিন, এসব চাঁদা যদি মানুষ কোনো স্বার্থ ছাড়া শুধুই আল্লাহর ওয়াস্তে খুশি মনে দেয় তাহলে এক কথা। আর যদি ঘুষ দিতে হয় না বলে আপনার মন যোগাতে আপনার মসজিদ মাদরাসায় চাঁদা হিসেবে দেয়, তাহলেও এসব থেকে বেঁচে থাকাই ভালো। এসব সন্দেহজনক আয়।

সূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতাওয়া বিশ্বকোষ।
উত্তর দিয়েছেন : আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভী

 

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
inqilabqna@gmail.com



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ