Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

অবৈধভাবে আল আকসা মসজিদে ঢুকে পড়েছে ইসরাইলি দখলদাররা

চিকিৎসা সহায়তা বন্ধ করেছে ট্রাম্প

ইনকিলাব ডেস্ক : | প্রকাশের সময় : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম | আপডেট : ১২:২৫ এএম, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

এবার ফিলিস্তিনিদের চিকিৎসার জন্য দেওয়া আড়াই কোটি ডলার সহায়তা বন্ধ করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইসরাইলের দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমের অবস্থিত হাসপাতালগুলোতে ওই অর্থ ব্যয় করা হতো। শনিবার মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট এ কথা জানিয়েছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন দুই কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি অর্থ সহায়তা বাতিল করেছে। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ফিলিস্তিনিদের প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতা বন্ধের বৃহত্তর পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এই সহযোগিতা বাতিল করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘোষণা করেন, ফিলিস্তিনিরা যতক্ষণ পর্যন্ত না ইসরাইলের সাথে শান্তি চুক্তিতে সম্মত হবে, তার দেশ ততক্ষণ পর্যন্ত কোনো সহযোগিতা দেবে না ফিলিস্তিনকে। ফিলিস্তিনিদের উদ্দেশ্যে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা ফিলিস্তিনি নাগরিক ও নেতাদের জন্য যে অর্থ দিতাম, তা বাতিল করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র তাদের বড় অঙ্কের অর্থ দিত। আমি বলতে চাই, আপনারা অর্থ পাবেন; কিন্তু চুক্তি করার আগে নয়। যদি চুক্তি না করেন, আমরা আপনাদের কোনো অর্থ আর দেব না’। তুর্কি গণমাধ্যম আনাদোলু বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের এই পদক্ষেপের ফলে পূর্ব জেরুজালেমে অন্তত পাঁচটি হাসপাতালের চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যাহত হতে পারে। এই হাসপাতালগুলোর মধ্যে রয়েছে আগুস্টা ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল ও সেন্ট জন চক্ষু হাসপাতাল। সেন্ট জন হাসপাতালটি পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমের সবচেয়ে বড় চক্ষু হাসপাতাল। অপরদিকে, মুসলমানদের অন্যতম পবিত্র ধর্মীয় স্থান পূর্ব জেরুজালেমের আল আকসা মসিজদে জোর করে কয়েকজন ইসরাইলি দখলদার ঢুকে পড়েছে। ফিলিস্তিনি এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে তুরস্কের বার্তা সংস্থা আনাদোলু জানিয়েছে রবিবার দেড়শোরও বেশি ইসরাইলি মসজিদ চত্বরে ঢুকে পড়েছে। ঘটনা সম্পর্কে মসজিদটির তত্তবধানকারী জর্ডানের পরিচালিত সংস্থা জেরুজালেম ইসলামিক ওয়াকফ এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে বলেছে, দেড়েশোরও বেশি ইসরাইলি ইহুদি দখলদার পবিত্র মসজিদ চত্বরের আল মুগারাবা প্রবেশদ্বার দিয়ে ঢুকে পড়ে। সংস্থার মুখপাত্র ফিরাজ আল দিবস ওই বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন। তিনি বলেন, এসব দখলদারদের সঙ্গে ইসরাইলের পুলিশ বাহিনীর সদস্যরাও ছিলেন। এছাড়া ইসরাইলের কৃষিমন্ত্রী উরি এরিয়েলও দখলদারদের সঙ্গে মসজিদ চত্বরে প্রবেশ করেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী স্বীকৃতি দেওয়ার পর থেকেই পূর্ব জেরুজালেমসহ ফিলিস্তিনি এলাকায় উত্তেজনা বেড়েছে। আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণটি একইসঙ্গে মুসলিম ও ইহুদিদের জন্য পবিত্র স্থান বলে বিবেচিত হয়। মুসলিমরা একে আল হারাম আল শরিফ নামে ডেকে থাকেন। আর ইহুদিরা এ স্থানটিকে ডাকেন টেম্পল মাউন্ট নামে। ১৯৬৭ সালে যখন ইসরাইল এই এলাকায় প্রবেশাধিকার পায় তখন শুধু মুসলিমরাই আল-আকসায় নামাজ পড়তে পারতো। দিনের একটি নির্দিষ্ট সময় প্রার্থনার সুযোগ পেত ইহুদিরা। রয়টার্স, আনাদোলু।



 

Show all comments
  • মাহবুব ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১:৩০ এএম says : 0
    এখানে আপনি আপনার মন্তব্য করতে পারেন সর্প হয়ে দংশন করে,ওঝা হয়ে ঝাড়বেন,তা কি বিশ্বের মানব জানে না ,এটা আমেরিকার ভ্রান্ত অনুভব ।আড়াই কোটি ডলার দ্বারা চুক্তি করতে বাধ্য বা চাপ বড় হীনমন্যতার পরিচায়ক ।ইসরাইলের মত ফিলিস্তীনীদের সাথে গলাগলি করেন ।দেখবেন সমতা কিভাবে বিশ্বকে নিরাপদ করে ।এটা স্রষ্টা ভালবাসেন ।কিন্তু দম্ভ,বড়,জ্ঞানী,স্থির প্রতিভাবান, মনে করবেন,তাতে পতন,অপমান, জ্বালা ক্রমাগত বাড়তেই থাকবে ।যা আংশিক দেখতে পাচ্ছে বিশ্ব ।ইতিহাসে দেখা যায়--বিপদে নিপতিত হবার পূর্বে জ্ঞানে কথা শুনলেই তেলে বেগুনে জ্বলে উঠে ।আপনার দেশের কবি,দার্শনিকদের কথাও একই ।তাঁদের কথা না হয় আত্মিক প্রয়োজনে মানুন ।
    Total Reply(0) Reply
  • Habib Rahman ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১০:২৬ এএম says : 0
    Why Muslim country around world are not taking similar objective that could be help Palestinian peoples. those Muslim country are engage illegal war with another Muslim country and spending their huge amount of money. this kind of money they could be help with war victim peoples around Palestine. Afghanistan.Iraq. Syria.Yemen. Libya. as well as Rohinga Muslim.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ