Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ০৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

আজ কনকচাঁপার জন্মদিন

বিনোদন রিপোর্ট: | প্রকাশের সময় : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৫ এএম

আজ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত গুনী সঙ্গীতশিল্পী কনকচাঁপার জন্মদিন। তবে জন্মদিনকে ঘিরে তিনি কখনোই কোন বিশেষ আয়োজন করেন না। এই দিনে তিনি সবসময়ই পরম করুনাময় আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করে দিনটি অন্যান্য স্বাভাবিক দিনের মতোই অতিবাহিত করেন। এবারের জন্মদিনেও নেই তেমন কোন বিশেষ আয়োজন। পুরোটা সময়ই পরিবারের সঙ্গে কাটাবেন। কনকচাঁপা বলেন, ‘জন্মদিনে আমি নিজে কখনোই কোন বিশেষ আয়োজন করিনা। তবে মাঝে মাঝে আমার স্কুলের শিক্ষার্থীরা, ভক্তরা বিশেষ আয়োজন করে ফেলে। তাতে অংশ নিতে হয়। কিন্তু এবার আর তেমন কিছু করা হচ্ছে না। কিছুটা পারিবারিক ব্যস্ততা আছে। যে কারণে কোনো আয়োজনইে সাড়া দিতে পারছিনা। যেহেতু এই সুন্দর একটি দিনে পৃথিবীতে আমার জন্ম হয়েছে। আল্লাহর রহমতে সুন্দর একটি জীবন হয়েছে আমার। সুস্থ সুন্দরভাবে বেঁচে আছি, তাই মহান আল্লাহর কাছে সবসময়ই আমি শুকরিয়া আদায় করি। আগামী দিনগুলোতেও যেন এভাবে বেঁচে থাকতে পারি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে।’ কনকচাঁপা জানান, আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর যশোহরে একটি স্টেজ শো’তে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন তিনি। কনকচাঁপার একক অ্যালবাম ‘পদ্মপুকুর’ যার সুর-সঙ্গীতায়োজন করেছেন মইনুল ইসলাম খান। আলাউদ্দিন আলীর সুরে ‘বিধাতা’ চলচ্চিত্রে গান গাওয়ার মধ্যদিয়ে একজন প্লে-ব্যাক সিঙ্গার হিসেবে কনকচাঁপার যাত্রা শুরু হয়। এরপর দিলীপ বিশ্বাসের ‘অস্বীকার’সহ আরো বেশ কিছু চলচ্চিত্রে প্লে-ব্যাক করেন। কিন্তু বেশ কিছুটা সময় পর সালমান শাহ-শাবনূরের প্রথম চলচ্চিত্র ‘তুমি আমার’-এ আবু তাহেরের সুরে ‘দেখা না হলে একদিন, কথা না হলে একদিন’ এবং ‘তুমি আমার ভালোবাসার গান ’ এই দুটি গানে আগুন এবং শেখ ইশতিয়াকের সঙ্গে কনকচাঁপা তার গায়কীর শৈল্পিকরূপ দিয়ে এদেশের গানপাগল মানুষের মাঝে আলোড়ন সুষ্টি করেন। এই দুটি গানই কনকচাঁপার জীবনে নতুন এক অধ্যায়ের রচনা করে। ১৯৯৪ সালের পর থেকে ২০০৫/২০০৬ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে যতগুলো সিনেমা হয়েছে প্রায় সবগুলো ছবিতেই ছিল কনকচাঁপার কন্ঠের গান। বিশেষ করে শাবনূরের ছবি মানেই ছিল কনকচাঁপার গান। শাবনূরের কন্ঠের সাথে কনকচাঁপার কন্ঠের অনেকটা সাদৃশ্যতার কারণেই সে সময় কনকচাঁপাকে দিনে চার/পাঁচটি গানও রেকর্ড করতে হয়েছে। ২০১৬ সালে কনকচাঁপার প্রথম একক চিত্রপ্রদর্শণী ‘দ্বিধার দোলাচল’ও সবার মাঝে বেশ সাড়া ফেলেছিলো। একজন লেখক হিসেবে সবার মাঝে তার আতœপ্রকাশ ঘটে ২০১০ সালে অনন্যা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত ‘স্থবির যাযাবর’ বইটি প্রকাশের মধ্যদিয়ে। এরপর আরো তিনটি বই তিনি পাঠককে উপহার দেন। সে তিনটি বই হচ্ছে ‘মুখোমুখি যোদ্ধা’, ‘মেঘের ডানায় চড়ে’ এবং ‘কাটা ঘুড়ি’। জন্মদিনে কনকচাঁপাকে বিনোদন প্রতিদিনের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর