Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫, ১৪ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

মা নামের কলঙ্ক

দোহার-নবাবঞ্জ (ঢাকা) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

ছেলের দুধের টাকা জোগাড় করতে না পেরে দুই মাসের ফুটফুটে সাঈফকে লবণ খাইয়ে মারলো পাষন্ড মা সাথী আক্তার। ঢাকার দোহার উপজেলার মিয়াপাড়ায় রোববার সন্ধায় এ ঘটনা ঘটে। গতকাল সোমবার সকালে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সাথী আক্তারকে আটক করে থানা পুলিশ।
জানা যায়, উপজেলার উত্তরজয়পাড়া গ্রামের বাসিন্দা মো. বাচ্চু (৩০) ও স্ত্রী সাথী আক্তার (২০)। তিন বছর আগে পারিবারিকভাবে তাদের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে সাবিহা আক্তার নামে দুই বছরের একটি মেয়ে সন্তান ও মো. সাইফ নামে দুই মাসের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। রোববার সকালে সাঈফের দুধ আনার জন্য স্বামীকে বলে সাথী। সন্তান যখন ক্ষুধার জ্বালায় আর্তনাত করছিলো ঠিক এমন সময় রাগে-ক্ষোভে সন্তানকে চিরতরে শান্ত করবার জন্যই সন্তানের মুখে লবণ খাইয়ে মেরে ফেলেন মা।
তাৎক্ষণিকভাবে শিশুটির শ্বাসকষ্ট শুরু হলে সাঈফের মার আর্তচিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে আসে। শিশুটির ফুফু ও দাদি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশু সায়েমকে মৃত ঘোষনা করেন।
এ বিষয়ে উক্ত দোহার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক হোসাইন মো. আল-আমিন জানান, শিশু সায়েমের মুখের ভেতরে প্রচুর পরিমানে লবণ ছিলো। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসার আগেই শিশুটি মারা গিয়েছিল। লবনের কারনে বিষক্রীয়া হয়ে মারা গিয়েছে শিশুটি।
শেখ বাচ্চু বলেন, আমি রাজমিন্ত্রীর কাজ করে সংসার চালাতাম। মাঝেমধ্যে আমার স্ত্রীর সাথে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে ঝগড়া হতো। সে কারনেই রাগে কষ্টে ছেলেকে মেরে ফেলেছে ওর মা।
দোহার থানার ওসি (তদন্ত) ইয়াসিন মুন্সী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভাবের সংসারে সন্তানের দুধের টাকা যোগাতে না পেরে রাগে ক্ষোভে নিজের সন্তানকে লবন খাইয়ে হত্যা করেছে মা। জিজ্ঞাসাবাদে সাথী আক্তার বিষয়টি স্বীকারও করেছে পুলিশের কাছে। এ ঘটনায় সোমবার নিহত সাঈফের বাবা বাদী হয়ে মা সাথী আক্তারকে আসামি করে দোহার থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ