Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ০৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

এবার ব্যর্থতা তদন্তে কাজী সালাউদ্দিন

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০১ এএম

দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলে বিশ্বকাপ খ্যাত সাফ সুজুকি কাপের গ্রæপ পর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। অথচ দীর্ঘ ১৫ বছর পর ঘরের মাঠে লাল-সবুজদের সামনে ছিলো সাফ শিরোপা জেতার হাতছানি। অন্তত শেষ চারে খেলার স্বপ্ন নিয়ে এবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু করেছিল জাতীয় দল। স্বপ্ন পূরণের পথে অনেকটা এগিয়েও গিয়েছিল তারা। ‘এ’ গ্রæপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ এবং দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তাানকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে এক পা দিয়েই রেখেছিলেন জামাল ভূঁইয়া-মামুনুল ইসলামরা। শেষ ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে প্রয়োজন ছিলো শুধুমাত্র ড্র। তাহলেই স্বাগতিকরা গ্রæপ সেরা হয়ে জায়গা পেত শেষ চারে। কিন্তু না পারলো না বাংলাদেশ, আরেকটি সাফের শিরোপা জয়ের পথে এগিয়ে যেতে পারলো না। গ্রæপ পর্বের শেষে ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরে হতাশার বিদায় নিতে হয় বাংলাদেশকে। মূলত গোলরক্ষক শহিদুল আলম সোহেলের হাস্যকর এক ভুলে গোল হজম করে স্বাগতিকরা। সেই হাস্যকর ভুলেই শেষ পর্যন্ত কান্নাভেজা বিদায় ঘটে লাল-সবুজদের। এটা নিয়ে টুর্নামেন্টের টানা চার আসরে গ্রæপ পর্বের গন্ডি টপকাতে পারেনি বাংলাদেশ। যে কারণে শুরু হয় সমালোচনা। বিশেষ করে এবার নেপালের বিপক্ষে ব্যর্থতা এবং গোলরক্ষক সোহেলের অমার্জনীয় ভুলের খেসারত হার দিয়ে দেয়ার কারণেই সমালোচনায় মুখরিত হয়ে ওঠে দেশের ফুটবলাঙ্গন। ফুটবলপ্রেমীদের মনে প্রশ্ন জাগে- সাফের আগে ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে’র ক্যাম্পে ২৭ জনের স্কোয়াডে না থেকেও কিভাবে জাতীয় দলের সেরা একাদশে সুযোগ পেলেন সোহেল। কেনই বা ক্লাবকে প্রতিনিধিত্বকারী একজন ব্যক্তিকে জাতীয় দলের ম্যানেজারের পদে রাখা হলো। জাতীয় দল গঠনে কেন ঢাকা আবাহনীকে প্রাধান্য দেয়া হলো? দেশের ফুটবলবোদ্ধাদের মনে যখন এতো ‘কেন’ ঘুরপাক খাচ্ছে তখনই সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখী হন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) এবং সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের (সাফ) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। নেপালের বিপক্ষে হেরে সাফ সুজুকি কাপ থেকে লাল-সবুজদের ছিটকে পড়ার তিনদিন পর গতকাল বাফুফে ভবনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন তিনি। সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নবাণে জর্জরিত সালাউদ্দিন শেষ পর্যন্ত ঘোষণা দেন, ‘সাফের ব্যর্থতার জন্য আমি নিজেই তদন্ত করছি। আশা করি আগামী ৪/৫দিনের মধ্যেই এর একটা ফলাফল আপনাদের সামনে উপস্থাপন করতে পারবো।’
শুরুতে স্কোয়াডে না থাকার পরও কেন গোলরক্ষক সোহেলকে দলে নেয়া হলো, কেন রুপুকে ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হলো, কেনই বা পারফরমার ফুটবলারদের বসিয়ে রাখা হলো এবং প্রধান কোচের সিদ্ধান্তে হস্তক্ষেপের মত কাজগুলো কেন করা হয়- এমন সব প্রশ্নের উত্তরে বাফুফে সভাপতি বলেন, ‘আমি আপনাদের সবগুলো বক্তব্য, প্রশ্ন নোট করে নিলাম। সাফে কেন ব্যর্থ হলো বাংলাদেশ- এর তদন্ত আমি নিজে করছি। নেপালের কাছে হারের পরদিনই কোচ জেমি ডে ছুটি কাটাতে দেশে চলে যান। আগামী দু’এক দিনের মধ্যেই তিনি ঢাকায় ফিরে আসবেন। কোচ আসলে তার সঙ্গে বসবো, কথা বলবো। এছাড়া সংশ্লিষ্ট অন্য সকলের সঙ্গে কথা বলবো। সবার বক্তব্য নেয়ার শেষে আমার পর্যবেক্ষণ মিলিয়ে একটা চিত্র তুলে ধরতে পারবো মিডিয়ার সামনে।’ সালাউদ্দিন আরো জানান, জাতীয় দলের জন্য নিরপেক্ষ এবং পেশাদার ম্যানেজার নিয়োগ দেয়ার ব্যাপারে বাফুফে চিন্তা-ভাবনা করছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর