Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

পাঁচ বছর পর মুখোমুখী ভারত-পাকিস্তান

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০১ এএম

দীর্ঘ পাঁচ বছর পর আন্তর্জাতিক ফুটবলে পরস্পরের মুখোমুখী হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তান। শেষবার নেপালের কাঠমান্ডুতে ২০১৩ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের গ্রæপ পর্বে মোকাবেলা করেছিল ভারত-পাকিস্তান। ‘এ’ গ্রæপের ওই ম্যাচে ভারত ১-০ গোলে জয় পেয়েছিল। এবার ঢাকায় সাফ সুজুকি কাপের সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ হয়েছে এ দুই দল। আজ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সাফ সুজুকি কাপের দু’টি সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। বিকাল ৪টায় প্রথম সেমিফাইনালে নেপালের প্রতিপক্ষ মালদ্বীপ। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় দ্বিতীয় সেমিতে পাকিস্তান খেলবে ভারতের বিপক্ষে।
টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে খেলা চার দলেরই চোখ ফাইনালে। শেষ চারে সাফল্য পেয়ে তারা লড়তে চায় শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে।
সেমিফ্ইনালের আগে গতকাল দুপুরে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন আশাবাদই ব্যক্ত করেন চার দলের অধিনায়ক ও কোচরা। সংবাদ সম্মেলনে ভারতের প্রধান কোচ ব্রিটিশ স্টিফেন কন্সটেটিন না এসে দলের কোন খেলোয়াড়কেও পাঠননি। অনুশীলনের দোহাই দিয়ে হোটেল ওয়েস্টিনেই সংবাদ সম্মেলনের প্রস্তাব দেন তিনি। কিন্তু আয়োজকরা রাজী না হওয়ায় সহকারী কোচ ও ম্যানেজারকেই পাঠানো হয় বাফুফে ভবনে। মিডিয়ার মুখোমুখী হয়ে ভারতের সহকারী কোচ ভেংকেটশ সঙ্গম পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে কোন উত্তেজনাই দেখাননি। তার কথায়,‘এটা মানছি যে, ভারত ও পাকিস্তান ম্যাচ মানেই তীব্র উত্তেজনা ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ। সে কারণে ম্যাচটি আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ এবং মর্যাদার। আশাকরি আমরা ভালো খেলবো এবং জয় পেয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করবো।’ কিন্তু পরক্ষণেই তিনি বলে বসলেন,‘আসলে এই টুর্নামেন্টে আমরা ফেভারিট নই। আমরা দল হিসেবে ভালো পারফরমেন্স করতেই এখানে এসেছি। এই দলটাকে তিন বছর ধরে গড়ে তুলেছি।’ ভেংকেটশ যোগ করেন, ‘পাকিস্তান শক্তিশালী দল। ফিজিক্যালি তারা এগিয়ে রয়েছে। আর আমাদের সব খেলোয়াড়ই অনূর্ধ্ব-২৩ দলের। যার মধ্যে অনূর্ধ্ব-২০ দলেরও চারজন রয়েছেন। তারপরও আমাদের লক্ষ্য থাকবে ভালো খেলে ম্যাচ জেতা এবং ফাইনালে খেলা।’
পাকিস্তানের ব্রাজিলিয়ান কোচ জোসে আন্থনি নোগেইরা মুখিয়ে আছেন বৈরী দেশ ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ খেলতে। তিনি বলেন, ‘যেহেতু প্রতিপক্ষ ভারত, তাই আমরা এ ম্যাচ খেলার জন্য বেশ মুখিয়ে আছি। ম্যাচ জেতার জন্যই মাঠে নামবে আমার দল। দলকে ফাইনালে পৌঁছানোর জন্য সর্বোচ্চ দিয়ে চেষ্টা করবো।’
এক দশক পর সাফের সেমিফাইনালে পাকিস্তান। তিন বছর আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে নির্বাসনে থাকার পর কোন প্রকার চাপে রয়েছেন কিনা জানতে চাইলে কোচ বলেন, ‘আমি পেশাদার লোক। এরকম পরিস্থিতি আমি আগেও মোকাবেলা করেছি। যে কারনে এটাকে চাপ বলে মনে করছি না। আমি নির্ভার হয়ে থাকতে চাই। ভালো খেলা উপহার দিতে চাই। ভারত খুবই গোছানো একটা দল। এই টুর্নামেন্টের জন্য তারা তিন বছর ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছে। তবে আমরা চেষ্টা করবো ফাইনালে খেলার।’ অধিনায়ক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। আমরা তিন বছর আন্তর্জাতিক আসর থেকে নির্বাসিত ছিলাম। স্বাভাবিকভাবেই দল ছিল অগোছালো। কিন্তু কোচ ও কর্মকর্তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে এই দলটি তৈরি হয়েছে। এ মুহুর্তে খুব ভালো অবস্থানে রয়েছি আমরা। খেলোয়াড়দের ফিটনেসও ভালো। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে আমরা খুবই রোমাঞ্চিত।’ পরিসংখ্যান বলছে তিন বছর ফুটবল থেকে বহিষ্কার থাকা পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে ভারতই। শেষ ২৩টি ম্যাচের মধ্যে ভারত জিতেছে ১০টিতে এবং পাকিস্তান তিনটি। বাকি ১০ ম্যাচ অমিমাংসিতভাবে শেষ হয়।
এর আগে নেপাল-মালদ্বীপ তাদের লক্ষ্যের কথা জানায়।
মালদ্বীপের ক্রোয়েশিয়ান বংশদ্ভুত জার্মান কোচ পিটার বলেন, ‘আমরা অতীত ভুলে যেতে চাই। কালকের (আজ) ম্যাচ নিয়েই ভাবতে চাই। আমি আত্মবিশ্বাসী ছেলেরা ভালো খেলবে।’ গ্রুপ পর্বে কোন গোল না করেও টস ভাগ্যে সেমিফাইনালে জায়গা পায় মালদ্বীপ। এ প্রসঙ্গে পিটারের ভাস্য, ‘বিশ্ব ফুটবলের বড় বড় অনেক দলই রয়েছে, যারা খারাপ সময় কাটিয়েছে। আবার পরে ভালোও করেছে। আমরা সেমিফাইনালে ভালো করতে চাই। যদিও নেপাল অনেক শক্তিশালী দল। আমি আশাবাদি সেমিফাইনালে ভালো খেলবে আমার ছেলেরা। ৯০ কিংবা ১২০ মিনিট, তারপর টাইব্রেকারে খেলতেও প্রস্তুত আমার ফুটবলাররা।’
এদিকে তিন ম্যাচে সাত গোল করে দু’ম্যাচে জিতে শেষ চারে এসেছে নেপাল। তাই সেমি পেরিয়ে ফাইনাল খেলতে আত্মবিশ্বাসী নেপালের কোচ বাল গোপাল মহারাজন। তার কথা, ‘ছেলেরা কঠোর পরিশ্রম করছে। এখন তাদের লক্ষ্য ফাইনালে খেলা। সর্বশেষ দু’ম্যাচে আমরা মালদ্বীপকে হারিয়েছি ( ৪-১ ও ৪-০ গোলে)। আমরা আত্মবিশ্বাসী কালকের (আজ) ম্যাচেও জিতে ফাইনাল খেলার ব্যাপারে।’



 

Show all comments
  • জাহিদ ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৭:২৯ এএম says : 0
    ভারত পাকিস্তানের ক্রিকেট নিয়ে মাতামাতি সম্মানজনক কিন্তু এদের ফুটবল নিয়ে এ রকম হেডলাইন মোটেও পছন্দ হয়নি আমার। কেননা এদের Ranking ফুটবলে প্রায় double century এর কাছাকাছি।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ