Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫, ১১ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

অগ্রাধিকার পাবেন দেশি উদ্যোক্তারা : শিল্পমন্ত্রী

৫৬ উদ্যোক্তা পেলেন সিআইপি কার্ড

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

১৫ শতাংশ সুদহারে শিল্প স্থাপন সম্ভব নয় -এফবিসিসিআই সভাপতি

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, দেশি উদ্যোক্তারা অগ্রাধিকার পাবেন নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চলে। তারা শিল্প স্থাপনের পর জমি ফাঁকা থাকলে তা বিদেশিদের দেওয়া হবে। নতুন নতুন শিল্প স্থাপনের জন্য তিনি ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানান। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে সিআইপি (শিল্প) ২০১৬ কার্ড বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দেশের অর্থনীতিতে ‘গুরুত্বপূর্ণ অবদানের’ স্বীকৃতি স্বরূপ ৫৬ উদ্যোক্তা পান সিআইপি (কমার্সিয়াল ইমপরটেন্ট পারসন) কার্ড। ২০১৬ সালের জন্য মনোনীতি এই ব্যক্তিরা বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে সরকারি নানা সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।
মন্ত্রী বলেন, এক সময় বাজেট প্রণয়ন করা হতো বিদেশি সহায়তার ওপর ভরসা রেখে। এখন আমরা নিজেরাই নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পেরেছি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, সরকারের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো ঠিকমতো কাজ করলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা দরকার হয় না। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শিল্প ঋণের সুদহার ৯শতাংশ করার জন্য অনেক আগেই নির্দেশনা দিয়েছেন। কিন্তু সরকারি কয়েকটি ব্যাংক ও বেসরকারি কিছু সংখ্যক ব্যাংক এ নির্দেশ মানছে। বাকিরা এখনো এ নির্দেশনা মানছেনা। তাই বর্তমান প্রেক্ষাপটে ১২, ১৪ ও ১৫ শতাংশ সুদহারে উণ নিয়ে শিল্প স্থাপন সম্ভব নয়। শফিউল ইসলাম বলেন, আগামী কয়েক বছরের সরকারের নীতি কি হবে, বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম কতো হবে, ব্যবসায়ীরা জানে না। এভাবে অন্ধকারে থেকে ব্যবসা করা কঠিন। এলএনজি দিয়ে উৎপাদিত বিদ্যুতের দাম কতো হবে তাও আমরা জানি না। যারা সমর্থ নয়, সেইসব ব্যবসায়ীদের স্বসম্মানে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য ‘এক্সিট পলিসি’ থাকা দরকার বলেও তিনি মনে করছেন। তিনি এসডিজি বাস্তবায়নে আগামীতে প্রায় ৯০০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে। তাই বিনিয়োগ পলিসিকে আরও আকর্ষণীয় করার আহ্ববান জানান এ ব্যবসায়ী নেতা।
বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমএ) সভাপতি তপন চৌধুরী বলেন, শিল্প-কারখানা চালাতে প্রতিদিন আমাদের একেকটা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে। এগুলো সব সময় সরকারের সামনে আমরা তুলে ধরতে পারি না। এফবিসিসিআই সরকারের সঙ্গে কাজ করছে। সরকারের কাছে অনুরোধ করবো, সমস্যাগুলো যেন দ্রæত সমাধান করা হয়। ‘বর্তমান বিশ্বে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে আমাদের অনেক প্রতিকূল পরিস্থিতি পাড়ি দিতে হচ্ছে’-যোগ করেন তিনি। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত শিল্প সচিব মো. আবদুল হালিম, বিজিএমইএ’র সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, বিকেএমইএ’র সভাপতি এ কে এম সেলিম ওসমান প্রমুখ।
সিআইপি কার্ড পেলেন যারা-
পদাধিকার বলে
এফবিসিসিআই’র সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ, বিসিআই এর সভাপতি এ কে আজাদ, বিজিএমইএ এর সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান, বিকেএমইএ’র সভাপতি এ কেএম সেলিম ওসমান, ফরেন ইনভেস্টরস্ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট রুপালী হক চৌধুরী, বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট সেলিমা আহমাদ, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস্ এসোসিয়েশন এর প্রেসিডেন্ট তপন চৌধুরী এবং নাসিব এর সভাপতি মির্জা নূরুল গণী শোভন।
বৃহৎ শিল্পে (উৎপাদন) বিএসআরএম স্টিলস্ লি.-এর চেয়ারম্যান আলী হোসাইন আকবর আলী, ইউনিভার্সেল জিন্স লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাছির উদ্দিন, বিআরবি কেবল ইন্ডাস্ট্রিজ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. পারভেজ রহমান, এসিআই লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. আরিফ দৌলা, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমের আলী হোসাইন, জাবের এন্ড জোবায়ের ফেব্রিক্স লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুস ছামাদ মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (নোমান), কসমোপলিটন ইন্ডাস্ট্রিজ (প্রা.) লি.-এর পরিচালক তানভীর আহমেদ, আব্দুল মোনেম লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মোনেম, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেমস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মো. আবু নোমান হাওলাদার, পাহাড়তলী টেক্সটাইল এন্ড হোসিয়ারি মিলস্ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মির্জা সালমান ইস্পাহানি, ফারিহা নীট টেক্স লি.-এর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মামুন ভূইয়া, এম আর এস ইন্ডাস্ট্রিজ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শামসুর রহমান, মেসার্স ভিয়েলাটেক্স লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কেএম রেজাউল হাসানাত, সোহাগপুর টেক্সটাইল মিলস্ লি.-এর চেয়ারম্যান আব্দুল হাই সরকার, প্যাসিফিক জিন্স লি.-এর মনোনীত মালিক পরিচালক সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর, স্কয়ার ফুড এন্ড বেভারেজ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী, পপুলার ফার্মাসিউটিক্যালস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. মোস্তাফিজুর রহমান, এনভয় টেক্সটাইল মিলস্ লি.-এর চেয়ারম্যান কুতুব উদ্দিন আহমেদ, বাদশা টেক্সটাইল লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. বাদশা মিয়া এবং মেঘনা সিমেন্ট মিলস্ লি.-এর উদ্যোক্তা পরিচালক সায়েম সোবহান।
বৃহৎ শিল্পে (সেবা) এসটিএস হোল্ডিংস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দকার মনির উদ্দীন, নাভানা রিয়েল এস্টেট লি.-এর ভাইস চেয়ারম্যান সাজেদুল ইসলাম, কনকর্ড রিয়েল এস্টেট এন্ড ডেভেলপমেন্ট লি.-এর চেয়ারম্যান এস এম কামাল উদ্দিন, জিএমই এগ্রো লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক চৌধুরী হাসান মাহমুদ এবং শেলটেক (প্রা.) লি.- এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. তৌফিক এম সেরাজ।
মাঝারি শিল্পে (উৎপাদন) আরএফএল প্লাস্টিকস্ লি.-এর পরিচালক আহসান খান চৌধুরী, প্রমি এগ্রো ফুডস্ লি.-এর চেয়ারম্যান এনামুল হাসান খান, অকো-টেক্স লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুস সোবহান, মাধবদী ডাইং ফিনিশিং মিলস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নিজাম উদ্দিন ভূইয়া লিটন, ফু-ওয়াং ফুডস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ আহমেদ চৌধুরী, এ্যাকোয়া মিনারেল টারপেনটাইন এন্ড সলভেন্টস্ প্লান্ট লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক রামজুল সিরাজ, মেসার্স সিটাডেল এপারেলস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মাহিদুল ইসলাম খান, জালালাবাদ ফ্রোজেন ফুডস্ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল জব্বার মোল্লা, বসুমতি ডিসট্রিবিউশন লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জেড এম গোলাম নবী, ইগলু ফুডস্ লি.-এর পরিচালক এ এস এম মঈনউদ্দিন মোনেম, বিআরবি পলিমার লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মজিবর রহমান এবং মোশাররফ স্পিনিং মিলস্ (প্রা.) লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মোশাররফ হোসেন।
মাঝারি শিল্পে (সেবা) স্পেক্ট্রা ইঞ্জিনিয়ার্স লি.-এর চেয়ারম্যান খান মো. আফতাব উদ্দিন, শান্ত প্রোপার্টিস লি.-এর পরিচালক জেসমিন সুলতানা এবং বিল্ডিং ফর ফিউচার লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভিরুল হক প্রবাল।
ক্ষুদ্র শিল্পে (উৎপাদন) কিয়াম মেটাল ইন্ডাস্ট্রিজ লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মিজবার রহমান, ফুজি ইংক ইন্ডাস্ট্রিজ লি.-এর চেয়ারম্যান ফারহানা মোনেম, আরএমএম লেদার ইন্ডাস্ট্রিজ লি.-এর চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ মাহিন, রানার ব্রিকস্ লি.-এর ভাইস চেয়ারম্যান মো. মোজাম্মেল হোসেন এবং সবজীয়ানা লি.-এর উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আবু শাহরিয়ার। ক্ষুদ্র শিল্পে (সেবা)কিউএনএস কনটেইনার সার্ভিসেস লি.-এর চেয়ারম্যান নুরুল কাইয়ুম খান, মাইক্রো শিল্পে টেকনোমিডিয়া লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক যশোদা জীবন দেব নাথ এবং কুটির শিল্পে এবি ফ্যাশন মেকার এর স্বত্বাধিকারী সানাউল হক বাবুল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর