Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম

’আফস্পা’ বদলের ভাবনা দিল্লীর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৬:০৪ পিএম | আপডেট : ৬:১১ পিএম, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮


বিতর্কের মুখে সেনাবাহিনীর বিশেষ অধিকার আইনে (আফস্পা) গুরুত্বপূর্ণ বদল আনার কথা ভাবছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এই আইন অনুযায়ী, উপদ্রুত এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখতে গিয়ে সেনা চাইলে আইনভঙ্গকারীদের উপর বলপ্রয়োগ, গ্রেফতার এমনকি যে কারও উপরে গুলিও চালাতে পারে।
নাগাল্যান্ড, মণিপুর, জম্মু-কাশ্মীরে দীর্ঘ সময় ধরে চালু রয়েছে আফস্পা। নয়ের দশকে অসমেও চালু হয় এই আইন। উপদ্রুত এলাকাগুলিতে সেনার হাতে এই অস্ত্র তুলে দিয়ে বিক্ষোভ ও জঙ্গি কার্যকলাপ সামাল দেওয়া হয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে তাঁর মতো করে হুঁশিয়ারি দেওয়ার পরেই বলপ্রয়োগের রাস্তা বেছে নিতে পারে সেনা। দীর্ঘদিন থেকেই অভিযোগ উঠেছে, এই আইনকে সামনে রেখে উপদ্রুত এলাকার নাগরিকদের উপরে অত্যধিক বলপ্রয়োগ করা হয়। সূত্রের খবর, আফস্পা-য় সেনার হাত থেকে জীবনহানির অধিকার কেড়ে নেওয়ার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছে কেন্দ্র।
অনেকেই মনে করেন, জীবনহানির অংশ বাদ গেলে আফস্পাকে অনেকটাই লঘু করে দেওয়া হবে। আফস্পা-য় কোনও রদবদল না করতে সেনাবাহিনীর প্রায় শ’তিনেক সদস্য সুপ্রিম কোর্টে আর্জি জানিয়েছেন। তবে মানবাধিকার কর্মীরা দীর্ঘদিন থেকেই সেনার বিশেষ অধিকারের বিরুদ্ধে সরব। মণিপুরের নেত্রী ইরম চানু আফস্পা তুলে দেওয়ার দাবিতে দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে অনশন করেছেন। দু’বছর আগে অতিরিক্ত বলপ্রয়োগের বিরুদ্ধে রায় দেয় আদালত। এই সংক্রান্ত প্রতি ঘটনা সরকারকে তদন্ত করতে বলা হয়।
স্বরাষ্ট মন্ত্রনালয় সূত্রের দাবি, উপদ্রুত এলাকায় আফস্পা প্রয়োগ করা থেকে পিছিয়ে আসার কথা ভাবছে না কেন্দ্র। সেনাকে বলপ্রয়োগ করা থেকেও আটকানোর ব্যাপার নেই। জীবনহানির ক্ষেত্রে আইন বদলের প্রস্তাব বিবেচনা করা হচ্ছে। মানুষের অভিযোগ শোনার ব্যাপারেও গুরুত্ব দেওয়ার কথা ভাবা হয়েছে। সূত্র- টিওআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ