Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

অভিবাসী কর্মী হয়রানির সুযোগ থেকেই যাচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৭:১৪ পিএম

কাতারে অভিবাসী শ্রমিকদের সুরক্ষায় শ্রম আইন সংস্কারের পরেও নতুন আইনে হয়রানির সুযোগ থেকেই যাচ্ছে। কাতারে মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে চাকরি থাকবে না। শত অন্যায় সত্তেও এদেশে মালিকই ঠিক। কাতারে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিক শরীফ রয়টার্সের সাথে আলাপকালে এ অভিমত ব্যক্ত করেছে।
নাম-পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক ২২ বছরের এই যুবক রয়টার্সকে বলেন, ‘মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করাটা ঠিক হবে না। তাহলে কোম্পানি আমাকে চাকরিচ্যুত করে বাড়ি পাঠিয়ে দিতে পারে। ‘যদি আমাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়, তাহলে আমার পরিবারকে সাহায্য করার জন্য কেউ টাকা দেবে না।’
কাতার ২০২২ ফুটবল বিশ্বকাপের আয়োজক হওয়ার পর থেকে সেদেশে অভিবাসী শ্রমিকদের হয়রানির বিষয়টি অনেকবারই খবরের শিরোনামে এসেছে। বিষয়টি নিয়ে অব্যাহত চাপের মধ্যে গত বছর শ্রমিকদের সুরক্ষায় বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। এসব উদ্যোগের মধ্যে সাময়িকভাবে মাসিক ন্যূনতম বেতন ৭৫০ রিয়াল (২০০ ডলার) এবং অভিবাসী শ্রমিকদের সমস্যার সমাধানে একটি কমিটি করা উল্লেখযোগ্য। গত সপ্তাহেও গুরুত্বপূর্ণ একটি সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিদেশি শ্রমিকদের দেশত্যাগের জন্য চাকরিদাতার অনুমতি নেয়ার বাধ্যবাধকতা তুলে নেয়া হয়, যে দাবি দীর্ঘ দিন ধরে করে আসছিল মানবাধিকার সংগঠনগুলো।
দোহায় নতুন চালু হওয়া আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও)-র অফিসের প্রধান হুতান হোমায়ুনপুর বলেন, ‘আমরা সর্ম্পকের ধরনে পরিবর্তন আনছি। এটা (দেশ ছাড়ার অনুমতি বাতিল) শ্রমিকদের অসহায়ত্ব লাঘবে বিরাট ভূমিকা রাখবে। তারা এখন মুক্ত, তারা এখন যে কোনো জায়গায় যেতে পারবে।’ বিশ্বকাপ সামনে রেখে অভিবাসী শ্রমিকদের হয়রানি বন্ধে কাতার সরকারের নেয়া পদক্ষেপগুলোকে স্বাগত জানিয়েছেন মানবাধিকারকর্মীরা। শ্রম অধিকার বিষয়ক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ইকুইডেম রির্সাচের প্রধান মুস্তফা কাদরি বলেন, এসব পদক্ষেপের বাস্তবায়নই এখন বড় চ্যালেঞ্জ।
কাতারের শ্রম বিষয়ক মন্ত্রী ঈসা আল-নুয়াইমি বলেন, সাধারণত বাইরের দেশগুলোতেই অবৈধ রিক্রুটমেন্ট ফি নেওয়া হয়। মানবপাচার বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কাজ করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। কাতারে এখন শ্রমিকদের মধ্যে স্থানীয়দের তুলনায় ২০ গুণ অভিবাসী তাদের অধিকাংশই ফিলিপাইন্স, দক্ষিণ এশিয়া ও আফ্রিকা থেকে আসা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ