Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

চলতি অধিবেশনে পাস হবে সড়ক পরিবহন আইন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

কমিটির সদস্যদের পাশাপাশি সংশ্লিষ্টদের মতামতের ভিত্তিতে সড়ক পরিবহন বিল-২০১৮ চ‚ড়ান্ত করেছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। তবে বিলে বড় ধরণের কোন পরিবর্তন আনা হয়নি। সংসদের চলতি অধিবেশনেই বিলটি পাসের সুপারিশ করা হয়েছে কমিটির বৈঠকে।
গতকাল শনিবার বিকেলে জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, কমিটির সদস্য, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, রমেশ চন্দ্র সেন, এ কে এম এ আউয়াল (সাইদুর রহমান), রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, ফয়জুর রহমান ও লুৎফুন নেছা। বৈঠকে বিশেষ আমন্ত্রণে অংশ নেন সাংবাদিক কলামিস্ট গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহসহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিরা।
বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি একাব্বর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, সংসদে উত্থাপিত বহুল আলোচিত ওই বিলটি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। যারা দীর্ঘ দিন ধরে এবিষয়ে কাজ করেন তাদের মতামত নেওয়া হয়েছে। ছোট-খাটো কিছু সংশোধনী আনা হয়েছে। ওই সংশোধনীসহ বিলটি পাসের সুপারিশ করা হয়েছে। চলতি অধিবেশনেই বিলটি পাস হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় শিক্ষার্থীদের ব্যাপক আন্দোলনের মুখে দীর্ঘ এক বছর ঝুলে থাকার পর বহুল আলোচিত ওই বলটি মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গত ১৩ সেপ্টেম্বর সংসদে উত্থাপনের পর তা অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।
সংসদে উত্থাপিত বিলে কোন ব্যক্তির বেপরোয়া ও অবহেলা জানিত গাড়ি চালানোর কারণে দূর্ঘটনা ঘটলে এবং সেই দূর্ঘটনায় কেউ আহত বা নিহত হলে সর্বোচ্চ ৫ বছর কারাদন্ড বা ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা বা উভয় দন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। বিলের ১০৫ ধারায় বলা হয়েছে, দুর্ঘটনার জন্য শাস্তি দেওয়া হবে ফৌজদারি দন্ডবিধি অনুযায়ী। দুর্ঘটনায় কোন ব্যক্তির মৃত্যু হলে ৩০২ ধারা অনুযায়ী মৃত্যুদন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। হত্যা না হলে ৩০৪ ধারা অনুযায়ী যাবজ্জীবন কারাদন্ড হবে। বিলে আরো বলা হয়েছে, ‘তবে শর্ত থাকে যে, ফৌজদারি কার্যবিধিতে যাহাই থাকুক না কেন, কোন ব্যক্তি বেপরোয়া ও অবহেলাজনিত মোটরযান চালানোর কারণে সংঘটিত দুর্ঘটনায় কোন ব্যক্তি গুরুতর ভাবে আহত হইলে বা তাহার প্রাণহানি ঘটলে উক্ত ব্যক্তি অনধিক ৫ বৎসরের কানাদন্ড বা অনধিক ৫ লাখ টাকা অর্থদন্ড বা উভয়দন্ডে দন্ডিত হইবেন’।
বিলে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালিয়ে কাউকে আহত করলে তিন বছরের কারাদন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। আর ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ট্রাফিক আইন অমান্য করলে পয়েন্ট কাটার ব্যবস্থাও থাকবে আইনে। নির্ধারিত পয়েন্টের নিচে গেলে লাইসেন্স বাতিল হয়ে যাবে। চালককে নতুন করে আবার লাইসেন্স নিতে হবে। বিলে ব্যক্তিগত গাড়ি চালনার জন্য চালকের বয়স আগের মতোই অন্তত ১৮ বছর রাখা হয়েছে। তবে পেশাদার চালকদের বয়স হতে হবে কমপক্ষে ২১ বছর।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ