Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

রাশিয়ান ফেসবুকেও মিয়ানমারের সেনাপ্রধান নিষিদ্ধ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৪:৩২ পিএম

রাশিয়ার সামাজিক গণমাধ্যম সাইট ভিকোনতাকতি (ভিকে) ফেসবুককে অনুসরণ করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী প্রধান ও একজন জাতীয়তাবাদি বৌদ্ধ ভিক্ষুকে নিষিদ্ধ করেছে। দেশটিতে মুসলিম রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ‘জাতি নির্মূল’অভিযান চালানো ও ঘৃণ্য বক্তব্য ছাড়ানোর অভিযোগে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ‘মানবতাবিরোধী’অপরাধের নিন্দা ও তীব্র সমালোচনা চলছে বিশ্বজুড়ে।

ফেসবুক তিন সপ্তাহ আগে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী প্রধান সিনিয়র জেনারেল মিন অং লাইং এবং অন্যান্য সিনিয়র অফিসারদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার সেনাবাহিনী গণহত্যা চালিয়েছে এবং এর দায়ে তাদের বিচার করা উচিত বলে জাতিসংঘের একটি তীব্র সমালোচনামূলক রিপোর্ট প্রকাশের পর এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। এরপরই ভিকে-তে একাউন্ট খোলে সেনাবাহিনী। এটাও দেখতে অনেকটা যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালি থেকে পরিচালিত ফেসবুকের মতো। তবে মিয়ানমারের ঘনিষ্ঠ মিত্র রাশিয়া থেকে ভিকে পরিচালনা করা হয়।
একাউন্ট খোলার সঙ্গে সঙ্গে সেখানে সেনাপ্রধানের ফলোয়ার সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৭,০০০। কিন্তু সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) এই পেজে প্রবেশের পর দেখা যায় – ‘ভিকে ব্যবহারের শর্ত লঙ্ঘন করায় একাউন্টটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে’- কথাটি লেখা।
ভিকে জানায় যে লাইং এবং কট্টর ভিক্ষু বিরাথুর একাউন্ট স্থায়ীভাবে ব্লক করে দেয়া হয়েছে। এদের বিরুদ্ধে ইউজারদের কাছ থেকে প্রচুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাছাড়া তাদের পোস্টগুলো মনিটর করতে বর্মীভাষী মডারেটর নিয়োগ করতে হয়েছে। ইসলাম ও বিশেষ করে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়িয়ে কুখ্যাতি অর্জন করেছেন বিরাথু। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষী বক্তব্য ছড়ানোর পর ফেসবুক গত জানুয়ারিতে বিরাথুর একাউন্ট স্থগিত করে।
৫১ মিলিয়ন জনসংখ্যার দেশটিতে ফেসবুকের ১৮ মিলিয়ন একাউন্ট রয়েছে। ফেসবুক স্বীকার করেছে যে উস্কানীমূলক বক্তব্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তারা প্রায়ই দেরি করে ফেলে। মিয়ানমার সেনাবাহিনী প্রধানের দুটি ফেসবুক একাউন্ট ছিলো। এগুলোর ফলোয়ার সংখ্যা ছিলো যথাক্রমে ১.৩ ও ২.৮ মিলিয়ন। সেনাবাহিনীর রাখাইন অভিযানের পক্ষে প্রচারণা চালাতে এগুলো ব্যবহার করা হয়। সূত্রঃ এএফপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ