Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

বামনায় অন্তঃস্বত্তা গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা

বামনা (বরগুনা) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০২ এএম

বরগুনার বামনায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষ আসমা আক্তার (৪০) নামে তিন মাসের অন্তঃস্বত্তা গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আহত হয়েছে আরো ৬ জন। এদিকে নিহতের স্বামী মাওলা মোল্লা বাদী হয়ে গত সোমবার রাতে বামনা থানায় ১০ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করে। গত সোমবার বরগুনার বামনা উপজেলার বুকাবুনিয়া ইউনিয়নের বড় যাদবপুড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বামনা থানা পুলিশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নিহত ওই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মো. হারুন আকন (৬৫), আসমা আক্তার (২৫) ও লাকী বেগম (৩৮) নামে ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। জানা গেছে, উপজেলার বড় যাদবপুড়া গ্রামের মো. মাওলা মোল্লা গং-এর সাথে মো. নিজাম আকন গং-এর দীর্ঘদিন ধরে জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। ঘটনার দিন মতি মোল্লা ধানের চারা রোপনের উদ্দেশ্যে মাঠের দিকে রওনা দিয়ে যাদবপুড়া বাজারের কাছে পৌছে। ওই বাজারে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা নিজাম আকন (৩৭)সহ ১০/১২ জন তার পথ রোধ করে এলোপাথারী লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে। এ সময় তার স্ত্রী সালমা বেগম (৪৫) এগিয়ে আসলে তাকেও তারা এলোপাথারী পিটিয়ে জখম করে। সালমা বেগম অজ্ঞান হয়ে পরলে মাওলা মোল্লার স্ত্রী আসমা আক্তার এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে নিজাম আকন ও তার দলবল তাকে লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে। লাঠির আঘাতে আসমা আক্তার ঘটনাস্থলেই মারা যায়। নিহত আসমা আক্তারের আত্মীয়রা জানায়, সে তিন মাসের অন্তঃস্বত্তা ছিলো। প্রত্যক্ষদর্শী যাদবপুরা বাজারের ব্যবসায়ি আলম সিকদার জানায়, সে দোকানে আসার আগেই দুর থেকে দুই মহিলাকে রাস্তায় অজ্ঞান অবস্থায় পরে থাকতে দেখেন। বরগুনা জেলা পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বামনা থানার অফিসার ইনচার্জ জিএম শাহ নেওয়াজকে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। বামনা থানার অফিসার ইন-চার্জ জিএম শাহ নেওয়াজ জানান, নিহতের লাশ ময়না তদন্তশেষে দাফন করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হত্যা

৪ ডিসেম্বর, ২০২০
২ ডিসেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন