Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫, ০৭ সফর ১৪৪০ হিজরী

দেশে তৈরী মিসাইল পরীক্ষা ভারতের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৮:১৩ পিএম | আপডেট : ১২:০৮ এএম, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

মহারাষ্ট্রের আহমেদনগর টেস্ট রেঞ্জে দেশে তৈরী কাঁধে বহনযোগ্য এন্টি-ট্যাংক মিসাইলের (এমপিএটিজিএম) পরীক্ষা চালিয়েছে ভারত। এর ডিজাইনও করেছে ভারতীয় প্রতিরক্ষা বিজ্ঞানীরা।
এমপিএটিজিএম হলো তৃতীয় প্রজন্মের এন্টি-ট্যাংক গাইডেড মিসাইল যাতে হাই-এক্সপ্লোসিভ এন্টি-ট্যাংক (হিট) ওয়ারহেড সংযুক্ত করা যায়। এমপিএটিজিএম’র হামলা করার সামর্থ্য ব্যাপক এবং ২.৫ কিলোমিটার দূর থেকে এটি ছোঁড়া যায় বলে দাবি করা হচ্ছে। এর ব্যালিস্টিক পারফরমেন্স যাচাইয়ের জন্য গত বছর ৮টি রকেট মর্টারের স্ট্যাটিক টেস্ট করা হয়েছিলো।
গত বছর নভেম্বরে ইসরাইলের স্পাইক-এমআর মিসাইল কেনা স্থগিত করে ভারত। দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন তখন দেশে ওই মিসাইল তৈরি করতে রাষ্ট্র পরিচালিত ডিফেন্স রিসার্স এন্ড ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও)-কে নির্দেশ দেন।
প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘২০১৮ সালের ১৫ ও ১৬ সেপ্টেম্বর দুটি মিশনে সর্বোচ্চ পাল্লাসহ বিভিন্ন পাল্লায় সফলতার সঙ্গে ক্ষেপনাস্ত্রের আঘাত হানার ক্ষমতা পরীক্ষা করা হয়েছে।’
স্পাইক-এমআর চুক্তি সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করে প্রতিরক্ষামন্ত্রণালয়ের একটি কমিটি নিজস্ব এমপিএটিজিএম তৈরির পরামর্শ দেয়। সেনাবাহিনীর যুক্তি অগ্রাহ্য করেই এই মতামত দেয়া হয়। ভারতীয় সেনাবাহিনী বলেছিলো যে, বিশেষ করে বর্তমান অপারেশনাল সিনারিওতে স্পাইক ক্ষেপনাস্ত্র নিয়ন্ত্রণ রেখায় মোতায়েন সেনাদের সামর্থ্য বহুগুণ বাড়াবে।
ইসরাইলী কোম্পানির সঙ্গে ওই চুক্তিতে ৮,৩৫৬টি ক্ষেপনাস্ত্র ৩২১টির বেশি ল্যান্সার কেনার কথা ছিলো। একই সঙ্গে ভারতের রাষ্ট্রয়ত্ব প্রতিষ্ঠান ভারত ডিনামিকস লিমিটেডে প্রাথমিকভাবে প্রযুক্তি স্থানান্তর করে এগুলো বানানো হতো। আমেরিকার জাভেলিন ক্ষেপনাস্ত্রের পরিবর্তে স্পাইক-এমআর বেছে নেয়া হয়। এসব ক্ষেপনাস্ত্রের পাল্লা ৪ কিলোমিটার এবং তা ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ প্রকল্পের আওতায় তৈরি করার কথা ছিলো।
ভারত সরকারের সূত্র এই পত্রিকাকে জানিয়েছে যে চলতি বছরের শেষ নাগাদ ইউজার ট্রায়ালের জন্য প্রথম এমপিএটিজিএম প্রোটটাইপ সেনাবাহিনীকে হস্তান্তর করা হতে পারে। ২০২১ সাল নাগাদ এই ক্ষেপনাস্ত্রের ব্যাপক উৎপাদন শুরু হতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ