Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫, ১১ সফর ১৪৪০ হিজরী

মুমিনুলের নতুন যাত্রা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৬ এএম

গায়ে লেগেছিল টেস্ট ক্রিকেটারের তকমা। ঘুরে ঘুরে তাই ডাক পড়ত কেবল সাদা পোশাকের দলে। গত ওয়ানডে বিশ্বকাপের দলে ছিলেন। সেখানেই খেলছেন সর্বশেষ ওয়ানডে। এরপর রঙিন পোশাকে ব্রত্য হয়ে পড়া মুমিনুল হক এশিয়া কাপ দিয়ে ফেরেন ওয়ানডে দলে। সাড়ে তিন বছর পর এবার জায়গা পেলেন একাদশেও।

টেস্টের মতো মুমিনুলের ওয়ানডে রেকর্ড অতটা আলো ঝলমলে নয়। ২৬ ওয়ানডে খেলে ২৩.৬০ গড়ে করেছেন ৫৪৩ রান। তিন ফিফটি করলেও এই ফরম্যাটে সেঞ্চুরির দেখা পাননি এখনো। তবে সীমিত পরিসরের ক্রিকেটেও যে তিনি যথেষ্ট কার্যকর ঘরোয়া পর্যায়ে অনেকবারই মিলেছে সে ইঙ্গিত। ‘এ’ দলের হয়ে সর্বশেষ আয়ারল্যান্ড সিরিজে ১৮২ রানের ইনিংস খেলেছেন। এরপরই নতুন করে আলোচনায় আসা শুরু তার।

গতকাল আফগানিস্তানের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের অর্থহীন ম্যাচে বিশ্রামে থাকা মুশফিকুর রহিমের জায়গায় মিডল অর্ডারেই সুযোগ পান এই বাঁহাতি। সামর্থ্য নিয়ে সংশয় নেই। তবে মুমিনুলের এবারের সুযোগ পাওয়া একটা বড় পরীক্ষার মতই। যদি উৎরে যান (এতক্ষণে যেনে গেছেন) তাহলে সামনে হয়ত প্রসারিত হবে সীমিত ওভারের বড় দরজা। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ সামনে রেখে মূল পরিকল্পনায়ও চলে আসতে পারেন তিনি।

আবুধাবির শেখ আবু জায়েদ স্টেডিয়ামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচটা একেবারেই অর্থহীন। জেতা-হারায় টুর্নামেন্টের প্রেক্ষিতে কিছু যায় আসে না। আরও যেকোনো একটা আন্তর্জাতিক ম্যাচ বলেই হয়ত হারতে চাইবে না দল। তবে মুমিনুলের কাছে এই ম্যাচটি ভীষণ দামি। নিজেকে প্রমাণের মঞ্চ, আলোতে নিয়ে আসার সুযোগ।

এমন ম্যাচে মনস্তাত্তি¡ক দিক থেকেও বাড়তি সুবিধা পাচ্ছেন ২৬ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান। দলের কাছ থেকে নেই কোন চাপ। পরিস্থিতি দিচ্ছে নির্ভার খেলার লাইসেন্স। মরুভূমির বুকে অদ্ভুত সুন্দর স্থাপত্য শৈলী নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আবু জায়েদ স্টেডিয়াম। মরুর বুকে যেন ফুল। মুমিনুলকেও ব্যাট হাতে এই মাঠে ফুটাতে হবে ফুল।

এই ম্যাচে প্রমাণের সুযোগ পেয়েছেন আরো দু’জন। অন্তত একজনের অভিষেক হচ্ছে, সেটা আগে থেকেই অনুমিত ছিল। নাজমুল হোসেন শান্ত খেলছেন আঙুলের ইনজুরিতে পড়ে দেশে ফিরে যাওয়া তামিম ইকবালের জায়গায়, সেটা জানা ছিল আগেই। গতকাল আরেকজনেরও অভিষেক হয়ে গেছে আফগানিস্তানের বিপক্ষে, টানা খেলার ধকল সামলাতে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে দলের ইনজুরিপ্রবণ পেসার মোস্তাফিজুর রহমানকে। তার জায়গায় অভিষেক হয়েছে আবু হায়দার রনির। এছাড়া মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের জায়গায় আরিফুল হককে একাদশের নেওয়ার ভাবনা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা থেকে সরে আসে টিম ম্যানেজমেন্ট। মোসাদ্দেককে আরও সুযোগ দেওয়ার পক্ষেই তারা।

প্রায় ১ বছর ৯ মাস পর অন্তত দু’জনের একই সাথে অভিষেক হচ্ছে ওয়ানডেতে। ২০১৬ সালের ২৯ ডিসেম্বর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নেলসনে একই সঙ্গে তিন জনের ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিল বাংলাদেশের। পেসার শুভাশীষ রায়, উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান ও লেগ স্পিনিং অলরাউন্ডার তানভীর হায়দারের ডেব্যু হয়েছিল ওই ম্যাচে। এর মধ্যে শুভাশীষ আর ওয়ানডে খেলারই সুযোগ পাননি, নুরুল ও তানভীর পরে খেলতে পেরেছেন একটি করে ওয়ানডেতে। তার আগে ২০১৫ সালের ১৮ জুন একই সঙ্গে ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিল লিটন দাশ ও মুস্তাফিজুর রহমানের।

আবু হায়দার রনি অবশ্য এর মধ্যে টি-টোয়েন্টিতে খেলেছেন। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওই সিরিজেই টেস্ট অভিষেক হয়ে গিয়েছিল শান্তর। ম্যাচ শুরুর আগে রনির মাথায় ক্যাপ তুলে দিয়েছেন মাশরাফি, অন্যদিকে শান্তকে ক্যাপ পরিয়ে দিয়েছেন সাকিব।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর