Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ০১ পৌষ ১৪২৫, ৭ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

ঝড়ের কবলে আনোয়ারা উপকূলের তিনটি ট্রলার, নিখোঁজ ১১ মাঝিমাল্লা

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ২:৫৬ পিএম

প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপকূলের মাছ ধরার দুইটি ট্রলার সাগরে ডুবে গেছে। ওই দুইটি ট্রলারের মাঝিমাল্লারা উপকূলে ফিরে এলেও অপর একটি ট্রলারের ১১ জন মাঝিমাল্লা এখনো নিখোঁজ আছেন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, গত বুধবার বঙ্গোপসাগরে নি¤œচাপ ওঠায় দক্ষিণ সরেঙ্গার আবদুল খালেক ও পূর্ব গহিরার এয়ার মোহাম্মদের ট্রলার সাগরে ডুবে যায়। ওই ট্রলারের মাঝিমাল্লাদের উদ্ধার করে উপকূলে নিয়ে আসেন অন্য নৌকার মাঝিমাল্লারা।
তবে, এখনো খোঁজ মেলেনি জুঁইদন্ডী ইউনিয়নের এফবি মুনিরুল মোস্তফা নামের একটি মাছ ধরার ট্রলার ও ১১ মাঝিমাল্লার। ওই ট্রলারের মাঝিমাল্লারা মঙ্গলবার সকালে সাগরে মাছ ধরতে যান। নিখোঁজ মাঝিমাল্লারা হলেন মাঝি মো. মনি (৪৫), ইঞ্জিনচালক মো. মোকতার (৩০), মো. খোকন (৩২), মো. ফোরকান (৩৫), ছৈয়দ হোসেন (৩৫), বাবুল হক (৪০), মো. নাছির (৩২), মেজর (৩০), নুর আহমদ (৫০), মো. হাসান (২৮) ও বাবুর্চি আবদুল খালেক (৩৫)। তাঁদের সবার বাড়ি উপজেলার রায়পুর ও জুঁইদন্ডী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে বলে জানা গেছে।
সাগরে নিখোঁজ খোকনের ছোট বোন মুক্তা আখতার বলেন, এখনো ভাইয়ের খোঁজ পাইনি। জানিনা ভাই কোথায় আছে, কেমন আছে।
ট্রলার নিখোঁজের ব্যাপারে এফবি মুনিরুল মোস্তফার মালিক হাফেজ এম এ মান্নান বলেন, গত মঙ্গলবার সকালে ট্রলারটি মাছ ধরতে যায়। কিন্তু ওই ট্রলার ও মাঝিমাল্লার খোঁজ এখনো পাইনি। বিভিন্নভাবে খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছি।
জানতে চাইলে গহিরা ফিশিং ট্রলার মালিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি আবদুল মান্নান জানান, বুধবারের দিকে ঝড়ের কবলে পড়ে দুইটি ট্রলার ডুবে গেলেও মাঝিমাল্লারা ফিরে এসেছে। তবে আরেকটি ট্র্রলারের ১১ জন মাঝিমাল্লা এখনো ফিরে আসেনি।
আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ ট্রলার নিখোঁজের ব্যাপারে থানায় সাধারণ ডায়েরী (জিডি) হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ