Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

মিথ্যা মামলায় ফাঁসাতে প্রতারণা

পোস্ট মাস্টারের কান্ড!

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৪ এএম

ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উজেলার ছাগলদী গ্রামের শহিদুল খোকনের বিরুদ্ধে একটি তালাক নামার পোস্ট ডাকের তারিখ পরিবর্তন করে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জানা যায়, শহিদুল ইসলাম খোকন গত ২৫ জানুয়ারি ২০০৯ সালথা মাঝারদিয়া ইউনিয়নের কাজী মাওলানা কামরুজ্জামানের কাছে সালথা থানার মাঝারদিয়া গ্রামের তাহমিনা আক্তার শিল্পীর বিয়ে হয়। স্ত্রী পরকীয়ায় আসক্ত হওয়ায় খোকন গত ৩ জানুয়ারি ২০১৮ নগরকান্দা পৌরসভার কাজী মাওলানা মো. সাইফুর রহমানের মাধ্যমে তালাকনামা রেজিস্ট্রি করেন। এই তালাকনামা কাজী সাইফুর রহমান গত ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ বাউশখালী অফিসে রেজিস্ট্রি করেন। ডাকের মাধ্যমে মাঝদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বরাবর এবং শহিদুল ইসলাম খোকনের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার শিল্পী বরাবর পাঠানো হয়। পোস্ট অফিস থেকে সেই পত্র ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ খামে সীলসংযুক্ত করে ডাকে প্রেরণ করে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে খোকনের স্ত্রী শিল্পী বাদী হয়ে ফরিদপুর কোর্টে যৌতুক মামলা করেন। এই মামলার সুবিধার্থে মামলার বাদীপক্ষ পোস্ট মাস্টার হেমায়েতকে দিয়ে ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখ পরিবর্তন করে ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখ করে। এ ব্যাপারে খোকন বলেন, আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসাতেই এটা করা হয়েছে। ওই মামলার আসামি শহিদুল ইসলাম খোকন কোর্টে নিয়মিত হাজিরা দিয়ে যাচ্ছে। যার প্রমাণ সাংবাদিকরা সরেজমিনে তদন্ত করে পেয়েছে।
এ বিষয়ে সরেজমিন সালথা থানার বাউশখালী পোস্ট অফিসে গেলে জানা যায় সঠিক তথ্য। সেখানে পোস্ট মাস্টারের দায়িত্বে থানা হেমায়েত ভিডিও সাক্ষাতকারে জানান। ৩৩০ ও ৩৩১ কোড নাম্বারের ০৮-০২-২০১৮ ইং তারিখে যে এডি রেজিস্ট্রি হয়েছে সেটি সঠিক এবং ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ যে এডি রেজিস্ট্রি হয় সেটিও সঠিক এবং দুইটি তারিখে দুটি এডি তে যে স্বাক্ষর রয়েছে সেটি আমার স্বাক্ষর। সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন যে, তাহলে একই কোডের দুইটি এডির তারিখ ভিন্ন কিভাবে হলো। তিনি জানালেন আমি ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ প্রেরণ করেছি। সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলেন তাহলে এই জাল কিভাবে হলো। তার কোনো যথাযথ উত্তর তিনি দিতে পারেননি। সেখানেই তিনি সাংবাদিকের বিষয়টি নিয়ে সংবাদ পরিবেশন না করার জন্য অর্থ সুবিধা দেয়ার প্রস্তাব করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ