Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ৫ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

পদ্মা-মেঘনায় ইলিশের আকাল

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁদপুর থেকে : | প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

ভরা মৌসুমেও ইলিশের দেখা মিলছে না চাঁদপুর পদ্মা-মেঘনায়। নদীতে ইলিশ না পেয়ে খালি হাতেই ফিরছে জেলেরা। চাঁদপুর নৌ-সীমানায় বড় সাইজের ইলিশ ধরা পড়ছে না বলে জানান তারা। জেলেরা জানায়, এখন ইলিশের ভরা মৌসুম। অন্যান্য বছর এ সময়ে পদ্মায় অনেক ইলিশ পাওয়া গেলেও এবার তা নেই। সাগরে আহরিত ইলিশে ভরপুর চাঁদপুর মাছঘাট। গত ক’দিনে হাজার হাজার মন ইলিশ বিভিন্ন আড়তে এসেছে, যার সবগুলোই সাগরের।
সরেজমিনে চাঁদপুর মাছঘাটে দেখা যায়, সাগর থেকে আমদানি বিভিন্ন সাইজের ইলিশ স্তুপ করে রাখা হয়েছে। বরফ দিয়ে প্যাকেটজাত করে ঢাকা চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো হচ্ছে। গত ক’দিন ধরে নৌকা এবং ট্রলারে করে সাগরের বিভিন্ন সাইজের ইলিশ নিয়ে জেলেরা ঘাটে আসে।
মাছের সাইজ, তাজা নাকি বরফ দেয়া এ হিসেবে মাছের দাম উঠানামা করছে। ঘাটে মাছের দাম কম হবে এ আশায় অনেকে মাছ কিনতে এসে দাম শুনে হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরছে। এখনো মধ্যম আকারের ইলিশের কেজি ৭শ’ থেকে ৮শ’ টাকা। তবে আকারে ছোট সাইজের কেজি প্রতি সাড়ে ৩শ’ থেকে সাড়ে ৪শ’ টাকা। এক থেকে দেড় কেজি ওজনের ইলিশের কেজি এক হাজার ২শ’ থেকে এক হাজার ৫শ’ টাকা। দূর দূরান্ত থেকে মাছ ঘাটে ইলিশ কিনতে আসা ক্রেতাদের অনেক সময় সাগরের ইলিশকেই চাঁদপুরের ইলিশ বলে চালিয়ে দেয়া হয়।
রব চোকদারের আড়তের পাশে মাছ বিক্রেতা খন্দকার মুকবুল হোসেন বলেন, ভর সিজন (ভরা মৌসুম) হওয়া সত্তেও ইলিশের দাম কমেনি। হাজী আঃ মালেক খন্দকার, মিজানুর রহমান কালু ভূঁইয়া, হাজী শবে বরাত, ইকবাল বেপারী, কুদ্দুছ খাঁ ও উত্তমদের আড়তে হাতিয়া এবং দৌলত খাঁ থেকে আসা প্রচুর ইলিশ ক্রয়-বিক্রয় হয়েছে। আড়ত থেকে ইলিশ কিনে প্যাকেটজাত করে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
দৌলত খাঁর মাছ বেপারী ইউসুফ ও হাতিয়ার মফিজ মাঝি জানান, ১৩ থেকে ১৪ মন মাছ খন্দকারের আড়তে দিয়েছেন। ২৩ হাজার টাকা মণ দরে বিক্রি করেছেন তিনি। এসব ইলিশ সাগরের। ভোলার নদীতে এখন তুলনামূলক ইলিশ নাই।
ইলিশ আমদানিতে কেনো মাছের দাম কমছে না-এমন প্রশ্নের জবাবে চাঁদপুর মৎস্য বণিক সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী শবে বরাত সরকার জানান, শনিবার চাঁদপুর ঘাটে এক থেকে দেড় হাজার মন ইলিশ ক্রয়-বিক্রয় হয়েছে। আগের চেয়ে ইলিশের দাম কমেছে বলে দাবি করেন তিনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর