Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৪ পৌষ ১৪২৫, ১০ রবিউস সানী ১৪৪০ হিজরী

নবজাতকের দুই খন্ড হাসপাতালে বাকি খন্ড ডাস্টবিনে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১:০৫ এএম

নবজাতকের দুই খন্ড হাসপাতালে বাকি খন্ড ডাস্টবিনে। অবাক হলেও এমন নির্মম ঘটনা ঘটেছে কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। ফাতেমা বেগম নামের এক প্রসূতির গর্ভের নবজাতককে তিন খন্ড করে ফেলেছেন দুই নার্স। নবজাতকের দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে ফেলে রাখা হয় ডাস্টবিনে। এ অবস্থায় প্রসূতির জীবন সংকটাপন্ন হয়ে পড়লে পেটে সন্তানের মাথার অংশ রেখে তড়িঘড়ি করে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক অপারেশন করে রোববার ওই প্রসূতির গর্ভ থেকে সন্তানের মাথার অংশ বের করেন। বর্তমানে প্রসূতির অবস্থা আশঙ্কাজনক।
রোগীর স্বজনরা জানান, উপজেলার লক্ষীপুর গ্রামের রিকশাচালক সেলিম মিয়ার স্ত্রী প্রসূতি ফাতেমা বেগম (৩০) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী সার্জন ডা. নীলা পারভীনের তত্ত্বাবধানে স্থানীয় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়মিত রোগী ছিলেন।
গত শনিবার দুপুর দেড়টায় ওই চিকিৎসকের কাছে আসলে তিনি আলট্রাসনোগ্রামসহ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানান রোগীর অবস্থা ভালো নয়, ভালো কোনো হাসপাতালে তার জরুরি চিকিৎসা প্রয়োজন। পরে রোগীর স্বজনরা দুপুর আড়াইটায় দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইমার্জেন্সির দায়িত্বে থাকা ডা. রোমানা পারভীনের তত্ত্বাবধানে ভর্তি করান।
রাতে দায়িত্বরত দুইজন সিনিয়র নার্স আছিয়া আক্তার, ঝরনা বেগম ও আয়া জেসমিন আক্তার ডলি প্রসবের চেষ্টা করে নবজাতকের হাত ও নাড়িভুঁড়ি ছিঁড়ে বের করে আনলেও মাথা বের করতে পারেননি।
পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন এবং ওই নার্স ও আয়া খন্ডিত দেহ ফেলে দিয়ে বিষয়টি অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালান। গতকাল সকাল ৯টায় পথচারীরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশিক্ষণ ভবনের পাশে ওই নবজাতকের খন্ডিত একটি হাত ও নাড়িভুঁড়ি পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয়। সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম প্রচার হলে শত শত লোকজন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভিড় করতে থাকেন।
চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটলেও দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বশীল মেডিকেল অফিসার আহসানুল হক ও ডা. নীলা পারভীন কিছুই জানেন না বলে দাবি করেছেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আহাম্মদ কবীর বলেন, নার্সদের আয়ত্তের বাইরে থাকার পরও ডেলিভারির চেষ্টা করা, কারোর সহযোগিতা চাওয়া বা না জানিয়ে ঘটনাটি গোপন করার চেষ্টা, যা কোনোভাবেই পেশাগত দায়িত্বে পড়ে না। তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



 

Show all comments
  • Mohammad Maniruzzaman ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১১:১৭ এএম says : 0
    ডাক্তার নার্সরা কসাই হলো কেনো? কারণ নইতিক শিক্ষা নাই বলে সবাই লোভী হয়েছে । আইনের শাসন না থাকায় আজ কোনো জবাবদিহিতা নেই । সরবোচ্চ থেকে নিম্ন স্তর সব খানেই কেবল দূরনীতি । তাই নতুন দিনের জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে । Sorry for wrong typing. I am not good in Bangla typing.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ