Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ৬ বৈশাখ ১৪২৬, ১২ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

ভাইরাস থেকে মুখের আলসার, জ্বালাপোড়া

ডাঃ মোঃ ফারুক হোসেন | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

বার্নিং মাউথ সিনড্রোম হল একটি ব্যথাযুক্ত হতাশজনক অবস্থা যার কারণে জিহ্বা, ঠোঁট, তালু অথবা পুরো মুখেই জ্বালাপোড়া ও ব্যথা হতে পারে। নারী এবং পুরুষ উভয়েরই এই বার্নিং মাউথ সিনড্রোম হতে পারে। তবে বিশেষত মেয়েদের মেনোপজের সময় বা মেনোপজের পরে বার্নিং মাউথ সিনড্রোম বেশি দেখা যায়। এ রোগটি অল্প বয়সেও হতে পারে। বার্নিং মাউথ সিনড্রোম এর লক্ষণসমূহ ঃ * মুখ, ঠোঁট ও জিহ্বার জ্বালাপোড়া অনুভূত হওয়া। * মুখের অভ্যন্তরে পুড়ে যাওয়ার মত অনুভূতি হতে পারে। * শুল্ক মুখ * তিক্ত বা ধাতব স্বাদ * জিহ্বার স্বাদ * জিহ্বার স্বাদ-এ পরিবর্তন * খাওয়ার অভ্যাসে পরিবর্তন।
যেসব ক্ষেত্রে বার্নিং মাউথ সিনড্রোম হতে পারে সেগুলো হলোঃ * শুল্ক মুখ * ওরাল ক্যান্ডিডোসিস (একটি ফাংগাল সংক্রমণ) * দাঁত কামড়ানো * যে সব ¯স্নায়ু ব্যথা ও স্বাদ নিয়ন্ত্রণ করে তা কোন কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হলে * কৃত্রিম দাঁত বা ডেনচার ঠিকভাবে স্থাপন করা না হলে * এলার্জিজনিত সমস্যা যেমন কোন রোগীর খাবার বা মেটালিক ডেনচারের প্রতি এলার্জি থাকতে পারে * এসিড উদগীরণের কারণে * দুঃশ্চিন্তা বা হতাশার কারণে অর্থাৎ যে কোন ধরণের মানসিক সমস্যা।
বার্নিং মাউথ সিনড্রোম এর রোগীদের যা করা প্রয়োজন- * অল্প অল্প করে প্রচুর পানি পান করতে হবে * গলায় কোন সমস্যা না থাকলে বরফ কুচি চোষা যেতে পারে পরিমিতভাবে * গরম ও মশলাযুক্ত খাবার গ্রহণে বিরত থাকতে হবে * চিনিবিহীন চুয়িংগাম চোষা যেতে পারে। * এ্যালকোহল এবং ধূমপানের অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে * উচ্চ রক্তচাপ যদি থাকে তাহলে এর ওষুধে পরিবর্তন প্রয়োজন হতে পারে। তবে মুখ ও জিহ্বায় জ্বালাপোড়া দেখা দিলে এবং তা যদি দীর্ঘস্থায়ী হয় তবে অতি দ্রুত এ বিষয়ে অভিজ্ঞ একজন মুখ রোগ বিশেষজ্ঞের চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে।

ডাঃ মোঃ ফারুক হোসেন
মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ
মোবাইল ঃ ০১৮১৭৫২১৮৯৭
ই-মেইল ঃdr.faruqu@gmail.com



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মুখের আলসার
আরও পড়ুন