Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬, ১৮ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

অ্যামেরিকা-ক্যানাডা-মেক্সিকো বাণিজ্য চুক্তি নভেম্বরে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:৪২ পিএম

শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দরকষাকষি চালিয়ে উত্তর অ্যামেরিকার ৩টি দেশ নাফটা চুক্তির পরিবর্তে এক মুক্ত বাণিজ্য কাঠামো সম্পর্কে ঐকমত্যে পৌঁছেছে৷ আগামী নভেম্বর মাসে এই চুক্তি সাক্ষরিত হবার কথা৷
‘অ্যামেরিকা ফার্স্ট' নীতির আওতায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্বায়নের অর্জনগুলিকে যেখানেই সম্ভব বাতিল করার চেষ্টা চালিয়ে আসছেন৷ বহুপাক্ষিক চুক্তির বদলে দ্বিপাক্ষিক বোঝাপড়াই তাঁর পছন্দ৷ তিনি ক্ষমতায় আসার আগে অতীতের প্রশাসনগুলি অ্যামেরিকার স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে আন্তর্জাতিক চুক্তি স্বাক্ষর করেছে, এমনটাই তিনি অভিযোগ করে থাকেন৷ এই মনোভাবের কারণে তিনি একতরফাভাবে ১৯৯৪ সালে স্বাক্ষরিত উত্তর অ্যামেরিকার বাণিজ্য চুক্তি ‘নাফটা' বাতিল করেছিলেন৷ এবার নতুন করে দরকষাকষি চালিয়ে ‘অ্যামেরিকার স্বার্থ' রক্ষা করে আবার সেই জোটে যোগ দিতে রাজি হয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন৷
মেয়াদ অনুযায়ী রবিবার রাতের মধ্যেই এ ক্ষেত্রে ঐকমত্যের প্রয়োজন ছিল৷ তা না হলে অ্যামেরিকাকে ছাড়াই ক্যানাডা ও মেক্সিকো দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি কার্যকর করতে বদ্ধপরিকর ছিল৷ ওয়াশিংটনও মেক্সিকোর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের হুমকি দিচ্ছিল৷ অনেক আলাপ-আলোচনার পর ক্যানাডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর প্রতিনিধিরা শেষ মুহূর্তে ত্রিপাক্ষিক চুক্তি সম্ভব করলেন৷ নতুন এই বোঝাপড়ার নামও বদলে ফেলা হয়েছে৷ অংশগ্রহণকারী ৩ দেশের নামের আদ্যাক্ষর অনুযায়ী নতুন চুক্তির নাম ‘ইউএসএমসিএ’৷ অ্যামেরিকা ও ক্যানাডার প্রতিনিধিদের যৌথ বিবৃতি অনুযায়ী, এই চুক্তির ফলে আরো উন্মুক্ত বাজার, আরো ন্যায্য বাণিজ্য এবং আরো মজবুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি সম্ভব হবে৷ সেইসঙ্গে বিশেষ করে মধ্যবিত্ত শ্রেণি লাভবান হবে, ন্যায্য শর্তে কর্মসংস্থান বাড়বে৷ উত্তর অ্যামেরিকার প্রায় ৫০ কোটি মানুষের উপকার হবে৷ আগামী নভেম্বর মাসের শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হবার কথা৷ তবে তার আগে মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদনের প্রয়োজন৷
যে কোনো বহুপাক্ষিক চুক্তির মতো এ ক্ষেত্রেও সবপক্ষকেই কিছু না কিছু ছাড় দিতে হয়েছে৷ যেমন, ক্যানাডা তার কাঠ শিল্পের স্বার্থ রক্ষা করতে পারলেও মার্কিন দুধ আমদানির ক্ষেত্রে সে দেশকে সীমান্ত উন্মুক্ত করতে হচ্ছে৷ মার্কিন গাড়ি বিক্রির ক্ষেত্রেও ক্যানাডাকে আরো উদার হতে হচ্ছে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকেও এমন কিছু আপোশ মেনে নিতে হয়েছে৷ তবে ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানির ক্ষেত্রে ক্যানাডার সঙ্গে কোনো বোঝাপড়া সম্ভব হয়নি৷ ফলে ক্যানাডাকে বাড়তি শুল্ক দিয়ে যেতে হবে৷
রবিবার স্বাক্ষরিত এই ত্রিপাক্ষিক চুক্তির সব খুঁটিনাটি বিষয় বিশ্লেষণ করার কাজ এখনো চলছে৷ তবে ট্রাম্প যে আসন্ন সংসদ নির্বাচনের ঠিক আগে এই উদ্যোগকে নিজের সাফল্য হিসেবে তুলে ধরবেন, এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ সূত্রঃ সিএনএন।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ