Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬, ১৮ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে ইনকাম (পর্ব- ১)

মো. ইকরাম | প্রকাশের সময় : ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৯:০৩ এএম | আপডেট : ১:১২ পিএম, ৪ অক্টোবর, ২০১৮

অনলাইনের এ যুগে বেকার শব্দটি বড্ড বেশি বেমানান। কারণ অনলাইন সারা বিশ্বকে নিয়ে এসেছে আপনার ঘরের কোণে। এখন ঘরে বসেই বিদেশে বসবাস করা আপনজনদের সাথে ভিডিও কথোপকথন করা সম্ভব হচ্ছে, যা আজ থেকে মাত্র তিন বছর আগেও মানুষের কাছে অসম্ভব এবং অবিশ্বাস্য মনে হতো। বিষয়টি এখন গ্রামের স্বল্প শিক্ষিত মানুষের কাছেও অতিপরিচিত। যোগাযোগব্যবস্থার একটি বিশাল মাধ্যম হচ্ছে ইন্টারনেট। ইন্টারনেটের এই উন্নত যোগাযোগব্যবস্থার ফলে সারা বিশ্ব আজ ছোট হয়ে গেছে এবং এসেছে বিশাল বড় পরিবর্তন। সারা বিশ্বে ছোট ছোট কোম্পানির পাশাপাশি বড় কোম্পানিগুলোও ভাবতে শুরু করেছে, তাদের কাজের জন্য সব স্টাফকে অফিসে বসানোর দরকার নেই। খরচ কমানোর পরিকল্পনায় তারা সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে কাজের জন্য লোক নেওয়া শুরু করল, যারা অফিসে না এসে অন্য দেশে ঘরে বসেই সব কাজ করতে পারবেন। অনলাইন বিষয়টিকে এতই সহজ করে দিল, যার জন্য এখন আর প্রয়োজন হচ্ছে না নিজের দেশ ত্যাগ করে, নিজের পরিচিত পরিবেশ, বন্ধু-আত্মীয়স্বজনকে ত্যাগ করে দূরে চলে গিয়ে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়া। ঘরে বসেই মানুষ এখন বড় বড় কোম্পানিতে চাকরি করছে। দিনে দিনে এ সংখ্যা আরও বাড়ছে, সামনে আরও বাড়বে। কারণ অনলাইনে কাজ করতে গিয়ে এখনো যেসব বাধা আছে, সেগুলোও ধীরে ধীরে দূর হয়ে যাচ্ছে। অনলাইনে বসে এ রকম কাজ করে যারা নিজেদের ক্যারিয়ারকে গড়ে তুলেছেন, তাদেরই ফ্রিল্যান্সার বলে। আর এ ধরনের কাজকেই ফ্রিল্যান্সিং বলে।

ওপরের কথা থেকে বুঝেছি, ফ্রিল্যান্সিংটা আসলে কী? যদি সত্যিকারভাবেই ওপরের অংশ থেকে বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে থাকেন, তাহলে হয়তো মানুষের মধ্যে চলে আসা ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে ভুল ধারণাটি দূর হবে।
ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে প্রচলিত কয়েকটি ভুল ধারণা
১. কোথাও কোনোভাবে আয় করতে পারছে না, তাহলে শেষ গন্তব্য ফ্রিল্যান্সিং।
২. ফ্রিল্যান্সিং মানেই আপওয়ার্ক, ইল্যান্স ইত্যাদি জায়গায় কাজ করা।
৩. ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য খুব বেশি যোগ্যতার দরকার নেই।
৪. ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য অসাধারণ গুণের অধিকারী হতে হয়।
৫. ফ্রিল্যান্সিং চাকরি কিংবা পড়ালেখার পাশাপাশি পার্টটাইম চাকরি হতে পারে, ফুলটাইম নয়।
৬. চাকরিতে সব সময় টাকা আসার নিশ্চয়তা থাকলেও ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্ষেত্রে বিষয়টা অনিশ্চিত।
৭. বিদেশিদের মতো ইংরেজি না জানলে ফ্রিল্যান্সার হওয়া যাবে না।
৮. পড়ালেখা না জেনেও ফ্রিল্যান্সিং করা যাবে।
৯. ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার জন্য সাত দিন কিংবা এক মাসের প্রস্তুতি যথেষ্ট।
১০. ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার জন্য নিজের নামে পেপ্যাল অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে।
১১. ফ্রিল্যান্সিং শিখতে হলে ট্রেনিং সেন্টারে যেতে হবে।
১২. সায়েন্সের স্টুডেন্ট না হলে ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আয় করা যায় না।
ফ্রিল্যান্সিংকে আরও বেশি জনপ্রিয় করতে হলে এ বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা দরকার। সাধারণত ইন্টারনেট থেকে আয়ের অনেক পথ আছে, আবার প্রতারণার ফাঁদও আছে। তাই সাবধানতার সঙ্গে বুঝেশুনে আপনাকে পথ চলতে হবে। অভিজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে পথ চললে সফল হতে পারবেন। এখন চাকরি না পেলে বিদেশ যাওয়ার প্রয়োজন হয় না। ঘরে বসেই মাসে ১৫ হাজার থেকে লাখ টাকার বেশি আয় করা সম্ভব ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে। আমরা ধারাবাহিকভাবে অনলাইন আয়ের বিভিন্ন উপায় নিয়ে এ আর্টিকেলটি লিখতে থাকব। তবে এক ক্লিকে এক কোটি ডলার বা সাইনআপ করেই ৫০ হাজার ডলার নিয়ে নিন, এমন কিছু এখানে পাবেন না। প্রথম পর্বেই বলে নিচ্ছি, যারা রাতারাতি বড়লোক হতে চান, তারা মূল্যবান সময় নষ্ট করবেন না এ ধারাবাহিক লেখাটি পড়ে। মনে রাখবেন, পিটিসি, অ্যাড ক্লিকের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন ক্ষণস্থায়ী এবং অনেক সময় এটি প্রতারণার একটা অভিনব পদ্ধতি।

ফ্রিল্যান্সিংয়ে সফল হওয়ার প্রয়োজনীয় যোগ্যতা

freelancing
— টাকা নয় কাজকে ভালোবাসতে হবে।
— ফ্রিল্যান্সিংকে শুধু পার্টটাইম হিসেবে নয়, ফুলটাইম ক্যারিয়ার ভাবা শুরু করতে হবে।
— কমিউনিকেশন দক্ষতা ফ্রিল্যান্সিংয়ের সফলতা অনেক বাড়িয়ে দেয়।
— ইংরেজিতে যত ভালো হবেন, তত বেশি সফল হবেন।
— যত বেশি দক্ষ হবেন, সফল হতে পারবেন তত বেশি।
— সব সময় নিজের আরও বেশি দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য নেশা থাকতে হবে।
— যে যত বেশি গুগলের ওপর নির্ভরশীল, তার সফলতার সম্ভাবনা তত বেশি।
— ইন্টারনেটের ওপর জীবনকে নির্ভরশীল করতে পারলে ফ্রিল্যান্সিংয়ে সফল হবেন।
— প্রচণ্ড ইচ্ছাশক্তি ছাড়া কিছুতেই সফল হওয়া যায় না।
— ধৈর্যশক্তি এই সেক্টরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
জেনে রাখা দরকার, কোনো ধরনের যোগ্যতা ছাড়া, কোনো কষ্ট ছাড়া আয়ের পরিমাণ হলেও অনেক কম হবে এবং বেশিদিন স্থায়ী হবে না। ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্ষেত্রে দক্ষ লোকের মূল্য অনেক বেশি। দক্ষ লোকের জন্য অনলাইন থেকে মাসে এক-দুই লাখ টাকা আয় করা খুবই স্বাভাবিক। সে ক্ষেত্রে আপনার একাডেমিক ব্যাকগ্রাউন্ড কিংবা আপনার বয়স কোনো ধরনের বাধা হয়ে দাঁড়াবে না। এ দেশে নারী কিংবা প্রতিবন্ধী যাদের জন্য ঘরের বাইরে গিয়ে কাজ করা কষ্টসাধ্য, তারাও ফ্রিল্যান্সিং শিখে পুরুষের পাশাপাশি পরিবারের অর্থনীতিতে অনেক বড় ভূমিকা রাখতে পারেন।
ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে কোন সেক্টরে কাজ করবেন?
এ বিষয়টি নিয়ে নতুনদের মনে অনেক প্রশ্ন থাকে। ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে অনলাইনে আয় করতে আগ্রহী; কিন্তু কোন পথে হাঁটবেন, সেটি নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না। এ উত্তরটি আসলে নিজেকেই খুঁজে বের করতে হবে। তবে যেহেতু ফ্রিল্যান্সিং বিষয়গুলো নিয়ে ধারণা কম, সে জন্য এখানে প্রধান বিষয়গুলো নিয়ে সংক্ষিপ্তভাবে বলার চেষ্টা করছি। ধারাবাহিকটির পরের পর্বগুলোতে প্রতিটি বিষয় বিস্তারিত নিয়ে আসব। প্রতিটি পর্ব পড়ার চেষ্টা করুন।

 



 

Show all comments
  • MD.NURUL ISLAM ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৯:৫৮ এএম says : 0
    Welcome to your initiative. How can success be achieved? Thank you
    Total Reply(0) Reply
  • md. shafiqul islam ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ১০:৪৩ এএম says : 0
    i want know how to the work of freelancing work & uttara where near institute of training sector-6, uttara, dhaka
    Total Reply(0) Reply
  • emran hossain ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৩:৩১ পিএম says : 0
    ami nijeo freelancing korci. freelancing tho onk babe i kora jay. sector er oboab nai. apni kon sector ta ke sera 5 e jayga diben? sir pls ans me
    Total Reply(0) Reply
  • Afzal chowdhury ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৩:২১ পিএম says : 0
    So helpful article.
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Saidur ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৩:৪০ পিএম says : 0
    অসাধারণ ছিল লেখাটি। এর ধারাবাহিকতা যেন চলতেই থাকে............
    Total Reply(0) Reply
  • mohsena Aktar ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৩:৪৩ পিএম says : 0
    bah onek shundr likha besh kaje ashbe.... Thanks
    Total Reply(0) Reply
  • tonmoy ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৩:৫০ পিএম says : 0
    অনেক ভালো অনেক কিসু জানলাম. কিন্তু আরো বুজতে চাই তাই আরো লিখা একরাম ভাই থেকে আশা করি
    Total Reply(0) Reply
  • Muna lisa ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৪:৫৯ পিএম says : 0
    আপনার লেখা থেকে অনেক কিছু জানতে পারছি। আপনার লেখা অনেক হেল্পফুল। ধন্যবাদ।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Jahadul ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৫:৩৩ পিএম says : 0
    ধন্যবাদ এই রকম আরো লেখা চাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Sohel ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৫:৩৫ পিএম says : 0
    Ek kothay oshadharon. Apnar lekha aro onek porechi but eita onnorokom. Porer porber jonne opekkhay thaklam.
    Total Reply(0) Reply
  • Shanta Islam ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৫:৪৪ পিএম says : 0
    অসাধারণ লিখনি স্যার এর থেকে অনেক কিছু শিখার আছে। এই রকম লেখা সব সময় চাই।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আমির হোসেন ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৫:৪৭ পিএম says : 0
    অনেক কিছুই জানা ছিলো না, যা জানা গেলো, অনেক ধন্যবাদ আশা করি এমন পোষ্ট আরো পাওয়া যাবে
    Total Reply(0) Reply
  • Sonia ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:০১ পিএম says : 0
    Likhata oshadharon chilo.. Sobaike onupranito korbe ..ai type er likha Asa Kori continue hobe.
    Total Reply(0) Reply
  • Afroza tasnim ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:০১ পিএম says : 0
    আপনার লেখা বরাবরই খুব ভালো লাগে। অনেক অজানা বিষয় জানা যায় এবং অনেক দিক- নির্দেশনা পাওয়া যায়। এ লেখাটিও এর ব্যতিক্রম না। অনেক কিছু জানলাম। এমন লেখা আরও চাই। আমি আপনার সাথে একমত যে আমাদের গুগুলের উপরে নির্ভরশীলতা বাড়াতে হবে। এ বিষয়টি খুব ই গুরুত্বপূর্ণও একটি বিষয়। আগামীতে এ বিষয়ে একটি লেখা প্রকাশের অনুরোধ রইলো। ধন্যবাদ।
    Total Reply(0) Reply
  • Azizunnahar Sadeq ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:০৭ পিএম says : 0
    Very useful post. Please let me know difference Freelancing and Outsourcing?
    Total Reply(0) Reply
  • জাহেদুল ইসলাম ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:২৫ পিএম says : 0
    ফ্রিল্যান্সার হতে হলে অনেক কিছু শিখতে হয়, জানতে হয়, বুঝতে হয়, যার সবকিছু আপনার লেখাগুলোর মধ্যে পাওয়া যায়। যদি আপনি নিয়মিত এভাবে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে আপ কামিং ফ্রিল্যান্সারদের জন্য খুবই উপকার হবে এবং নতুন ফ্রিল্যান্সাররা সহজেই সফল হতে পারবে। আশা করি নিয়মিত আপনার লেখা পাব
    Total Reply(0) Reply
  • উমর ফারুক বিজয় ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:০৯ পিএম says : 0
    অসম্ভব ভালো লিখেছেন স্যার। সত্যিই এগোলো ভেতরের অনেক কথা ই অজানা ছিলো। অপেক্ষায় রইলাম পরের পর্বের জন্য। শুভকামনা।
    Total Reply(0) Reply
  • অনিরুদ্ধ ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ৬:৪৯ পিএম says : 0
    ফ্রিল্যাঞ্চিং শুরু করে শুরুতে কিছু আয় করা যায়, কিন্তু দেখা যায়, কিছুদিন পরে যেই কাজ শিখে আয় হচ্ছিল ওটার বেশ কিছু পরিবর্তন হয়ে, অন্য আরেক টা কাজের ট্রেন্ড চলে আসে মার্কেট এ , তাই পুরনো কাজ টি করে আগের মত আর আয় হয় না, কমে যায় , সুতরাং কিভাবে মার্কেটে বা এর বাইরে কিভাবে আপডেট কাজ করে আয় টা রেগুলার রাখা যায় ও মার্কেটিং এ সফল হওয়ার বিষয়ে স্পেসিফিক ভাবে যদি কিছু বলতেন তাহলে ভালো হতো, যেমন ধরুন app making, youtube ও animation এর কাজের ক্ষেত্রে মার্কেটিং পলিসি টা কেমন হলে সাকসেস আসবে। ধন্যবাদ স্যার।
    Total Reply(0) Reply
  • Tahsan Arif ৪ অক্টোবর, ২০১৮, ১১:২৬ পিএম says : 0
    Thanks a lot.
    Total Reply(0) Reply
  • Al-amin ৫ অক্টোবর, ২০১৮, ৯:০৩ এএম says : 0
    পরবর্তী লেখা গুলো কোথায় পাবো??
    Total Reply(0) Reply
  • polash ৫ অক্টোবর, ২০১৮, ১১:১৭ এএম says : 0
    Thanks a lot.
    Total Reply(0) Reply
  • Akir Hossain ৬ অক্টোবর, ২০১৮, ১:৩৪ এএম says : 0
    পরের পোষ্টের অপেক্ষায় আছি
    Total Reply(0) Reply
  • ৮ অক্টোবর, ২০১৮, ৮:০২ এএম says : 0
    কোন sofftwet দিয়ে ফিলান্সিংনে কাজ করতে হয়
    Total Reply(0) Reply
  • Ruhulamin ৩০ অক্টোবর, ২০১৮, ৮:১০ পিএম says : 0
    অনেক ভালো লেগেছে স্যার। সত্যিই এ কথাগুলো অজানা ছিলো। শুধু লোকমুখে শুনতাম যে অনলাইনে আয় করা যায়। অপেক্ষায় রইলাম পরের পর্বেরও জন্য। অনেক অনেক শুভকামনা।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Muxibur Rahman ৮ নভেম্বর, ২০১৮, ১১:০১ এএম says : 0
    আমি অনেক দিন ধরে হন্যে হয়ে ঘুরছি। কিন্তু বুঝে উঠতে পারছিন আসলে কি করবো আমি। প্লিজ একটু হেল্প করবেন, কিভাবে কজটা শুরু করবো?
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ