Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫, ১৫ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

৮৩তম জন্মদিনে অর্থমন্ত্রী : আমাকে বিমর্ষ করে সে রকম কোনো দুঃখ নেই

প্রকাশের সময় : ২৬ জানুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ভাষাসৈনিক, মুক্তিযোদ্ধা, অর্থনীতিবিদ ও কূটনীতিক এ রকম বহুধা পরিচয়ে ভূষিত বর্ষীয়ান এ মন্ত্রীর ৮৩তম জন্মবার্ষিকী ছিল গতকাল সোমবার।
জন্মদিনে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে মুহিত বলেন, ‘৮৩তম জন্মদিনে এসে ভালো লাগছে এই বেঁচে থাকা। কাজের মধ্যে, কাজের ভেতরে থাকতে ভীষণ ভালো লাগে। রোগবালাই, কষ্ট কোনো কিছু নাই। জীবনের এতটা পথ পাড়ি দেওয়ার পর আপনার প্রধানতম দুঃখ কী? জানতে চাইলে মুহিত প্রথমে বলেন, কোনো দুঃখ নেই। কিন্তু দুঃখ তো মানুষের থাকেই- এমন কথার জবাবে তিনি বলেন, ‘দুঃখ থাকে। তবে আমাকে বিমর্ষ করে না।
গতকাল সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে নিজ দপ্তরে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শুভেচ্ছা ও ভালোবাসায় আপ্লুত হন মন্ত্রী। এ সময় নিয়মিত অর্থ মন্ত্রণালয় কভার করেন এমন সাংবাদিকরাও ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান তাকে।
নিজের জন্মদিনে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। গত এক বছরে দেশে নতুন করে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি না করায়, মুহিতের এই ধন্যবাদ। আজকে আমার একটি বিশেষ দিন। এ দিন আমি খালেদা জিয়াকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। গত একবছর কোনো জ্বালাও-পোড়াও না হওয়ায় দেশের অর্থনীতিতে গতির সঞ্চার হয়েছে।
২০১৪ সালের শুরুর তিন মাসের টানা অবরোধে ব্যাপক নাশকতার পর প্রায় একবছর দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি শান্ত থাকার প্র্রসঙ্গ টেনে মুহিত বলেন, দেশে কোনো রাজনৈতিক অস্থিরতা নেই। অর্থনৈতিক সূচকগুলোও ভালো। তাই অধরা ৭ শতাংশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি এবার ধরা দেবে বলে আশা করছি।
তিনি বলেন, আমি আগেই বলেছিলাম, বাংলাদেশের মানুষ আর হরতাল-অবরোধ মানবে না। হয়েছেও তাই। আমার বিশ্বাস এই ধরনের ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি বাংলাদেশ থেকে চিরতরে বিদায় নেবে। মানুষ এখন উন্নয়ন চায়। আর সেই কাজটিই আমরা করছি। ১৯৩৪ সালের ২৫ জানুয়ারি সিলেটে জন্ম নেওয়া মুহিত এরই মধ্যে টানা সাত বছর বাংলাদেশের বাজেট ঘোষণার রেকর্ড গড়েছেন। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের শুভেচ্ছার জবাবে এ সরকারের আগামী তিনটি বাজেটও নির্বিঘেœ দিয়ে যাওয়ার আশার কথা বলেন তিনি। শরীর ভালো থাকলে আরও তিনটা দিতে চাই। তাহলে সাইফুর রহমান সাহেবের ১২টার সমান হবে। জন্মদিনের কেক কেটে তৃপ্তির সঙ্গে মুহিত বলেন, পৃথিবীতে আমিই সম্ভবত একমাত্র ব্যক্তি যে ৮৩ বছর বয়সেও অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছে।
দীর্ঘ এই কর্মজীবনের সবচেয়ে বড় সাফল্য কী- এমন প্রশ্নে মুহিত বলেন, বাংলাদেশকে নিম্নমধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে দেখতে পাওয়া সবচেয়ে বড় সাফল্য। আশা করছি ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হব। তখন আরও ভালো লাগবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশ ৬ শতাংশের বেশি হারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে, যা অনেক বড় দেশ পারেনি।এবার আমরা ৭ শতাংশ অতিক্রম করব। এটা হবে বাংলাদেশের জন্য একটি মাইলফলক।
বৈদেশিক সহায়তা বেড়েছে ৬ শতাংশ
চলতি অর্থবছরের (২০১৫-১৬) ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রাপ্ত বৈদেশিক সহায়তার পরিমাণ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৬ দশমিক ০৫ শতাংশ বেড়েছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।
সোমবার বিকেলে দশম জাতয়ি সংসদের নবম অধিবেশনে সরকার দলীয় সদস্য এম, আবদুল লতিফের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ তথ্য জানান। অর্থমন্ত্রী জানান, গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রাপ্ত বৈদেশিক সহায়তার পরিমাণ ছিল ১৫০১ দশমিক ৬১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার; চলতি অর্থবছরে একই সময়ে প্রাপ্ত মোট বৈদেশিক সহায়তার পরিমাণ ১৫৯২ দশমিক ৪১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। তিনি জানান, চলতি অর্থবছরে ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রাপ্ত বৈদেশিক সহায়তার মধ্যে অনুদানের পরিমাণ ২৯৮ দশমিক ৮৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর ঋণ সহায়তার পরিমাণ ১২৯৩ দশমিক ৫৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ৬ মাসে আয়কর আদায় ২১ হাজার কোটি টাকা।
দেশে কোটিপতি এক লাখ ১৪ হাজার
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জানিয়েছেন তফসিলী ব্যাংকের হিসেব অনুযায়ী ২০১৫ সালে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে কোটি টাকার হিসাবধারী রয়েছেন ১ লাখ ১৪ হাজার ২৬৫ জন। জাতীয় সংসদে সোমবার মো. সোহরাব উদ্দিনের (কিশোরগঞ্জ-২) প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান।
সংসদে মন্ত্রীর দেয়া তথ্য অনুযায়ী বিগত পাঁচ বছরে বাংলাদেশে কোটিপতির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১১ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কোটিপতি হিসাব সংখ্যা ছিল ৭৮ হাজার ১৫০টি, ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ছিল ৯০ হাজার ৬৫৫টি, ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৯৮ হাজার ৫৯১টি, ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১ লাখ ৮ হাজার ৯৭৪টি এবং ২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১ লাখ ১৪ হাজার ২৬৫টি।
২১ হাজার ২৮ কোটি টাকা আয়কর আদায় হয়েছে
স্বতন্ত্র সদস্য মো. ওুস্তম আলী ফরাজীর লিখিত এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধে (ডিসেম্বর ২০১৫) ২১ হাজার ২৮ কোটি টাকা আয়কর আদায় হয়েছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিগত অর্থবছরের প্রথমার্ধে আয়কর আদায় হয়েছিল ১৯ হাজার ১৪৬ কোটি টাকা। এ বছরে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৯ দশমিক ৮৩ ভাগ।
তিনি বলেন, বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্রানান্তকর চেষ্টা করা হচ্ছে। বছরে শেষে তা অর্জন সম্ভব হবে বলে আশা করছি।
সরকার দলীয় সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর (ফেনী-২) এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমান যুগের সাথে তাল মিলিয়ে রাজস্ব বিভাগকে প্রযুক্তি নির্ভর করার লক্ষ্যে সরকার নানাবিধ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।
এর আগে বিকের সাড়ে ৪টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।