Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৪ কার্তিক ১৪২৬, ২০ সফর ১৪৪১ হিজরী

ডাক্তার আছেন চিকিৎসা নেই

ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতাল

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১০ অক্টোবর, ২০১৮, ১২:০৩ এএম

ফরিদপুর সদর উপজেলার জেনারেল হাসপাতালে প্রায় আট বছর ধরে কর্মরত আছেন ডেন্টাল ডাক্তার সামিরা বিনতে ওয়াহিদ। তিনি এই দীর্ঘ বছর ধরে হাসপাতালে কর্মরত থাকা অবস্থায় কোনো রোগীকে ডেন্টাল স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিন জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে এর সত্যতা পাওয়া যায়। সামিরা বিনতে ওয়াহিদের চেম্বারের চেয়ার টেবিল ফাঁকা রয়েছে। ডেন্টাল স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন ওই রুমেই অবস্থানরত দুইজন ডেন্টাল টেকনিশিয়ান। তাদের কাছে ডাক্তার কোথায় আছেন জানতে চাইলে তারা একটু চুপ থেকে জানান, আশে পাশেই কোথাও আছেন। সামসুন্নাহার নামক এক রোগী জানান, এই ডাক্তার দীর্ঘদিন ধরে জেনারেল হাসপাতালে কর্মকত আছেন। চিকিৎসাসেবা নিতে এসে তাকে এ পর্যন্ত পেলাম না, পেয়েছি ডেন্টাল সহকারীদের। বাধ্য হয়েই এদের সেবা নিয়েই বাড়ি ফিরে যেতে হয়।

এ বিষয়ে জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডাক্তার গণেশ আগরওয়ালা জানান, আমি ১০টা ২০ মিনিটের সময় ডাক্তার সামিরা বিনতে ওয়াহিদকে দেখেছি। এখন বেলা ১১টা বাজে। এখন কোথায় আছে আমি বলতে পারব না এবং এদের খবরদারি করার ক্ষমতাও আমার নেই। আপনারা সাংবাদিক সরেজমিন এসে যা পেয়েছেন আপনারা পত্রিকায় লিখে দিন। এ বিষয়ে আমার বলার কিছু নেই।
ফরিদপুরের সিভিল সার্জন আবু জাহের জানান, ডাক্তার সামিরা বিনতে ওয়াহিদ কেন চিকিৎসাসেবা দিচ্ছে না বা কেন হাসপাতালে গিয়ে আপনি তাকে পেলেন না, উনি কোথায় ছিলেন আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখব। যদি ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায় আমি তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো।

উল্লেখ্য, ফরিদপুরের এই ঐতিহ্যবাহী জেনারেল হাসপাতালটি প্রায় শত বছর ধরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সাম্প্রতিক এ ধরনের কিছু ডাক্তারদের কারণে হাসপাতালের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। ফরিদপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে এই ঐতিহ্যবাহী জেনারেল হাসপাতালটি অবস্থিত। ফরিদপুরবাসীর দাবি স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের চিকিৎসাসেবার জন্য দৃষ্টি দেয়ার জন্য অনুরোধ জানান এবং ডাক্তার সামিরা বিনতে ওয়াহিদ চিকিৎসা সেবায় ফাঁকি দেয়ার বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চিকিৎসা

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন